২৩শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৮ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

চট্টগ্রামের নগর পিতা আ জ ম নাছির

full_388514006_1430255504ডেস্ক রিপোর্ট: চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের পঞ্চম মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দীন। বেসরকারি ফলাফলে প্রায় ২ লাখ ভোটের ব্যাবধানে সাবেক মেয়র বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এম মনজুর আলমকে হারিয়ে হাতি প্রতীকে তিনি মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে স্থাপিত অস্থায়ী ১৪টি কেন্দ্র থেকে চূড়ান্তভাবে ঘোষিত ফলাফলে মোট ৭১৯টি কেন্দ্রের মধ্যে ৭১৮টিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আ জ ম নাছির উদ্দিন পেয়েছেন ৪,৭৪,৯০১ ভোট এবং তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত মনজুর আলম পেয়েছেন ৩,০৪,৫১০ ভোট।

তবে আ জ ম নাছির নির্বাচিত হওয়ার আগে থেকেই নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্ড ও পাড়া থেকে সমর্থকরা তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে তার আন্দরকিল্লা বাসার দিকে আনন্দ মিছিল নিয়ে যায়। সেখানেই অবস্থান করছেন চট্টগ্রামের নতুন মেয়র।

জীবন দিয়ে হলেও নগরবাসীকে দেয়া নির্বাচনী ইশতেহার পূরণ করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন আ জ ম নাছির উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের আগে নির্বাচনী ইশতেহারে যা বলেছি তা জীবন দিয়ে হলেও রক্ষা করবো। দলমত নির্বিশেষে নগরবাসীর উন্নয়নে কাজ করে যাবো। প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে জনগণের মতামতের ভিত্তিতে সব সমস্যা সমাধান করে স্বপ্নের মেগাসিটি তৈরি করবো ইনশাল্লাহ।’

মনজুর আলমের নির্বাচন বয়কটের ব্যাপারে নাছির বলেন, ‘বিএনপির প্রার্থী মনজুর পরাজয় বুঝতে পেরে নির্বাচন বর্জন করেছেন ও জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন।’

এর আগে মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়েছে ভোট গ্রহণ চলে বিরতিহীনভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। এখন সিটি করপোরেশনের ৭১৯টি কেন্দ্রে চলছে ফলাফল ঘোষণা।

পঞ্চম চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে এবার মেয়র পদে লড়েন ১২ প্রার্থী। এদের মধ্যে কারচুপির অভিযোগ এনে নির্বাচন বয়কট করেন বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মনজুর আলম, ইসলামিক ফ্রন্ট সমর্থিত প্রার্থী এম এ মতিন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ওয়ায়েজ হোসেন ভূইয়া।

এরমধ্যে সরকার দলীয় প্রার্থীর সমর্থকদের বিরুদ্ধে সকাল থেকে বারবার কেন্দ্র দখল ও ভোট চুরির অভিযোগ এনে প্রতিকার না পেয়ে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চূড়ান্তভাবে নির্বাচন বর্জন করার ঘোষণা দেন সাবেক মেয়র মনজুর আলম। একই সঙ্গে রাজনীতি থেকেও অবসরে যাওয়ার ঘোষণা দেন বিএনপি চেয়ারপারসনের এই উপদেষ্টা।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় নগরীর দেওয়ানহাটে চট্টগ্রাম উন্নয়ন আন্দোলনের প্রধান কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে মনজুর এ ঘোষণা দেন।

দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলরের দায়িত্ব পালনকারী মনজুর ২০১০ সালের নির্বাচনে বিএনপির সমর্থন নিয়ে মহিউদ্দিন চৌধুরীকে হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হন। এরপর থেকে তিনি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে মনজুর আলম বলেন, ‘চট্টগ্রামের ৮০ শতাংশ কেন্দ্র আওয়ামী লীগ ক্যাডাররা দখল করে নিয়েছে। এখানে নির্বাচনের কোনো পরিবেশ নেই। ভোট কেন্দ্রে আমাদের কোনো এজেন্টকে ঢুকতে দেয়া হয়নি। আমাদের কর্মী সমর্থকদের ওপর হামলা করা হয়েছে। তাই বাধ্য হয়ে এই নির্বাচন বর্জন করছি।’

আওয়ামী লীগ পরিবার থেকে উঠে আসা শিল্পপতি মনজুর হঠাৎ করেই রাজনীতি থেকে অবসর নেয়ার ঘোষণা দিয়ে বলেন, ‘আমি আর রাজনীতি করবো না। তবে সমাজ সেবা চালিয়ে যাবো। যারা এতোদিন আমার পাশে ছিলেন তাদের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা।’

 
 
 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া