২৫শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং | ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

সিলেটে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার উদ্বোধন

news_img (2)ডেস্ক রিপোর্টঃ ভাষা আন্দোলনের ৬২ বছর পর পতাকা উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে সিলেটের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার উদ্বোধন করা হয়েছে। সিলেটের নবনির্মিত বহুপ্রতীক্ষিত দেশের অন্যতম দৃষ্টিনন্দন শহীদ মিনারের যাত্রা শুরু হয়েছে। দীর্ঘ ১৫ মাস একটানা কাজের পর অবসান হচ্ছে প্রতীক্ষার। আর এই উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে নতুন স্বপ্নে বিভোর হয়ে পথচলা শুরু করবে সিলেটের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন, নতুন চেতনায় উজ্জীবিত হবে গোটা অঞ্চলের সাংস্কৃতিক পটভূমি। এটি নির্মাণের মধ্য দিয়ে সময়ের প্রবাহে সিলেটের ঐতিহ্যের সাথে আরেকটি গৌরব যুক্ত হবে বলে মনে করছেন সিলেটবাসী।

তিন কোটি টাকা ব্যয়ে আধুনিক স্থাপত্যে নির্মিত এই শহীদ মিনার উদ্বোধনের আগেই মানুষের নজর কাড়ছে। পর্যটকদের বিমোহিত করছে শহীদ মিনারের ভেতর- বাইরের রুপ-লাবণ্য। শহীদ মিনারের জৌলুস অন্য এক আবেশে কাছে টানছে মানুষকে। কাছে টানছে পর্যটকদেরও। স্থাপত্য কলার অনন্য নিদর্শন শহীদ মিনারটিতে স্বাধীনতার প্রতীক হিসেবে সিলেট অঞ্চলের বিভিন্ন ঐতিহ্য, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ব্যবহার করা হয়েছে। ‘উন্নত মম শির’র মতো বিশাল স্তম্ভের মধ্যে রাখা হয়েছে আমাদের মহান স্বাধীনতার রক্তিম সূর্য।

বিশাল আকৃতির সেই রক্তলাল সূর্য যেন প্রতিদিন নতুন চেতনায় জেগে উঠার দীপ্তি জ্বেলে রেখেছে । মূল স্তম্ভের দুইপাশে এমনভাবে ঘাস স্থাপন করা হয়েছে কখনো দূর থেকে দেখলে মনে হবে সবুজ পাহাড় থেকে সূর্য জাগছে। চারপাশে যেন লেগে আছে সারাক্ষণ সবুজের ঢেউ। সিলেটের এরকম নানা ঐতিহ্য, সংস্কৃতি এবং বাঙালীর দীর্ঘ সংগ্রামী চেতনাকে মাথায় রেখে নির্মিত হয়েছে ৪৫ ফুট উঁচু ও ৩০ ফুট প্রস্থ আধুনিক স্থাপত্যে নির্মিত এই শহীদ মিনার।

বুধবার উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে শহীদ মিনারটি সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আনষ্ঠানিকভাবে শহীদ মিনারের উদ্বোধন করেন। অর্থমন্ত্রীসহ ৫ জন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী, সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এবং অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি।


১৯৮৮ সালে এ অঞ্চলের ভাষা আন্দোলন ও মহান মুক্তিযুদ্ধের সুতিকাগার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার স্থাপন করা হয়। সিলেটের কয়েকজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও কিছু দেশপ্রেমিক মানুষ তখন সেই শহীদ মিনারের বীজ বপন করেন। তারপর সেই শহীদ মিনারই কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের মর্যাদা লাভ করে। এই শহীদ মিনারকে কেন্দ্র করেই সিলেটের সকল প্রগতিশীল আন্দোলন, এ অঞ্চলের তাবৎ সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড বেগবান হয়। উল্লেখ্য ২০১৩ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি সিলেট নগরীতে হেফাজতের একটি মিছিল জিন্দাবাজার থেকে আম্বরখানার দিকে যাচ্ছিল।এসময় মিছিল থেকে চৌহাট্টাস্থ সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ব্যাপক ভাংচুর করা হয়। তারপর শহীদ মিনারটি দীর্ঘদিন ভাঙ্গা অবস্থায় ছিলো। পরে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সিলেট এসে শহীদ মিনার পরিদর্শন করেন। এ সময় সিলেটের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। পরিদর্শন শেষে তিনি শহীদ মিনারটি যত তাড়াতাড়ি সম্ভব পুন:নির্মাণের জন্য সিলেট সিটি কর্পোরেশনকে নির্দেশ দেন।

পরে বিষয়টি নিয়ে অর্থমন্ত্রীর সাথে বসেন সিলেটের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সবাই। তারা বর্ধিত পরিসরে নতুন আঙিকে শহীদ মিনারটি পুন:প্রতিষ্ঠার দাবী জানান। অর্থমন্ত্রী তাদের প্রস্তাবে সম্মতি দেন। পরে সেই প্রস্তাব অনুযায়ী সিলেট সিটি কর্পোশেন কাজ শুরু করে। সিটি কর্পোরশন সূত্র আরো জানায়, শহীদ মিনারটি দৃষ্টিনন্দন করে তুলতে বিভিন্ন পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ সম্পন্ন হয়। যেমন মূল স্তম্ভের পাশাপাশি শহীদ মিনারের একপাশে আছে মুক্ত সাংস্কৃতিক মঞ্চ, ব্যাকস্টেজ, গ্রীনরুম, অনুশীলন পরিসর, ওযাশরুম। আছে বিশ শতক জায়গা নিয়ে জনসমাগমের জন্য উন্মুক্ত চত্বর। সেই সাথে রাখা হয়েছে ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, সিলেটের ঐতিহ্য ও সংগ্রহশালা এবং ৩ হাজার ৮০০ বর্গফুটের মিনি লাইব্রেরি। আছে প্রদর্শনীর জন্য উন্মুক্ত পরিসর।

শহীদ মিনারটির নকশা এঁকেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য বিভাগের সহকারি অধ্যাপক শুভজিৎ চৌধুরী। তার সহযোগী স্থপতি হিসেবে সাথে ছিলেন কৌশিক সাহা, মো. সিপাউল বর চৌধুরী, ধীমান চন্দ্র বিশ্বাস ও বিষ্ণু কুমার দাস। প্রকৌশলী হিসেবে ছিলেন হুমায়ুন খান ও দেবাশীষ ভট্টাচার্য।


 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
নভেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া