২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৫ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

জামায়াত ইসলাম রাজাকারের তালিকা করছে !

pic-20_141019ডেস্ক রিপোর্ট : যে দলটির শীর্ষস্থানীয় নেতাদের বিরুদ্ধে একাত্তরের মানবতাবিরোধী কর্মকাণ্ডের দায়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে বিচার কার্যক্রম চলছে, শাস্তি হচ্ছে, ফাঁসিও কার্যকর হচ্ছে, সেই জামায়াতে ইসলামীই এখন রাজাকারের তালিকা তৈরি করতে মাঠে নেমেছে। নিজেদের দল, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন দল থেকে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারীদের তালিকা তৈরি করছে জামায়াত।
রাজাকারদের তালিকা করতে জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান স্বাক্ষরিত একটি চিঠি প্রতিটি জেলা জামায়াতের আমিরের কাছে পাঠানো হয়েছে। শুধু তাই নয়, জামায়াত-শিবির, আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগ বা বিএনপি-ছাত্রদলের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অস্ত্র মামলা, হত্যা মামলা অথবা সন্ত্রাস দমন আইনের মামলাসহ অন্যান্য আলোচিত মামলার তথ্যও সরবরাহ করতে বলা হয়েছে তাঁদের।
গত আগস্ট মাসের শেষ দিকে পাঠানো ওই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে ¯’ানীয় জামায়াতের নেতা-র্কর্মীরা ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী শান্তি কমিটির সব পর্যায়ের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের নামের তালিকা তৈরি করছে। দুই মাস ধরে এ কাজ করছেন দলটির নেতারা। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে জামায়াতে ইসলামীর পক্ষের আইনজীবীদের পরামর্শে দলটি এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করছে।
জামায়াতের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। চিঠিতে ডা. শফিকুর রহমান দায়িত্বশীলদের (জেলা ও মহানগর আমির) উদ্দেশে বলেন, ‘বর্তমান জালিমশাহী সরকার দেশ থেকে ইসলাম ও ইসলামী আন্দোলনকে নিশ্চিহ্ন করার ঘৃণ্য এক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। তারই অংশ হিসেবে জামায়াতে ইসলামীকে নিষিদ্ধ করার উদ্দেশ্যে ইতিমধ্যেই তথাকথিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা একটি তদন্ত প্রতিবেদন প্রসিকিউশনের কাছে জমা দিয়েছে।’
ধর্মভিত্তিক এ দলটির সংশ্লিস্ট সূত্র জানিয়েছে, হাইকোর্ট জামায়াতের নিবন্ধন অবৈধ করে রায় দেওয়ার পর সুপ্রিম কোর্টে আপিল করে দলটি। বিষয়টি বিচারাধীন রয়েছে। আগামী দিনে যদি দলটিকে নিষিদ্ধ করার বিষয়টি সামনে আসে, তখন রাজাকারদের তালিকা প্রকাশ করবে জামায়াত। ওই সূত্রের দাবি, রাজাকারের এই তালিকায় দেখা যাবে আওয়ামী লীগ-বিএনপির লোকজনই বেশি।
জামায়াতে ইসলামীর একটি সূত্র জানায়, কেন্দ্রের নির্দেশনা অনুযায়ী সারা দেশের শান্তি কমিটি ও রাজাকারদের তালিকা সংশ্লিষ্ট জেলার নেতারা তৈরি করছেন। এরই মধ্যে অনেক জেলার পক্ষ থেকে সেই তালিকা কেন্দ্রীয় জামায়াতের দপ্তরেও পাঠানো হয়েছে।
ওই চিঠিতে আরো বলা হয়, ‘তাদের (তদন্ত সংস্থার) ওই কার্যক্রমের পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে ডিফেন্স টিমের (জামায়াতের আইনজীবী) নির্দেশনার আলোকে কেন্দ্রীয় গবেষণা বিভাগের পক্ষ থেকে ইতিপূর্বে আপনার জেলায় সফর সম্পন্ন হয়েছে। ওই সফরকালে তারা আপনাদের সঙ্গে ১৯৭১ সাল-সংক্রান্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহের ব্যাপারে আলোচনা করে এসেছে। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় নিয়ে ওই কাজগুলো অনতিবিলম্বে সম্পন্ন করতে হবে।’
তালিকা করতে গিয়ে কী কী বিষয়ে লক্ষ রাখতে হবে ওই চিঠিতে তার ছয়টি নির্দেশনা দেন ডা. শফিকুর রহমান। প্রথমেই ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধকালে নিজ নিজ জেলায় সংঘটিত ঘটনাগুলোর সংক্ষিপ্ত বর্ণনাসহ তালিকা প্রণয়নের কথা উল্লেখ করে সংশ্লিষ্ট জেলায় শান্তি কমিটি বা রাজাকার বাহিনীর সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ অন্য সদস্যদের তালিকা তৈরি করতে বলা হয়। চিঠিতে আরো বলা হয়েছে, ‘পূর্বে প্রদত্ত নির্দিষ্ট ফরমেট অনুযায়ী নতুনভাবে তালিকা তৈরি করতে হবে। তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করতে হবে জেলা পরিষদ, মুক্তিযোদ্ধা পরিষদ অথবা কোনো ব্যক্তি প্রকাশিত জেলার ইতিহাস, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস-সংক্রান্ত বইগুলো থেকে।’
ওই চিঠি নিয়ে দ্য রিপোর্ট২৪ডটকমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের একাংশে বলা হয়, ‘১৯৭২ থেকে ১৯৭৪ সালের সংশ্লিষ্ট জেলার জিআর বই, দালাল আইনের জিআর বই, জামায়াত-শিবির, আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগ বা বিএনপি-ছাত্রদলের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত অস্ত্র মামলা, হত্যা মামলা অথবা সন্ত্রাস দমন আইনের মামলাসহ অন্যান্য আলোচিত মামলার তালিকা তৈরি করার নির্দেশনা দেওয়া হয়।’
চিঠির বিষয়ে জানতে চাইলে বগুড়া শহর জামায়াতের সেক্রেটারি মো. জুয়েল হোসেন বলেন, ‘আমরা আমাদের জেলায় প্রকৃত রাজাকারদের তালিকা তৈরি করে ফেলেছি। আমাদের তালিকা ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছেও প্রকাশ করা হয়েছে।’ জামায়াতের এ নেতা বলেন, ‘বিএনপির সঙ্গে আমাদের জোট হওয়ার কারণে আমরা এই তালিকা এখনো প্রকাশ করছি না। তবে জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারদের কাছে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া যাবে। কারণ তাঁরা তো দেখেছেন ওই সময় (মুক্তিযুদ্ধকালীন) কারা শান্তি কমিটিতে ছিলেন এবং রাজাকারদের নেতৃত্ব দিয়েছেন।’ তিনি বলেন, ‘যখন বিএনপির সঙ্গে আমাদের জোট থাকবে না তখন এ তালিকা প্রকাশ করা হবে।’ তিনি আরো বলেন, ‘আগে রাজাকার ছিলেন এমন অনেকে এখন আওয়ামী লীগের সঙ্গে রাজনীতি করছেন। সময় হলে সবই প্রকাশ করা হবে।’ 
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক নেতা বলেন, ‘বগুড়া জেলায় বিএনপির সাবেক সাতজন এমপির মধ্যে পাঁচজনের বাবাই মুক্তিযুদ্ধের সময় রাজাকার ও শান্তি বাহিনীর সদস্য ছিলেন।’
রাজশাহী মহানগর জামায়াতের সেক্রেটারি আবু মোহাম্মদ সেলিম বলেন, ‘ট্রাইব্যুনালের মামলা পরিচালনা করেন জামায়াতের এমন আইনজীবীর পরামর্শেই আমরা একটি চিঠি পেয়েছি। সেই চিঠিতে উল্লেখ আছে, স্বাধীনতার পর যেসব নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছিল, সেই মামলায় যাঁদের সাজা হয়েছিল সেই তালিকা তৈরি করা এবং এখন যাঁদের বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে তাঁদের তালিকা তৈরি করার কাজ চলছে। এর বেশি কিছু বলতে পারব না।’
ফরিদপুর জেলা জামায়াতের সেক্রেটারি বদর উদ্দিন চিঠি পাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধকালে ফরিদপুর অঞ্চলে কার কী ভূমিকা ছিল, তা বিভিন্ন বইয়ে বর্ণনা রয়েছে। আমরা সে বইগুলো সংগ্রহ করছি। এসব বইয়ে রাজাকার ও শান্তি কমিটির সদস্যদের নাম রয়েছে।’
জানতে চাইলে যশোর জেলা জামায়াতের নেতা আবদুস সামাদ মাস্টার বলেন, কেশবপুর উপজেলায় তাঁরা মুক্তিযুদ্ধকালীন রাজাকারদের একটি তালিকা তৈরি করেছেন। তবে সেটা আরো আগে। সেই তালিকায় যাঁদের নাম রয়েছে তাঁরা এখন বিএনপি ও আওয়ামী লীগের জেলা পর্যায়ের নেতা।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা জামায়াতের আমির নুরুল ইসলাম বলেন, ‘এই তালিকা তৈরির বিষয়ে এখনই কিছু বলা যাবে না। কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা জামায়াতের আমির আবদুস সাত্তার বলেন, ‘এরকম একটি চিঠি আমরা পেয়েছি, সেই অনুযায়ী কাজ চলছে। জামায়াতের কেন্দ্র থেকে রাজাকারের তালিকা তৈরির চিঠি পাওয়ার কথা একাধিক জেলা জামায়াত নেতাও স্বীকার করেন।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহাবুবুর রহমান বলেন, ‘জামায়াত তো নিজেই যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত, তারা আবার কিসের তালিকা তৈরি করবে? আগে তাদের নিজেদের সংশোধন হওয়া উচিত, পরে অন্যদের খোঁজ নেওয়া।’
জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব ও প্রেসিডিয়াম সদস্য এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, ‘জামায়াতের নেতারাই যুদ্ধকালে রাজাকারের ভূমিকায় ছিলেন। আমি মনে করি এ ধরনের তালিকা তৈরির উদ্যোগ একটি রাজনৈতিক স্ট্যান্ডবাজি।’
তবে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘বিষয়টি সম্পর্কে আমার জানা নেই, তাই এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে চাই না।’
জামায়াতের তালিকার ব্যাপারে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘জামায়াত মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেই ক্ষান্ত হয়নি, পাকিস্তানিদের হয়ে রাজাকারদের সহযোগিতা করেছে এবং খুন, হত্যাসহ নানা অপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিল। এমন একটি দল কিভাবে রাজাকারের তালিকা করে?’ তিনি ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বলেন, ‘জামায়াত যে ধরনের দল তারা ক্ষমতায় এলে দেশে জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করবে, রাজাকারদের আধিপত্য বিস্তার করবে। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারগুলোকে বিনাশ করবে। 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া