২১শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং | ৮ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে বাংলাদেশ আপসহীন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাডেস্ক রিপোর্ট : জাতিসংঘের ৬৯তম সাধারণ অধিবেশনে বাংলায় ভাষণ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রায় ১৫ মিনিটের ভাষণে তিনি বলেছেন, আইনের শাসন, শান্তির সংস্কৃতি, জঙ্গীবাদ নির্মূল, স্বাস্থ্য-শিক্ষার নিশ্চয়তা এবং প্রতিবন্ধীদের মানসিক বিকাশসহ মানব সম্পদ উন্নয়নই হচ্ছে বাংলাদেশ সরকারের মূল এজেন্ডা। স্থানীয় সময় সকাল ১১টা ২২ মিনিটে শেখ হাসিনা তার বক্তব্য শুরু করেন।
প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তৃতায় আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা, গণতন্ত্র ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা, নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের অগ্রণি ভূমিকা, অভিবাসী শ্রমিকের অধিকার আদায়, দারিদ্র্য দূরীকরণে বর্তমান সরকারের গৃহীত পদক্ষেপসমূহ, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় গৃহীত কার্যক্রমসমূহ, স্বল্পোন্নত দেশগুলোর স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়, সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার অগ্রগতি এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় বাংলাদেশের অবস্থান ও অবদানের কথা তুলে ধরেছেন।
‘২০১৫ উত্তর উন্নয়ন এজেন্ডা কার্যকরকরণ ও বাস্তবায়ন’ শীর্ষক এবারের ভাষণে তিনি আন্তর্জাতিক নিরাপত্তার প্রশ্নে বাংলাদেশের জিরো টলারেন্স ভূমিকার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। বিশ্বব্যাপী যুদ্ধ ও সংঘাত বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আসুন আমরা যুদ্ধ প্রত্যাখ্যান করে শান্তির জন্য কাজ করি।
আর যুদ্ধ বন্ধে জাতিসংঘ মুখ্য ভূমিকা পালন করতে পারে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ লক্ষ্য অর্জনে বাংলাদেশ সবার সঙ্গে কাজ করতে অঙ্গীকারাবদ্ধ।’ একইসঙ্গে তিনি এমডিজি বাস্তবায়নের অগ্রগতি ও সাফল্যের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে স্বাধীনতা বিরোধী চক্র ধর্মীয় অনুভুতিকে কাজে লাগিয়ে সন্ত্রাসবাদ কার্যক্রমের অপচেষ্টা চালাচ্ছে। একারণে বাংলাদেশ সরকার সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ নিয়ন্ত্রণে ‘অ্যান্টি টেরোরিজম এ্যক্ট ২০১৩ এবং অ্যান্টি মানিলন্ডারিং এ্যক্ট ২০১২’ সংসদে পাস করেছে। 
বিদেশি বিনিয়োগ সর্ম্পকে তিনি বলেছেন, ‘তার সরকার একটি ফ্রেমওয়ার্ক তৈরি করেছে। যার মাধ্যমে বিদেশি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করা হচ্ছে। শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ ও জাতিসংঘের রয়েছে অভিন্ন লক্ষ্য। বাংলাদেশ তার জনগণের ক্ষমতায়ন ও বিশ্বকে আগামী প্রজন্মের জন্য নিরাপদ করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।’
প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আগে ভিশন-২০২১ বাস্তবায়ন এবং জ্ঞানভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বাংলাদেশ একটি মধ্যম আয়ের অর্থনৈতিক দেশে পরিণত করতে তার সরকার ও জনগণের নিরলস কর্মপ্রচেষ্টার চিত্র তুলে ধরেন। এজন্য তিনি জাতিসংঘ ও সদস্য দেশগুলোর সমর্থন ও সহায়তা কামনা করেন।
ভাষণের শুরুতে তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং স্বাধীনতার জন্য ৩০ লাখ শহীদ ও সম্ভ্রম হারানো ২ লাখ নারীর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি।
১৯৭৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘে বাংলাদেশের সদস্য পদ প্রাপ্তিকে দেশের পররাষ্ট্র নীতির ক্ষেত্রে এক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা হিসেবে অভিহিত করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘ওই সময় আন্তর্জাতিক এই সর্বোচ্চ সংস্থায় বাংলাদেশের অন্তর্ভূক্তি সদ্য স্বাধীন দেশটির জনগণের কাছে অত্যুচ্চ বিজয় হিসেবে পরিগণিত হয়েছে।
১৯৭৪ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর প্রথম ভাষণের কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তখন থেকেই জাতির পিতার ওই ভাষণের আলোকে পররাষ্ট্র নীতির রূপরেখা নির্ধারিত হয়ে আসছে। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি তাঁর ভাষণে আন্তর্জাতিক সহযোগতিার মাধ্যমে জাতিসংঘ সনদ, শান্তি, সহিষ্ণুতা, গণতন্ত্র, মানবাধিকার, সামাজিক অগ্রগতি, ন্যায়বিচার এবং আইনের শাসন সমুন্নত রাখতে দ্ব্যর্থ অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন। এসব আদর্শ জাতিসংঘ ও এর বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে সম্পর্ক নির্ধারণে বাংলাদেশের পরবর্তী সকল নেতৃত্ব ও কূটনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রেরণা হয়ে আছে।
প্রধানমন্ত্রী ১৯৭২ সাল থেকে শান্তি, উন্নয়ন, গণতন্ত্র ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের জাতীয় আকাক্ষার সমর্থনে এদেশের জনগণের পাশে দৃঢ়ভাবে দাঁড়ানোর জন্য জাতিসংঘের প্রশংসা করেন। শেখ হাসিনা বিশ্ব সংস্থাটিতে বাংলাদেশের অবস্থান সুদৃঢ় করতে জাতিসংঘের পূর্ববর্তী মহাসচিবদের সমর্থনের জন্য তাদেরকে ধন্যবাদ দেওয়ার পাশাপাশি বান কি-মুনকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘বিগত ৪ দশক ধরে বিশ্ব শান্তি ও উন্নয়নে জাতিসংঘ উদ্যোগের অগ্রভাগে থেকেছে বাংলাদেশ।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ পরমাণু, সমুদ্রসীমা, মহাকাশ ও সাইবার নিরাপত্তাসহ জাতিসংঘের নিরস্ত্রীকরণ কর্মসূচিতে দৃঢ়ভাবে অগ্রণি অবস্থানে থাকবে এবং সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস চরমপন্থা এবং মানব, মাদক ও বণ্যপ্রাণীর পাচার রোধে বৈশ্বিক লড়াইয়ে সক্রিয়ভাবে ভূমিকা রাখবে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ অংশীদারিত্বমূলক উন্নয়নের জন্য শান্তির সংস্কৃতি ও জনগণের ক্ষমতায়নের পক্ষে প্রচারণা অব্যাহত রাখবে এবং মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ, যৌন নির্যাতন ও গণহত্যার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভূমিকা রাখবে।
শেখ হাসিনা বৈশ্বিক মানবাধিকার কর্মসূচিতে মূলনীতি নির্ধারণে গঠনমূলক অবদান রাখতে এবং জাতীয় মানবাধিকার ও সুশাসন জোরদার এবং দুর্নীতি দমনে জাতিসংঘের সঙ্গে কাজ করার দৃঢ়সংকল্প ব্যক্ত করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ নারী নির্যাতন ও বাল্য বিবাহ রোধে বিশেষভাবে নজর দানের মাধ্যমে কন্যা শিশু ও নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করে যাবে এবং অটিজমের মতো বিশেষ প্রয়োজন সম্পন্ন জনগোষ্ঠীসহ শিশু অধিকারে নিশ্চিত কর্মকাণ্ড আরও জোরদার করবে।
তিনি বলেন, ‘সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্র (এমডিজি) অর্জনে অসাধারণ সাফল্যের মাধ্যমে দৃপ্ত পদক্ষেপে ২০১৫-উত্তর যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা আমাদের এমডিজি অর্জন ত্বরান্বিত করব এবং ২০১৫-উত্তর উন্নয়ন কাঠামোর আওতায় কিছু পরিমাপযোগ্য ও অর্জনযোগ্য লক্ষ্য অর্জনে ঐকমত্য প্রতিষ্ঠায় কাজ করে যাব।
জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা প্রসঙ্গে সোচ্চার কণ্ঠে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটি আমাদের জাতীয় অগ্রাধিকার। বাংলাদেশ অভিবাসন, স্বল্পোন্নত দেশগুলো (এলডিসি)’র সামুদ্রিক সম্পদ ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের লভ্যাংশের টেকসই ব্যবহারের পক্ষে সোচ্চার হবে।
 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
এপ্রিল ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মার্চ    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া