adv
২৬শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রাজধানীতে ইয়াবার প্রধান রুট যাত্রাবাড়ী

image_63536 copyঢাকা: ক্রেজি ড্রাগ হিসেবে পরিচিত মারণনেশা ইয়াবা। এর ভয়াবহ ছোবলে আগামীর প্রজন্ম আজ ধ্বংসের মুখোমুখি। ইয়াবা ট্যাবলেট হেরোইনেরই আলাদা সংস্করণ। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, তরুণ-তরুণীই নয়- ব্যবসায়ী, চাকরিজীবীদের অনেকেই এখন ইয়াবায় আসক্ত। এ নেশার কারণে বাড়ছে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা, বাড়ছে অপরাধ। আর এ সুযোগে প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম ধ্বংস করে ফুলে ফেঁপে উঠছে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা।  

মায়ানমার থেকে টেকনাফ দিয়ে ইয়াবা ট্যাবলেট পৌঁছে যাচ্ছে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে এটি ছড়িয়ে পড়ছে সবখানে। এছাড়া ভারত সীমান্ত থেকেও আসছে এসব মাদক।

আর যাত্রাবাড়ী এলাকা দিয়েই বেশির ভাগ ইয়াবার চালান রাজধানীতে ঢুকছে। যাত্রীবাহী বাস, পণ্যবাহী বা খালি ট্রাক, মাইক্রোবাসসহ বিভিন্ন যানবাহনে করে আসছে এসব ইয়াবা। র‌্যাব, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি) ও পুলিশ কর্মকর্তারা ইতোমধ্যে যাত্রাবাড়ী এলাকাকে ইয়াবার সবচেয়ে বড় রুট হিসেবে চিহ্নিত করেছে। ওই এলাকা থেকে প্রায়ই আটক হচ্ছে চালান। গত দুই মাসে শুধু র‌্যাব-১০ অর্ধ লক্ষাধিক ইয়াবা ট্যাবলেট আটক করেছে। কিন্তু হোতাদের নাগাল পাওয়া যাচ্ছে না। এ বিষয়ে প্রশাসনের কার্যকর তৎপরতাও নেই বললেই চলে।

বাংলামেইলের অনুসন্ধানে জানা গেছে, যাত্রাবাড়ী রুট দিয়ে আসা ইয়াবার চালানগুলো সাংকেতিক ভাষায় কুশল বিনিময়ের সময় হাতবদল হয়ে যায়। এ ব্যবসায় ব্যবহার করা হচ্ছে টেকনাফের শতাধিক নারীসহ দুই শতাধিক বাহককে। কারবারীরা এদের বলে ‘গাধা’। এ ব্যবসার জন্য যাত্রাবাড়ী ও আশপাশে বসবাস শুরু করেছে কক্সবাজার-টেকনাফের শতাধিক ব্যবসায়ী। ইয়াবা সংগ্রহ করে রাজধানীতে ছড়িয়ে দিতে যাত্রাবাড়ী, ডেমরা ও কদমতলীতে সক্রিয় রয়েছে প্রায় একশ স্থানীয় মজুতদার।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রতিদিন নতুন নতুন কৌশলে ইয়াবার চালান আসছে যাত্রাবাড়ী রুট দিয়ে। মাঝে-মধ্যে ধরা পড়ছে দু-একটি চালান। গত মাসে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের শনির আখড়ার রানা পেট্রোল পাম্পের সামনে একটি পিকআপ ভ্যান থেকে ১৫ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করে র‌্যাব-১০। গ্রেপ্তার করা হয় চালক আব্দুর রহিমকে।

র‌্যাব-১০-এর অপারেশন অফিসার খন্দকার ফজলে রাব্বী বাংলামেইলকে বলেন, ‘রহিমের বাড়ি কক্সবাজারের স্টেডিয়াম পাড়ায়। মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে খালি ট্রাক নিয়ে সে ঢাকায় আসে। একটি চালান পৌঁছে দিতে পারলে হাজারপ্রতি দুই হাজার টাকা কমিশন পায় চালকরা। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আগেও চালান এনেছে বলে জানায় রহিম।’

তিনি বলেন, ‘দুই মাস আগে ট্রাকে ১০ হাজার ইয়াবার আরেকটি চালান আমরা আটক করি। যাত্রাবাড়ী এলাকা থেকে আড়াই মাসে ৫০ হাজারের বেশি ইয়াবা ট্যাবলেট আটক হয়েছে। চালানের সঙ্গে আটককৃত ব্যক্তিরা বাহক হওয়ায় নেটওয়ার্ক ধরে বেশিদূর এগুনো যাচ্ছে না।’

ডিএনসির ঢাকা মেট্রো উপ-অঞ্চলের সহকারী পরিচালক (দক্ষিণ) লুৎফর রহমান বাংলামেইলকে বলেন, ‘যাত্রাবাড়ী ও সায়েদাবাদ এলাকা দিয়ে ইয়াবা আসছে, এমন তথ্য পেয়ে আমরা অভিযান জোরদার করেছি। ইদানিং কারবারীরা ঢাকায় না এসে গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, টঙ্গী, সাভার, কেরানীগঞ্জসহ রাজধানীর বিভিন্ন উপকণ্ঠে ইয়াবা মজুদ শুরু করেছে।’

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, টেকনাফ থেকে আসা স্টার লাইন, শ্যামলী, হানিফ পরিবহনসহ বিভিন্ন পরিবহনের বাসে করে যেসব চালান আসে সেগুলোর বেশিরভাগ আনে নারী বাহকরা। আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে র‌্যাব ও পুলিশ ইয়াবার হাতবদলের অনেক কৌশল সম্পর্কে জেনেছে। বাসে ইয়াবা বহনকারীদের বলা হয় ‘গাধা’। ‘গাধা’রা বাসে করে চালান পৌঁছে দিয়ে আবার টেকনাফে ফিরে যায়। এক হাজার ইয়াবা পৌঁছে দেয়ার জন্য তারা গড়ে দুই হাজার টাকা করে পায়।

টেকনাফের অন্তত দুইশ ‘গাধা’ রাজধানীতে আসছে, যাদের মধ্যে শতাধিক নারী। নারীরা শরীরে লুকিয়ে ইয়াবা বহন করে আনে। পুরুষ ‘গাধা’রা আনে পোশাকের গোপন পকেটে করে।

সূত্র জানায়, মোবাইল ফোনের নির্দেশনা অনুযায়ী বাহক সাংকেতিক কথায় চিনে নেয় গ্রহণকারীকে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বাহককে ‘কেমন আছেন’ বলে প্রশ্ন করে গ্রহণকারী। এরপর জানতে চায়- ‘বাবার শরীর ঠিক আছে?’ তখন বাহক আড়ালে গিয়ে তাকে ইয়াবা বুঝিয়ে দেয়। সায়েদাবাস বাসস্ট্যান্ড, আশপাশের কয়েকটি হোটেল, শনির আখড়া, চিটাগং রোড, সাইনবোর্ড, যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তা, ডেমরা রোড, মাতুয়াইল মাতৃসদন হাসপাতালের কাছে বেশিরভাগ চালান হাতবদল হয়।

সম্প্রতি ইয়াবাসহ ধরাপড়া এক আসামি জানায়, প্রতিদিন সকালে কক্সবাজার থেকে মাছের ট্রাকে করেও যাত্রাবাড়ী মৎস্য আড়ৎ এলাকায় ইয়াবার চালান আসছে। বাহকদের দেয়া তথ্য মতে, যাত্রাবাড়ী ও আশপাশের এলাকায় টেকনাফের শতাধিক লোক বাসা ভাড়া নিয়ে ইয়াবার ব্যবসা করছে। তাদের মধ্যে কাজলার আনোয়ার হোসেন ও আব্দুল হাকিম, রায়েরবাগ এলাকার আলম, গোলাপবাগের খোকন মিয়া ও জাহাঙ্গীর আলম, সায়েদাবাদের নাসির উদ্দিন, শনির আখড়া এলাকার মোহাম্মদ শরীফ, ধলপুর লিচুবাগান এলাকার শাহ আলম, সুমন ও সাথী বেগমের নাম জানা গেছে। 

এদিকে স্থানীয় একটি সূত্র জানায়, চালান সংগ্রহ করে বিক্রি করছে স্থানীয় কিছু ইয়াবা ব্যবসায়ী। তাদের মধ্যে ডেমরার ধেইল্লা এলাকার আবু হেনা মাসুম, মিনারা, সুফিয়া, নূরজাহান ও জাহাঙ্গীর, গোলাপবাগের তাসলিমা আক্তার শিমু, জামাল ও সেন্টু, যাত্রাবাড়ীর লম্বা সাগর, মনা, ইমরান, রনি ও মুকুল, দনিয়ার চায়না বাবুল ও ফালান, কাজলার ফয়জুল ইসলাম ভুঁইয়া, কুসুমবাগের মাসুদ নেওয়াজ, কদমতলীর গেসু, সুমন, মামুন ও রাজন, শনির আখড়ার রোলেক্স, রায়েরবাগের বাহার, মোশারফ ও খোকা, দয়াগঞ্জের রওশন আক্তার রুবি উল্লেখযোগ্য।

যাত্রাবাড়ী থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বাংলামেইলকে বলেন, ‘টেকনাফ ও কক্সবাজার থেকে আসা চালানসহ অনেককে গ্রেপ্তার করেছি আমরা। তবে তারা কেউ বড় ব্যবসায়ী নয়।’

তিনি বলেন, ‘রুটে গোয়েন্দা নজরদারির সুযোগ আমাদের নেই।’

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2013
M T W T F S S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া