adv
২১শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পোশাক কারখানার পরিবেশে ওয়ালমার্টের সন্তুষ্টি

55বাংলাদেশের পোশাক কারখানার পরিবেশ আগের তুলনায় উন্নত হয়েছে বলে জানিয়েছে বিশ্বের বৃহত্তম খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ওয়ালমার্ট। 
 
প্রায় ৭৫টি পোশাক কারখানার উপর করা জরিপের ফলাফল থেকে ওয়ালমার্ট এ তথ্য দিয়েছে। ওয়ালমার্টের হয়ে এ জরিপ চালায় ব্যুরো ভেরিটাস নামের বিশ্বব্যাপী সমাদৃত জরিপ প্রতিষ্ঠান।
বাংলাদেশের কারখানার বৈদ্যুতিক আগুন এবং বিল্ডিং নিরাপত্তা মূল্যায়ন করার জন্য ব্যুরো ভেরিটাস ওয়ালমার্টের চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। এটি তাদের করা প্রথম গ্র“পের প্রতিবেদন। 
এই প্রতিবেদনে দেখানো হয়েছে যে শত শত কারখানা তাদের কর্ম পরিবেশ বাস্তবেই উন্নত করেছে। এসব কারখানায় বাংলাদেশের হাজার হাজার শ্রমিকদের জন্য নিরাপদ কর্মসংস্থান তৈরি করেছে।
 
প্রতিবেদন প্রকাশের বিষয়ে ওয়ালমার্ট জানায়, আমরা বিশ্বাস করি বাংলাদেশে কর্ম পরিবেশ উন্নয়নের জন্য স্বচ্ছতা অত্যাবশ্যকীয়। স্বচ্ছতা হলো জবাবদিহিতার চূড়ান্ত প্রক্রিয়া এবং সহযোগিতার সুবিধা। এ কারণে ওয়ালমার্ট বাংলাদেশের কারখানার জন্য নিরাপত্তা মূল্যায়ন ফলাফল প্রকাশ করেছে। 
ওয়ালমার্ট আরো জানায়, এই জরিপ অব্যাহত থাকবে। আর যখনই কোনো জরিপ শেষ হবে তখনই সে ফলাফল প্রকাশ করা হবে। 
 
এছাড়া কোনো খুচরা বিক্রেতার করা জরিপের ফলাফল প্রকাশ এটাই প্রথম ঘটনা।
 
ওয়ালমার্টের করা জরিপের ফলাফলে দেখা যায়, জরিপ করা কারখানাগুলোর গড় বৈদ্যুতিক উন্নয়ন হয়েছে ৫৪.১৭ শতাংশ। ভবনের গড় নিরাপত্তার উন্নয়ন হয়েছে শতকরা ৪০.৯১ শতাংশ। এর মধ্যে ৩৪টি কারখানা ডি এবং সি ক্যাটাগরি থেকে নিজেদের এ অথবা বি ক্যাটাগরিতে উন্নীত করেছে। তবে এই দলটির মূল্যায়ন করা কারখানাগুলোর শতকারা ৬৪ ভাগই একই ব্যক্তিদের দ্বারা পরিচালিত। 
 
এ প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ওয়ালমার্ট বাংলাদেশে তৈরি পোশাক শিল্পের উল্লেখযোগ্য এবং টেকসই সংস্কারের জন্য প্রতিশ্র“তিবদ্ধ। তবে পরিবর্তনের লক্ষ্যে একসঙ্গে কাজ করার জন্য শিল্প, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, শ্রমিক সংগঠন ও সরকারি ব্যবস্থাপনার সত্যিকারের অর্থে সংস্কার প্রয়োজন।
 
ওয়ালমার্ট জানায়, বাংলাদেশের পোশাক শিল্পে দীর্ঘস্থায়ী পরিবর্তন আনতে এখনও অনেক কাজ করতে হবে। তবে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রচেষ্টা যা বাংলাদেশকে যথেষ্ট সম্পদ ও মনোযোগ এনে দিয়েছে।
 
বিশ্বের অন্যতম এ খুচরা পোশাক বিক্রি প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশে তৈরি পোশাক শিল্পে নিরাপত্তা উন্নয়ন করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এই বছরের শুরুতেই তারা এ বিষয়ে উল্লেখযোগ্য কিছু কর্মসূচি ঘোষণা করে।
 
এগুলো হলো- ওয়ালমার্টের পণ্য উৎপাদনকারী ১০০ ভাগ কারাখার বৈদ্যুতিক এবং গঠনগত নিরাপত্তা মূল্যায়ন করার জন্য একটি স্বাধীন ইঞ্জিনিয়ারিং সংস্থা নিয়োগ করা। এসব কারখানার সব কর্মীদের অগ্নি নিরাপত্তা প্রশিক্ষণ দেওয়া। উন্নত নিরাপত্তা প্রশিক্ষণের জন্য নতুন পরিবেশ, স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তা একাডেমি থেকে ১.৬ মিলিয়ন ডলার অনুদান দেওয়া। 
 
এছাড়াও বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের নিরাপত্তা উন্নত করার জন্য ২৬টি খুচরো বিক্রেতার জোটের একটি প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসেবে কাজ করা। এছাড়া সাধারণ নিরাপত্তা মানদ- অবলম্বন এবং এই জোট সদস্যদের সঙ্গে নিরাপত্তা পরিদর্শন ফলাফল ভাগ করতে সম্মত হওয়া।
 
প্রসঙ্গত, গত এপ্রিলে সাভারে রানা প্লাজা ধসে এক হাজার ১২৯ জন শ্রমিক ও গত নভেম্বরে সাভারের আশুলিয়ায় তাজরীন ফ্যাশনে আগুন লেগে ১১২ জন  নিহত হওয়ার পর বাংলাদেশের পোশাক কারখানাগুলোর কাজের পরিবেশ উন্নয়নে ব্যাপক চাপের মুখে পড়ে বাংলাদেশ। 
 
এসব দুর্ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ওয়ালমার্টসহ বেশ কয়েকটি উত্তর আমেরিকান প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশের কারখানাগুলোতে কর্মপরিবেশ উন্নয়ন ও শ্রম নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গার্মেন্ট মালিক ও সরকারকে সহায়তা দিতে সম্মত হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2013
M T W T F S S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া