adv
২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা শিথিল শঙ্কিত ভারতের ইউকো ব্যাঙ্ক

image_57870_0নয়া দিল্লি: ইরানের ওপর থেকে পশ্চিমি রাষ্ট্রগুলির নিষেধাজ্ঞা শিথিল করায় বিপাকে পড়তে চলেছে ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত ইউকো ব্যাঙ্ক৷

একদা সবচেয়ে খারাপ ফল করা ভারতীয় ব্যাঙ্কগুলির অন্যতম ইউকো ব্যাঙ্কের ব্যবসা ২০১২র পর ঊর্ধ্বমুখী হয়েছিল ইরান ব্যবসার ওপর নির্ভর করেই৷ সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের কাছে ইউকো ব্যাঙ্কের চেয়ারম্যান অরুণ কল আশঙ্কা প্রকাশ করেন যে, ইউরোপ ও আমেরিকার ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার পর ব্যবসায় ইউকো ব্যাঙ্কের ব্যবসায় টান পড়তে পারে৷

পরমাণু শক্তি সঞ্চয়ের অভিযোগে ইরানের উপর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয়ন ইউনিয়ন অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা জারি করার পর ভারত সহ ছ'টি দেশকে মধ্য প্রাচ্যের দেশটি থেকে তেল আমদানির অনুমতি দেয়া হয় এই শর্তে যে প্রতি বছর ইরান থেকে তেল আমদানি কমাবে এই দেশগুলি৷ তাছাড়া, তেল আমদানির খরচ মার্কিন ডলারে দেওয়া যাবে না৷ এর পর তখন ইরান ও ভারত সরকারের মধ্যে সমঝোতা হয়, ভারতে তেল রপ্তানির ৫৫ শতাংশ ইউরোয় এবং বাকি ৪৫ শতাংশ অর্থ টাকায় নেবে ইরান৷ তেল আমদানি খরচের যে অংশ টাকায় দেওয়া হবে, আমদানিকারী ভারতীয় সংস্থাকে সেই টাকা রাষ্ট্রায়ত্ত ইউকো ব্যাঙ্ককে জমা রাখতে হবে৷ ইউকো ব্যাঙ্কে থাকা ইরানি ব্যাঙ্কগুলির অ্যাকাউন্টে ওই টাকা জমা হবে৷ ইউরোয় আমদানির অর্থ পাঠানো হত তুরষ্কের হাল্ক ব্যাঙ্ক মারফত্৷

২০১২ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে, হাল্ক ব্যাঙ্ক মারফত্ ইউরোয় ওই আমাদানির পাওনা মেটানোর উপরও নিষেধাজ্ঞা জারি হয়৷ ২০১২ সালের শুরু থেকে ইরানের তেল আমদানির জন্য টাকা জমা পড়েছে ইউকো ব্যাঙ্কে৷ সেই গচ্ছিত অর্থের পরিমাণ ৩০০ কোটি ডলারেরও বেশি৷ ইরানের তেলের টাকা জমা রাখার জেরে এ বছর জুলাই-সেপ্টেম্বর ত্রৈমাসিকে ইউকোর আয় চারগুণ বেড়ে গিয়েছে৷ সুদ বাবদ নিট আয় বেড়েছে ৫৫ শতাংশ৷ মোট ঋণ দিয়েছে দু'লক্ষ ১২ হাজার কোটি টাকা৷ ২০১১ সালে এই ঋণের পরিমাণ ছিল এক লক্ষ ৬৩ হাজার কোটি টাকা৷ অর্থাত্, এই পর্বে বকেয়া ঋণের (নিট সম্পত্তি) পরিমাণ বেড়েছে ৩০ শতাংশ৷ অন্যান্য ব্যাঙ্কের চেয়ে ইউকোর আমানতে সুদও অনেক কম, ৬.০৯ শতাংশ৷ প্রতিদ্বন্দ্বী ওরিয়েন্টাল ব্যাঙ্ক অফ কমার্সের আমানতে সুদ ৭.৬৫ শতাংশ৷ ইউকো ব্যাঙ্কের ব্যবসা বাড়ানোর অন্যতম প্রধান কারণ, ব্যাঙ্কটির মোট আমানতের ১২ শতাংশই হল ইরানের তেলের জন্য গচ্ছিত টাকা৷

কিন্ত্ত সম্প্রতি পরমাণু সমৃদ্ধিকরণ স্থগিত রাখার চুক্তিতে সায় দিয়েছে ইরান৷ যার জেরে ইরানের উপর থেকে কয়েকটি আর্থিক নিষেধাজ্ঞা শিথিল করেছে পশ্চিমি দুনিয়া৷ তবে, ফেব্রুয়ারি থেকেই ইরানের নতুন ক্ষমতাসীন সরকার পুরো তেল আমদানির পাওনাই ইউরোয় চাইছে৷ নিষেধাজ্ঞা শিথিল হওয়ার পর ইরানের এই দাবি আরও জোরালো হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷ তারা কিছুতেই ভারতীয় মুদ্রায় লেনদেন রাজি হবে না৷ এর জেরে ইউকো ব্যাঙ্কে আমদানিকারীদের টাকা আর জমা পড়বে না৷ ফলে ব্যবসা হারাবে ইউকো৷

এ প্রসঙ্গে ইউকো চেয়ারম্যান অরুণ কল বলেছেন, 'ইরান ব্যবসা আমাদের ভাগ্য ফিরিয়ে দিয়েছিল৷ ব্যাঙ্ক শিল্পে আমরা ছোট সংস্থা বলে পরিচিত ছিলাম৷ সেই জায়গা থেকে নিজেদের অবস্থার উন্নতি ঘটিয়েছি৷ ইরান ব্যবসা বন্ধ হওয়া হতাশজনক৷ তবে এগিয়ে যাওয়ার এখনও রাস্তা রয়েছে৷'

ইউকো চেয়ারম্যানের বক্তব্য, ইরান থেকে তেল আমদানি বাড়লে হয়তো ব্যাঙ্কের ব্যবসা কিছুটা চাঙ্গা হবে৷ তবে ইরানের উপর ভরসা না করে শাখা সম্প্রসারণ এবং নতুন গ্রাহক টানার দিকে মন দিচ্ছে ইউকো৷ ছোট ও মাঝারি সংস্থাকে বেশি করে ঋণ দেওয়ার দিকে ঝউংখছে ব্যাঙ্ক৷ সাধারণের জন্য ঋণ প্রদান বাড়াতে চায় ইউকো, তবে একই সঙ্গে ব্যাঙ্কের অনাদায়ী ঋণের পরিমাণ ৫.৩ শতাংশ থেকে নামিয়ে আনার লক্ষ্যও রয়েছে৷ সূত্র: সংবাদ সংস্থা।

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
December 2013
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া