adv
২রা জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ক্যানসারের চিকিৎসায় ‘ব্যক্তিগত’ ওষুধ

image_57701_0লন্ডন: চিকিৎসক ও গবেষকরা রোগীর শারীরিক বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী সঠিক ওষুধ বের করার চেষ্টা করছেন৷ বিশেষ করে ক্যানসারের চিকিৎসায় এই পদ্ধতি ফলপ্রসূ হবে বলে মনে করেন তারা৷

গবেষক ফ্রাংক কিশকেল এই প্রসঙ্গে বলেন, যেকোনো থেরাপির আগে রোগটিকে শনাক্ত করা প্রয়োজন৷ তা না হলে ভুল চিকিৎসা হতে পারে৷ তার ভাষায়, ‘‘আমি তো হাড় ভাঙলে শুধু মলম দিয়ে ভালো করতে পারি না৷ এ জন্য ভাঙা হাড়কে আগের জায়গায় এনে আঁটকাতে হবে৷ তা হলেই তা জোড়া লাগবে৷''

সঠিক চিকিৎসা

ভাঙা হাড়ের মতো ক্যানসার রোগেও সঠিক চিকিৎসা ও ওষুধের ঠিকঠাক ডোজ দেওয়া উচিত৷ ডাক্তার যদি ঠিকমতো বুঝতে পারেন, রোগী কতটা কেমোথেরাপি সহ্য করতে পারবেন, তাহলে তাকে ঠিকমতো ডোজও দিতে পারবেন৷ এ জন্য একটি পদ্ধতি বের করা হয়েছে৷ এর মাধ্যমে প্রচলিত ৩২টি কেমোথেরাপির ওষুধ কোনো নির্দিষ্ট রোগী কতটা সহ্য করতে পারবেন, তা পরীক্ষা করা হয়৷ যে সব ওষুধ কাজে লাগবে না বলে বোঝা যায়, সে সব আর রোগীকে দেয়া হয় না৷

জিন থেরাপি

আরেক পদ্ধতিতে চিকিৎসকরা ক্যানসারের জিন বিশ্লেষণ করে দেখছেন, যাকে ‘অঙ্কোজিন’ বলা হয়৷ কিশকেল বলেন, আমরা ক্যানসারের সেলের চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য বুঝতে পারলে উপযোগী চিকিৎসাও করতে পারবো৷



‘হাইডেলব্যার্গের ন্যাশনাল সেন্টার ফর টিউমার ডিজিজি’-এর বিশেষজ্ঞ ক্রিস্টফ ফন কালে এই প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘ক্যানসার উদ্দীপক জিন বের করতে পারলে নির্দিষ্ট ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা করা সম্ভব৷'' কোনো কোনো স্কিন ক্যানসার ও স্তনের ক্যানসারের বেলায় এটা কার্যকর হতে পারে৷

ইমিউন থেরাপি

ক্যানসারের চিকিৎসায় আরেকটি ফলপ্রসূ পদ্ধতি হলো ইমিউন থেরাপি৷ এই থেরাপিও রোগীর শারীরিক বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে খাপ খাওয়ানো হতে হবে৷ এই থেরাপির মাধ্যমে শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা ক্যানসারের সেলের বিরুদ্ধে লড়াই করে৷ চিকিৎসকরা টিকা বের করার কাজে রোগীর ইমিউন সিস্টেমকে লাগাতে পারেন, যা নির্দিষ্ট কোনো ক্যানসার রোধে কাজ করতে পারে৷

অথবা চিকিৎসকরা রোগীর ইমিউন সিস্টেম থেকে সেল বের করে এমনভাবে উদ্দীপিত করার চেষ্টা করতে পারেন, যাতে এটি টিউমারকে আক্রমণ করতে বা ধ্বংস করতে পারে৷

ব্যক্তিগত চিকিৎসা

এই রকম ব্যক্তিগত ওষুধ ছাড়া ক্যানসারের বিরুদ্ধে লড়াই করে জয় লাভ করা সম্ভব নয়৷ এ ব্যাপারে চিকিৎসক ফন কালে প্রায় নিশ্চিত৷ তবে এক্ষেত্রে দ্রুত কোনো ফলাফল পাওয়া যাবে বলে মনে করেন না চিকিৎসকরা৷ এই গবেষণা এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে৷ একটি আন্তর্জাতিক ক্যানসার জিনোম-কনসোর্টিয়াম এক্ষেত্রে সহায়তা করতে পারে, যাতে দ্রুত একটা ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া যায়৷

ফন কালে আশা করেন, দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে চিকিৎসকরা জিন-ক্যাটালগ দেখে বুঝতে পারবেন যে, কোন থেরাপি, কোন ওষুধ বা কোন কেমোথেরাপি ক্যানসারের কোন রোগীর জন্য উপযোগী৷ সূত্র: ডিডব্লিউ

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
December 2013
M T W T F S S
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া