৩০শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং | ১৭ই বৈশাখ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

মেলবোর্নে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীঃ বাংলাদেশ কমিউনিটির সাথে গোলটেবিল আলোচনায় সন্ত্রাসবাদের নিন্দা

press releaseনিজস্ব সংবাদাতা, মেলবোর্ন, অস্ট্রেলিয়াঃ  গত ২৩ শে ফেব্রুয়ারী ২০১৫ বাংলাদেশ-অষ্ট্রেলিয়া কমিউনিটির একদল থিংকট্যাংক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর আছাদুজ্জামান খান কামাল এমপি’র সাথে এক আলোচনা সভায় মিলিত হয়ে বাংলাদেশে সম্প্রতি কিছু রাজনৈতিক দলের ছত্রছায়ায় সন্ত্রাসি সাধারন জনগনের উপর আক্রমনকে তীব্র নিন্দা ও দুষ্কৃতিকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান এবং গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকারের চলমান প্রচেষ্টাকে স্বাগত জানান। বাংলাদেশ-অষ্ট্রেলিয়া কমিউনিটি ভ্রমনরত মাননীয় মন্ত্রীর সন্মানে রাত ৮টায় এক সংবর্ধনা ও গোলটেবল আলোচনা সভার আয়োজন করেন।মেল্বোর্ণে বাসরত বাংলাদেশী অভিবাসীগন বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, গেবষক, মুক্তিযোদ্বা, কমিউনিটি্র সিনিয়র নেতৃবৃন্দ ও ব্যবসায়ীবৃন্দ গোলটেবল আলোচনায় অংশগ্রহন করেন যেখানে মূল আলোচনার বিষয় ছিল বাংলাদেশের সাম্প্রতিক রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা অস্থিরতা।

ড. মুহাম্মদ আলম সূচনা বক্তব্যের মাধ্যমে মাননীয় মন্ত্রীকে মেলবোর্নে  স্বাগত জানান এবং কমিউনিটি্র সদস্যগনের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন।তিনি বাংলাদেশ সরকারের ভিশন ২০২১ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা যার উদ্দেশ্য বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করা তার প্রতি বাংলাদেশী অভিবাসী কমিউনিটির প্রতিশ্রুতির পুনর্ব্যক্ত করেন।সভায় অংশগ্রহনকারীগণ ১৯৫২, ১৯৭১, ১৯৭৫-এর শহীদগণ ও বাংলাদেশে সম্প্রতি সন্ত্রাসি আক্রমনে নিহতদের সন্মানে এক মিনিট নিরবতা পালন করেন।

প্রফেসর শামস রহমান, প্রফেসর কামরুল আলম, প্রফেসর ফরিদ আহমেদ, ইঞ্জিনীয়ার খন্দকার আব্দুস সালেক, ড. নজরুল ইসলাম, ড. ফিরোজ আহমেদ, জ্বনাব মফিজুল ইসলাম, ঈফতি রশিদ ও সানী সঞ্জয় গোলটেবল আলোচনায় বক্তব্য রাখেন। বক্তাগন গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন যে বাংলাদেশের কিছু রাজনৈতিক দল, ধর্মীয় উগ্রপন্থি ও তাদের দোসররা সাধারণ জনগণকে লক্ষ্য করে সন্ত্রাসী আক্রমন চালিয়ে যাচ্ছে।

বক্তাগণ সন্ত্রাসী ও তাদের দোসরদের প্রতি শূন্য সহনশীলতা দেখানোর উপর জোর দিয়ে বলেন যে কোন অবস্থাতেই সন্ত্রাসবাদকে মেনে নেয়া যায় না।তাঁরা বাংলাদেশে বর্তমান সন্ত্রাসী আক্রমনের ধরন দেখে বলেন যে এটা একটা বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ যেখানে সহিংস উগ্রবাদ এবং মৌলবাদ দমনের জন্য স্থানীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সহযোগীতা দরকার।

বক্তাগন তাঁদের বক্তব্যে তুলে ধরেন, যে সমস্ত রাজনৈতিক দল এই সন্ত্রাসী আক্রমণ চালাচ্ছে তাদের রাজনৈতিক ও নৈতিক মূল্যবোধের ঘাটতি রয়েছে।তাঁরা যে সমস্ত ব্যক্তি  ও দল সাধারণ মানুষকে সন্ত্রাসী আক্রমনের লক্ষ্য করছে এবং দেশের শান্তি, স্থিতিশীলতা ও উন্নয়নকে ব্যাহত করছে তাদের সাথে কোন প্রকার আলোচনা বা সংলাপের বিপক্ষে মন দেন।বক্তাগণ সরকারের সাথে সংহতি প্রকাশ করেন এবং গনতন্ত্র, উন্নয়ন ও নিরাপত্তা বিষয়ে কিছু নীতি প্রণয়নের ব্যপারে পরামর্শ দেন যা বাংলাদেশকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

মাননীয় মন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে জোর দিয়ে বলেন যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নতির লক্ষ্যে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছে। তিনি সরকারের সফলতা তুলে ধরে বলেন যে ২০০৯ থেকে এখন পর্যন্ত আওয়ামীলিগ সরকারের আমলে উন্নয়ন ও আয়ের বিভিন্ন সুচকে প্রভূত উন্নয়ন সাধীত হয়েছে। মাননীয় প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন যে বর্তমান গনতান্ত্রিক সরকার দেশের নিরাপত্তা রক্ষা ও আইনের শাষণ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে জাতীকে একত্রিত করে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছে।এ ব্যাপারে মন্ত্রী সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন যে বিভিন্ন সন্ত্রাসী দল যারা পেট্টোল বোমা আক্রমণ ও অগ্নি সংযোগের মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে হত্যা করছে দেশের জনগন তাদেরকে ধরতে নিরাপত্তা বাহিনীকে অবিরাম সহযোগীতা করে যাচ্ছে। অধিকন্তু, মাননীয় মন্ত্রী দেশের নিরাপত্তা রক্ষায় আইন শৃংখলা বাহিনীর পরিধি বৃদ্বিতে সরকারের অবিরাম প্রচেষ্টা কথা তুলে ধরেন।তিনি সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে দেশে এবং বিদেশে বক্তাগনের চলমান সমর্থন কামনা করেন যাতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের চলমান উন্নয়ন অব্যাহত থাকে এবং দেশে-বিদেশে স্বাধীনতা বিরোধী কোন চক্র দেশের উন্নয়নে কোন বাধা সৃষ্টি করতে না পারে। তিনি উপস্থিত সবাইকে আশ্বস্থ করেন যে তিনি বাংলাদেশ সরকারকে বিবেচনার জন্য তাঁদের বক্তব্য তুলে ধরবেন।

প্রফেসর ফরিদ আহমেদ সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন এবং সবাই মাননীয় মন্ত্রীর সাথে এক নৈশ ভোজে যোগ দেন।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
এপ্রিল ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মার্চ    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া