১৭ই আগস্ট, ২০১৮ ইং | ২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

শেখ কামাল বললেন আপনিই অধিনায়ক

শেখ কামাল বললেন আপনিই অধিনায়কডেস্ক রিপোর্ট : দেশের হকির কিংবদন্তি তাকেই বলা হয়। আবদুস সাদেক। ক্রীড়াঙ্গনে যার পরিচয় হকির লোক বলেই। বর্তমানে তিনি হকি ফেডারেশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি। সত্তর দশকে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পাকিস্তান জাতীয় হকি দলের হয়ে বেশ কয়টি ম্যাচ খেলেন। 
হকিতে সাদেক কতটা উঁচুমানের খেলোয়াড় ছিলেন প্রমাণ মেলে ঢাকা সফরে এসে আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশনের সভাপতি নেগ্রের মুখে তার পারফরম্যান্সের প্রশংসা শুনে। বয়স হলেও জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত এই ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব হকির প্রয়োজনীয় কাজে এখনো অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন। অথচ ১৯৭২ সালে ফুটবল লিগে দেশের জনপ্রিয় দল ঢাকা আবাহনীর অভিষেক ঘটেছিল সাদেকের নেতৃত্বেই। 
নতুন দল হলেও শুরুতেই আবাহনী সেরা দল গড়তে সক্ষম হয়েছিল। যোগ দিয়েছিলেন গোলাম সারওয়ার টিপু, কাজী সালাউদ্দিন, অমলেশ সেন, আশরাফ, আলী ইমাম, দিপু ও গফুর (ঢাকা মাঠে যিনি স্কুটার নামে পরিচিত ছিলেন)। মাঠ কাঁপানো এতসব ফুটবলার থাকার পরও কীভাবে সাদেক আবাহনীর অধিনায়ক হলেন?
সাদেক বলেন, হকি খেলেই আমি পরিচিত লাভ করেছি- এটা সত্য। কিন্তু এই খেলার পাশাপাশি আমি ঢাকা লিগের নিয়মিত ফুটবলার ছিলাম। ঐতিহ্যবাহী আজাদ স্পোর্টিং ক্লাবে ডিফেন্ডার হিসেবে বেশ কয়েকটি মৌসুম খেলি। ১৯৬৬ ও ৬৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফুটবল দলের অধিনায়ক ছিলাম। তা ছাড়া পূর্ব পাকিস্তান বিশ্ববিদ্যালয়কে নেতৃত্ব দেওয়ার সৌভাগ্য আমার হয়েছিল। 
দেশ স্বাধীনের পর শেখ কামাল আবাহনী ক্রীড়া চক্র প্রতিষ্ঠা করেন। বলে রাখা ভালো ১৯৭০ সালে দ্বিতীয় বিভাগ লিগে ইকবাল স্পোর্টিং চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। কিন্তু দলটি দারুণ অর্থ সংকটে পড়ে। পরবর্তীতে এই ক্লাব কিনে নিয়ে নামকরণ করা হয় আবাহনী। 
শেখ কামালের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে সাদেক বলেন, তিনি ছিলেন খেলা পাগল মানুষ। মৌসুম শুরু হওয়ার আগে বললেন, যখন আমরা খেলবই, শুরুতে চমক দেখাতে চাই। সিদ্ধান্ত নিলেন ফুটবলে শক্তিশালী দল গড়ার। আমিও চলে এলাম আবাহনীতে। দলে ছিল তারকার ছড়াছড়ি। কার নেতৃত্বে আবাহনী যে মাঠে নামবে এ সিদ্ধান্ত নিতে শেখ কামাল হিমশিম খাচ্ছিলেন। কেননা অনেকে অধিনায়ক হতে চাচ্ছিলেন। এ নিয়ে খেলোয়াড়দের মধ্যে তর্ক-বিতর্কও শুরু হয়ে যায়। 
কামাল আমাকে ডেকে বললেন, সাদেক ভাই আপনাকেই অধিনায়ক হতে হবে। বললাম, আমি কেন দলে তো ভালো বা অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের অভাব নেই। তিনি বললেন, মানলাম আপনার কথা। কিন্তু এটাও আপনাকে চিন্তা করতে হবে, আমরা মোহামেডান, ওয়ান্ডারার্স, ইপিআইডিসি (বর্তমানে বিজেএমসি) আরও জনপ্রিয় দলের খেলোয়াড়দের এনে শক্তিশালী দল গড়েছি। স্বাভাবিকভাবে ওদের সমর্থকদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেবে। এটা তো মাঠে সামাল দিতে হবে। আমি দেখছি দলে আপনিই সবচেয়ে অভিজ্ঞ। তাই আমি আপনাকে অধিনায়ক করে দল নামাতে চাচ্ছি। তা ছাড়া আপনার ব্যাপারে কেউ আপত্তি তুলবে না। ব্যস, এভাবেই হয়ে গেলাম আবাহনী ফুটবল দলের প্রথম অধিনায়ক। 
১৯৭২ সালে আমার নেতৃত্বেই মাঠে নামে আবাহনী। উদ্বোধনী ম্যাচে প্রতিপক্ষ দল ছিল বিগত প্রথম বিভাগের চ্যাম্পিয়ন বিজেআইসি। গ্যালারি ভরা এ ম্যাচ গোলশূন্য ড্র হয়। মাঠে নেমে দেখলাম শেখ কামালের কথাই সত্যি। পুরো গ্যালারি আমাদের বিপক্ষে। 
ওয়ান্ডারার্সের বিপক্ষে খেলতে নেমে মাঠে দুঃখজনক ঘটনা ঘটে। ম্যাচে তখন আমরা ১ গোলে এগিয়ে। এরপর পেনাল্টি থেকে টিপু জালে বল পাঠালে স্কোর দাঁড়ায় ২-০-তে। এতেই পুরো মাঠে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। আমাদের খেলোয়াড়দের এতটা গুরুতরভাবে আহত করা হয়েছিল যে, অনেককে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছিল। এ ঘটনায় সেই মৌসুমে আর লিগ শেষ হতে পারেনি। হলে আমরা যে পজিশনে ছিলাম নিশ্চিত চ্যাম্পিয়ন হতাম। ’৭৪ সালে প্রথম লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়। : বা-নি

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া