adv
৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কলিং` বা দাওয়াতে আর যাবে না সংবাদকর্মী

zrqvn-arjf-ot20131117154839ঢাকা: সাংবাদিকরা এর দুটি নাম দিয়েছেন ‘কলিং’ আর ‘দাওয়াত’। শিবিরের ডাক পেলে ‘দাওয়াত’ আর বিএনপি ডাকলে ‘কলিং’। কলিং বা দাওয়াত যে নামেই ডাকা হোক, আজকাল এতে বেশ সাড়া দিচ্ছেন সাংবাদিকরা।



সুবিধা হচ্ছে- এইসব ডাক থেকেই মিডিয়াগুলো বিশেষ করে টেলিভিশন চ্যানেলগুলো পেয়ে যাচ্ছে তাজা ফুটেজ, অ্যাকশন ছবি, আর ককটেল ফোটানো, আগুন জ্বালানোর তরতাজা খবর। যা আবার ব্রেকিং, সদ্য পাওয়া, এইমাত্র পাওয়া এমন নানা নাম দিয়ে প্রকাশ, প্রচার করছে। এই প্রচার করতে পারায় বাহবা আছে। যেই ফটোসাংবাদিক কিংবা ভিডিও ক্যামেরাম্যান সবচেয়ে তাজা ছবিটি বা ফুটেজটি পেলেন তার কদর নিউজরুমে থাকেই। 



অপর সুবিধাটি হচ্ছে- যারা এই ‘কলিং’ বা ‘দাওয়াত’ দিয়ে সাংবাদিকদের ডেকে আনছে তারা সাড়া দেশজুড়ে ছড়িয়ে দিতে পারছে হরতালের ভীতি। ঢাকায় একটি/দুটি ককটেল ফুটিয়ে, কিংবা একটি গাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে তারা সারাদেশের গাড়িচালকদের কাছে বার্তা পৌঁছে দিচ্ছে- গাড়ি বের হলেই জ্বলবে। রাস্তায় বের হলেই শিকার হতে হবে ককটেল হামলার। অতএব সাবধান। ঘরে থাকো… হরতাল সফল করো। দিনভর এমন ককটেল আর আগুনের ঘটনা ঘটিয়ে দেশজুড়ে ভীতি ছড়ানোর পর বিকেলে কড়া মাড়ের ইস্ত্রিকরা কড়কড়ে শার্ট কিংবা পাঞ্জাবি পরে ডজন ডজন টেলিভিশন আর নানা মিডিয়ার কর্মীদের সামনে নেতার দাম্ভিক উচ্চারণ দেশজুড়ে অভ্যুত্থান ঘটেছে, দেশজুড়ে সফল হরতাল।



বাহ বেশ! কি অদ্ভুত ও যথেচ্ছ ব্যবহার মিডিয়ার! দুই-তিনটি তাজা ফুটেজ আর ছবি, এক-দুটি ব্রেকিং নিউজের আশায় কিভাবে ব্যবহৃত হয়ে যাচ্ছি আমরা সাংবাদিকরা! 



এর মধ্য দিয়ে আমরা জলাঞ্জলি দিয়ে ফেলেছি মানবিক মূল্যবোধ, আইনের প্রতি শ্রদ্ধা, সাংবাদিকতার নীতিমালা আর সর্বোপরি নীতি নৈতিকতা। 



‘কলিং’ আর ‘দাওয়াত’র বিষয়টি এখন হরতালের মাঠে মিডিয়া কর্মীদের জটলায় সবচেয়ে আলোচিত শব্দ।



আগেই বলেছি বিএনপি ডাকলে ‘কলিং’ আর জামায়াত-শিবির ডাকলে ‘দাওয়াত’। এই দাওয়াতে সাড়া দিয়ে চ্যানেলের ক্যামেরাম্যান, অন্যান্য মিডিয়ার ফটোসাংবাদিক আগে-ভাগেই পৌঁছে যায় কোনো ঘটনাস্থলে। সেখানে একটু পরেই জ্বালানো হয় কোনো গাড়িতে আগুন। কিংবা, একের পর এক ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে সৃষ্টি করা হয় ত্রাস। আর তাজা ফুটেজ ধারণ হয় উপস্থিত সকলের ক্যামেরায়। এখানে সাংবাদিক ব্যবহৃত হয় দাওয়াতদাতার ইচ্ছামাফিক। আর সেকারণেই ফুটেজে কে ককটেল ফাটাচ্ছে তার ছবি থাকে না, ক্যামেরা তাক করা থাকে যেখানে ককটেল ফুটছে সেখানে। দাউদাউ আগুন জ্বলছে এমন ফুটেজ থাকে, কিন্তু কে বা কারা আগুন জ্বালিয়ে গেলো তাদের খুঁজে পাওয়া যায় না। 



আর সেকারণেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আকুতি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের ছবি নয়, যারা সন্ত্রাস করছে তাদের ছবি তুলুন। এতে ব্যবস্থা নিতে সুবিধা হবে। 



কে ব্যবস্থা নেবে? পুলিশ! কিভাবে সম্ভব। পুলিশ নিজেই তো কনফিউজড। 



দাওয়াতে সাড়া দেওয়া একজন ফটো সাংবাদিকের স্বীকারোক্তি শুনুন-



নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি বলছেন,



“একদিন দাওয়াতে গুলিস্তান গেলাম। সেখানে বাস পোড়ানো হবে। ক্যামেরা হাতে নয়, ব্যাগে। ঘুরছি। পুলিশ এসে পরিচয় জানতে চাইলো।  বললাম ফটো সাংবাদিক। জানতে চাইলো, ক্যামেরা কোথায়। বললাম সিভিলে আছি। সাংবাদিক সিভিলে! পুলিশতো কনফিউজড। কিছু না বলেই চলে গেলো।”



বা মাঠে পুলিশকেও কনফিউজড করে দিচ্ছে সাংবাদিক। শোনা যাচ্ছে, পুলিশ এখন সেদিকে ছোটে যেদিকে সাংবাদিকরা যাচ্ছে। কারণ তারা ধরে নিচ্ছে সাংবাদিকরা যেখানে যাবে সেখানে কোনো ঘটনা ঘটতে পারে। 



এরই মধ্যে ডিএমপি থেকে নোটিশও জারি করা হয়েছে, যেখানে সংবাদকর্মীদের জটলা দেখা যাবে সেখান থেকে যেনো দূরে থাকে সাধারণ মানুষ। ডিএমপি জেনে গেছে আগাম ‘দাওয়াত’ বা ‘কলিং’ এ সাংবাদিকরা জড়ো হলেই ধরে নিতে হবে তাদের কাছে সহিংসতার তথ্য আছে।



এই কাজগুলো আর যাই হোক সাংবাদিকতা হতে পারে না। সাংবাদিকতার এতটা নিচু স্তরের ভ’মিকা আর কোনোকালে কোথাও ছিলো না। এর মধ্য দিয়ে সাংবাদিকতা তার ‘মহান পেশা’ নামটি হারাচ্ছে। 



এনিয়ে ভীষণ খেদ প্রকাশ করছিলেন দেশের বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের শীর্ষ পর্যায়ের সাংবাদিকরা। 



বাংলানিউজের এডিটর ইন চিফ আলমগীর হোসেন মনে করেন এমন তথ্যভিত্তিক সহিংসতা কভার করতে যাওয়া মানে সাংবাদিকতার নৈতিক অবক্ষয়। এ অবস্থা থেকে সাংবাদিকতাকে বাঁচাতে হবে। 



৭১ টেলিভিশনের বার্তা প্রধান সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা এই ঘটনাকে অনৈতিক সাংবাদিকতার চর্চা বলেই ক্ষান্ত হননি, মানুষ হিসেবেও এই সাংবাদিকরা অপরাধ করছেন বলে মত দিয়েছেন। 



ঘটনাগুলো ঘটছে স্রেফ এক অসুস্থ প্রতিযোগিতার জন্য। এর এখনই প্রতিরোধ দরকার, বলেন সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা। 



চ্যানেল আইয়ের বার্তা সম্পাদক জাহিদ নেওয়াজ খান বললেন, সামগ্রিকভাবে এটি একটি অনৈতিক বিষয়। স্রেফ দেখাতে পারা না পারার প্রতিযোগিতায় সাংবাদিকতা এমন অনৈতিকতায় জড়াচ্ছে যা দুঃখজনক।



বৈশাখী টেলিভিশনে প্রধান বার্তা সম্পাদক রাহুল রাহার মত, এর মাধ্যমে সাংবাদিকরাই হয়ে উঠছেন অপরাধের অংশ। জননিরাপত্তা বিঘ্নিত হয় এমন একটি কাজকেই উস্কে দিচ্ছেন সাংবাদিকরা। আর এতে ঝুঁকিও রয়েছে। এসব হামলা বুমেরাং হয়ে সাংবাদিকের ওপরই আঘাত হানতে পারে। তার প্রমাণ এরই মধ্যে পাওয়া গেছে। 



দুই-চারজন সাংবাদিক সাম্প্রতিক সময়ে আহত হয়েছেন তাদের কেউ কেউ যে এই ‘দাওয়াত’ বা ‘কলিং’ এর প্রলোভনের শিকার সে ব্যাপারেও নিশ্চিত হওয়া গেছে। 



সময় টেলিভিশনের বার্তা পরিচালক তুষার আবদুল্লাহ বলেন, সাংবাদিকতার সবচেয়ে বড় ক্ষতি করেছে এই ‘কলিং’ বা ‘দাওয়াত’ভিত্তিক সাংবাদিকতার চর্চা। 



কিভাবে ‘কলিং’ বা ‘দাওয়াত’ আসে তা এখন সবার জানা। 



বিএনপি বা হালে আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগও সাংবাদিকদের ব্যবহার করতে শুরু করেছে। তারা টেক্সট মেসেজে অথবা টেলিফোন করে বাছাই করা সাংবাদিকদের জানাচ্ছেন কোথায় হামলা, ভাংচুর বা প্রতিরোধ হবে। 



একজন খবর পেলে, তাজা খবর/ফুটেজ/ছবির আশায় জ্যামিতিক হারে বেড়ে যাওয়া সাংবাদিকদল ঘটনা ঘটার আগেই হাজির হয়ে যাচ্ছে। 



বিএনপি, আওয়ামী লীগের ধরনটা এখনও সেকেলে। এক্ষেত্রে জামায়াত শিবিরের ‘দাওয়াত’ কর্মসূচি আরও বেশি `গোছানো ও আধুনিক`! 



এরা জানে গোয়েন্দা পুলিশের নজরদারি রয়েছে। রয়েছে ফোন ট্র্যাকিংয়েরও ব্যবস্থা। তাই দাওয়াত দিতে তারা দুটি ফোন ব্যবহার করছে। একটি থেকে স্রেফ টেক্সট আসছে স্থান ও সময়ের নাম। আর অন্যটি থেকে আসছে ফোন। ‘ভাই কেমন আছেন… গতকাল তো ভাই ব্যস্ত ছিলেন… আসতে পারেন নাই… আজকে আইসেন একটু আমার বাসায়… আপনার দাওয়াত।’



দাওয়াত পাওয়া একজন সাংবাদিকের দেওয়া তথ্যে আরও জানা গেলো, এতে ফোন ট্র্যাকিং হলেও ধরার উপায় নেই। যে কেহ মনে করবে এটি খাওয়ানোর দাওয়াত। আর যদি আদালত পর্যন্তও গড়ায় এই বক্তব্য থেকে কোনো সহিংসতায় সম্পৃক্ততা প্রমাণ করা যাবে না। 



শিবির ঢাকা মহানগরীকে চার ভাগে ভাগ করে চারটি ভিন্ন মিডিয়া ইউনিট করে এসব অপকর্ম করছে। বিকল্প ব্যবস্থাও নিয়ে রেখেছে তারা। সাংবাদিক না এলে নিজেদের ইউনিট কাজ করছে। ছবি তুলছে, নিচ্ছে ভিডিও ফুটেজ। পরে তা পাঠিয়ে দিচ্ছে সংশ্লিষ্ট সাংবাদিকের কাছে। দ্রুতই তা প্রচার হতে শুরু করছে টেলিভিশন চ্যানেলগুলো। 



ক্যামেরাম্যান একজন মিস করলে ক্ষতি নেই অন্যজনের কাছ থেকে তা দ্রুতই পাওয়া যাচ্ছে। ফলে একযোগে প্রচারিত হচ্ছে অনেক চ্যানেলে। ছবি প্রকাশিত হচ্ছে অনেক অনলাইনে। পরের দিনের দৈনিকেও প্রকাশিত হচ্ছে একই ছবি। 



সংবাদ মাধ্যম এভাবে আর কতদিন ব্যবহৃত হবে? এই প্রশ্নের জবাবে গেটকিপার সাংবাদিকরা বাংলানিউজকে বলেন, এই অনৈতিক সাংবাদিকতার চর্চা এখনই থামাতে হবে। তারা বলেন, এরই মধ্যে তারা নিজ নিজ বার্তাকক্ষে বলে দিয়েছেন এ ধরনের কোনো ডাকে আর সাড়া দেওয়া যাবে না। 



তারা দাবি করেছেন, এখন আর প্রি অ্যারেঞ্জড কর্মসূচিগুলো কাভার করছেন না। যারা এ ধরনের ডাকে সাড়া দেবে তাদের স্রেফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে এ সংক্রান্ত কোনো দুর্ঘটনা বা পুলিশি জটিলতায় পড়লেও তারা কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা পাবে না। 



ইশতিয়াক রেজা বলেন, আগের চেয়ে পরিস্থিতি কিছুটা পাল্টেছে। তবে আমাদের নিশ্চিত করতে হবে এমন একটি ডাকেও আর সাড়া দেবে না মিডিয়া। 



এক্ষেত্রে সবগুলো মিডিয়া একইভাবে সাড়া দেবে তেমনটা তিনি মনে করেন না। ইশতিয়াক রেজা বলেন, কোনো কোনো মিডিয়া রাজনৈতিক ভাবাদর্শেই এই দলগুলোর পক্ষের ফলে তারা এতে সাড়া দেবেই। 



তুষার আবদুল্লাহ বলেছেন, সবাই সাড়া না দিলেও অন্তত চারটি টেলিভিশনও যদি এধরনের খবর বর্জন শুরু করে তাহলেই বিষয়টি কমে আসবে। 



একটি সূত্র বলেছে কিছু কিছু টেলিভিশন চ্যানেল নিজেরা এই ফুটেজগুলো প্রচার করছে এবং অন্য চ্যানেলকে সরবরাহ করছে। এছাড়া, সংশ্লিষ্ট সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে এ কাজে অর্থ দেওয়া-নেওয়ারও একটি অভিযোগ রয়েছে। 



সূত্র জানিয়েছে, আড়াই থেকে তিন হাজার টাকায় সাংবাদিকদের কিনে ফেলছে জামায়াত-শিবির। 



গেটকিপার সাংবাদিকরা সকলেই এ বিষয়ে তাদের অজ্ঞতার কথা বলেছেন, তবে সাংবাদিকরা যে কাজটি করতেই পারেন না এমনটাও মনে করেন না তারা। 



সমাধানের পথটি স্রেফ সাংবাদিকদের বিরত থাকার উপদেশেই শেষ করে দেওয়া ঠিক হবে না। সকলেই মনে করেন এজন্য প্রয়োজন সম্পাদকীয় নীতিমালা প্রণয়ন। 



অধিকাংশ চ্যানেল ও অন্যান্য সংবাদমাধ্যম প্রতিষ্ঠান হিসেবেই গড়ে ওঠেনি, ফলে সম্পাদকীয় নীতিমালাও সেখানে নেই, বলেন সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা। 



রাহুল রাহা বলেছেন, সোর্স সাংবাদিকের জন্য প্রাণ। অনেক গুরুত্বপূর্ণ রিপোর্টের উৎস, এই সোর্সকে গুরুত্ব দিতে হবে কিন্তু এই সোর্সের হাতে যেনো আমরা ব্যবহৃত হয়ে না যাই তা নিশ্চিত করতে হবে।       

     

বাংলানিউজের সঙ্গে আলাপচারিতায় পুরো বিষয়টির একটি গভীর ব্যাখ্যা দিয়েছেন চ্যানেল আইয়ের বার্তা সম্পাদক জাহিদ নেওয়াজ খান। তিনি বলেছেন: 



বিষয়টির কয়েকটি পারসপেক্টিভ থাকতে পারে। প্রথমে যেটা আমি বিশ্বাস করতে চাই সেটা হলো ইনোসেন্ট কাভারেজ। কোথাও একটা ঘটনা ঘটানো হবে, সেটার খবর পেয়ে একজন রিপোর্টার বা ক্যামেরাম্যান এক্সক্লুসিভ ছবির সন্ধানে ছুটলেন। ওই লাইভ ছবি যখন অন্য চ্যানেল বা পত্রিকা পেলো না তখন তার নিউজ ম্যানেজাররা নিজেদের রিপোর্টার বা ক্যামেরাম্যানের ওপর চড়াও হওয়ার কারণে পরদিন থেকে ওই রিপোর্টার বা ক্যামেরাম্যানও এরকম ছবির খোঁজে নামলেন এবং একটা ফোনকল বা টেক্সট মেসেজে তিনিও পেয়ে গেলেন বোমা হামলা বা বাসে আগুন দেওয়ার মতো লাইভ অ্যান্ড এক্সক্লুসিভ ছবি। এর  বাইরে, আমাদের দেশে যা হয়, গণমাধ্যম এবং গণমাধ্যম কর্মীরা অনেকেরই দলীয় আনুগত্য থাকার কারণে বিভিন্ন পর্যায় থেকেও এরকম ঘটনা কাভার করা হচ্ছে।



এভাবে সংবাদ মাধ্যমকে খবর দিয়ে নাশকতার ঘটনা কাভার করানোকে আমি তুলনা করবো ক্রিকেটে ম্যাচ ফিক্সিং-এর সঙ্গে। এখানেও ভিন্নভাবে ফিক্স করা হচ্ছে নাশকতাকে, যাকে আমরা বলতে পারি ‘অ্যানার্কি ফিক্সিং’। ম্যাচ ফিক্সিং এর তথ্য-প্রমাণ পাওয়ার পর মিডিয়ার যে রোল হওয়া উচিত, ‘অ্যানার্কি ফিক্সিং’- এও তাই। ওই নাশকতা কাভারের চেয়ে কিভাবে মিডিযাকে খবর দিয়ে নাশকতা কাভার করানো হচ্ছে সেটা দর্শক-পাঠকদের সামনে তুলে ধরাটা গুরুত্বপূর্ণ হওয়া উচিত কি না সেটা ভাবতে হবে। 



আমি যদি আজ আপনাকে গোপনে খবর দেই যে আগামীকাল অতোটার সময় আমি আত্মহত্যা করবো কিংবা অমুক জায়গায় এভাবে একটা হত্যাকা- ঘটাবো তাহলে আপনি কী করবেন? আপনি যদি এমন 



শূন্য এবং যান্ত্রিক অবস্থানে পৌঁছতে পারেন যে আপনার চারপাশে যা ঘটে তাতে আপনি বিন্দুমাত্র প্রভাবিত হন না কিংবা আপনার মিডিয়া শুধু মহাশূন্য থেকে তথ্য জানানোর দায়িত্ব নিয়েছে, তাহলে আপনি হয়তো ক্যামেরা ফিট করে আমার আত্মহত্যা কিংবা হত্যার ছবি লাইভ সম্প্রচারের ব্যবস্থা করবেন। আর যে অবস্থান থেকে আপনি সেটা করতে পারেন না সেই একই নৈতিক অবস্থান থেকে প্রি- অ্যারেঞ্জড নাশকতা আপনি কাভার করতে পারেন কি না সেটাও আপনাকে বিবেচনায় নিতে হবে, নো ম্যাটার সেটা ক্ষমতায় কে, আর বিরোধী দলে কে?



আপনি যখন আগে থেকেই জানেন যে অতোটার সময় অমুক জায়গায় লেগুনায় আগুন দেওয়া হবে আর আপনি সেই আগুনের ছবি ধারণ করে প্রচার করছেন, তখন কোনো মৃত্যুর দায়ভার আপনার উপরও পড়ে।



এই যে খবর দিয়ে নাশকতা ঘটানো হচ্ছে, এটা কিন্তু মেইনস্ট্রিম কোনো দল শুরু করেনি। এটা শুরু করেছে জামায়াত। তারা তাদের রাষ্ট্রবিরোধী আদর্শিক অবস্থান এবং অস্তিত্বের প্রশ্নে নাশকতার চরম পথ বেছে নিয়েছে, যেটাকে আমি বলি আধাঘোষিত যুদ্ধ। রাষ্ট্র এবং সরকার এক নয়, কিন্তু আপনি যে রাষ্ট্রব্যবস্থায় বিশ্বাসী, আপনার গণমাধ্যম যে রাষ্ট্রব্যবস্থায় আস্থাবান; সেখানে আপনাকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে আধাঘোষিত যুদ্ধে আপনার অবস্থান কী হবে।



তবে এসব কথার মানে এই না যে মত প্রকাশের স্বাধীনতার প্রশ্নে আপনি বিন্দুমাত্র আপোষ করবেন। 



প্রশ্নটা হচ্ছে যে প্রি-অ্যারেঞ্জড কিংবা অ্যানার্কি ফিক্সিং-এর ক্ষেত্রে যেখানে আপনি এর পার্ট হবেন  নাকি হবেন না সেই সিদ্ধান্ত আপনার বিবেক এবং কাণ্ডজ্ঞান দিয়েই নিতে হবে।



জাহিদ নেওয়াজ খানসহ অন্য গেটকিপারদের একটাই কথা, এমন ‘কলিং’ বা ‘দাওয়াত’-এ আর সাড়া দেবে না মিডিয়া। 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
November 2013
M T W T F S S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া