২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

গুলশান মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অর্থ আত্মসাত

নিজস্ব প্রতিবেদক : গুলশান মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ এম মুস্তফা জামান এবং ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ পারস্পরিক যোগসাজশে কলেজটির টাকা আত্মসাত করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা। আবুল কালাম বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের (বিএনএফ) প্রধান সমন্বয়ক। এবারই তিনি প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।
প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা প্রতিষ্ঠানটিকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কাছে দাবি জানিয়েছেন।
গুলশান মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য আবদুল জব্বার মেহমান বলেন, ‘মুস্তফা জামান দীর্ঘ দিন ধরেই গুলশান মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজে অনিয়ম করে চলছেন। ঢাকা-১৭ আসনের (গুলশান-বারিধারা) সংসদ সদস্যরা এ কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি হন। এর আগে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সংসদ সদস্য হিসেবে এর পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ছিলেন। ওই সময়ে তার কাছে অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। এবার পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি আবুল কালাম আজাদের সহায়তায় অধ্যক্ষ মুস্তফা জামান কলেজের টাকা আত্মসাত করেছেন। 
এমনকি আবুল কালাম নিজেও বিভিন্ন অনিয়মের মাধ্যমে টাকা আত্মসাত করেছেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গুলশান মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মুস্তফা জামান মিয়ার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ উত্থাপিত হওয়ায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় দুবার তদন্ত করে। এর মধ্যে গত ছয় অক্টোবর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিরীক্ষা শাখা থেকে সহকারী সচিব নূরজাহান বেগম স্বাক্ষরিত (অধ্যক্ষকে পাঠানো) এক পত্রে দেখা যায়, ওই সময় অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মোট ২৫টি অভিযোগ উত্থাপিত হয়েছে। এর মধ্যে ভর্তি ও পরীক্ষা কমিটি, বাড়ি ভাড়া, সনদ ভাতা প্রদান ইত্যাদি ক্ষেত্রে অনিয়ম, মামলার খরচের নামে শিক্ষকদের কাছে চাঁদাবাজি, স্কুলের টাকায় ব্যক্তিগত গাড়ি কেনা, শিক্ষকদের সঙ্গে অশালীন ও অসদাচরণ, জিবিতে পছন্দের লোক বসাতে লবিং-গ্রুপিং, একাডেমিক ও শিফট ইনচার্জ নিয়োগে অনিয়ম, জিবির অনুমোদন ছাড়াই চুক্তিভিত্তিক শিক্ষককে চাকরিতে বহালসহ অন্য অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।
তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলেও অধ্যক্ষ বহাল থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরা। এদিকে সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদের অনিয়ম প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির সহকারী প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্য এস এম আশরাফ আলী বলেন, ‘প্রতিষ্ঠানটিতে অধ্যক্ষ ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মিলে দুর্নীতির দুর্গ গড়ে তুলেছে।
৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পর থেকে এই চার মাসে সংসদ সদস্য ও অধ্যক্ষ মিলে প্রতিষ্ঠানের সাধারণ তহবিল থেকে ৩১ লাখ টাকা আত্মসাত, প্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণকাজ থেকে ২০ লাখ টাকা কমিশন আদায়, আর্থিক সুবিধা নিয়ে পরিচালনা পর্ষদের অনুমোদন ছাড়াই ১১ জন নতুন শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছেন। স্কুলের তহবিল থেকে ৩৭টি চেকের মাধ্যমে প্রায় ৭৫ লাখ টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৪৪ লাখ টাকা শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা খাতে ব্যয় হিসেবে দেখানো হয়। বাকি ৩১ লাখ টাকার মধ্যে ১০ লাখ চিকিতসার কাজে ব্যয়ের জন্য ধার হিসেবে স্কুল সভাপতি আবুল কালামকে দেয়ার কথা জানা যায়।
অথচ শিক্ষা মন্ত্রণালয় গত ৮ জানুয়ারি এক আদেশে প্রতিষ্ঠানের তহবিল থেকে ব্যক্তিগত ঋণ দেয়া থেকে বিরত থাকতে অধ্যক্ষকে কঠোরভাবে নিষেধ করেছে। কিন্তু এরপরও তিনি একই কাজ করেছেন। আর অবশিষ্ট ২১ লাখ টাকার কোনো হদিস নেই।
গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে ঢাকা-১৭ আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন আবুল কালাম আজাদ। মার্চে তিনি গুলশান মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি হন। প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা আবদুল জব্বার মেহমান বলেন, ‘সংসদ সদস্য আমাদের বিভিন্ন মাধ্যম থেকে হুমকি-ধামকি দিচ্ছেন।
তবে এসব অভিযোগ প্রত্যাখান করলেন আবুল কালাম আজাদ। তিনি বাংলামেইলকে বলেন, ‘অর্থ লোপাটের বিষয়ে তার জানা নেই। বরং যারা অভিযোগ করছে তারাই ভবন নির্মাণ ঠিকাদারদের কাছে চাঁদার দাবি করেছিল। আমি বিষয়টি মীমাংসা করেছি মাত্র। বরং আমার হস্তক্ষেপে পুনরায় কাজ শুরু হয়েছে। কলেজের কোনো কমিটিরই মেয়াদ নেই, যারা আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন তারা কারা? আমি নিজেও চাই, আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে তদন্ত হোক।’
আবুল কালাম আরও বলেন, ‘আমি যখন অসুস্থ ছিলাম তখন কলেজের শিক্ষকরা স্বেচ্ছায় ১০ লাখ টাকা আমার ব্যাংক হিসাবে পাঠিয়েছিলেন, আমার চিকিৎসার জন্য। তবে সে টাকা আমি ব্যবহার করিনি, বরং ফেরত দিয়ে দিয়েছি।’
এ ব্যাপারে ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আবুল কাশেম বলেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোনও সংসদ সদস্য স্কুল থেকে ১০ লাখ টাকা ধার নিয়েছেন। তার মুখে এ ধরনের মিথ্যা কথা মানায় না। কলেজের সোনালী ব্যাংকের গুলশান শাখার একাউন্ট থেকে চেকের মাধ্যমে নিজের অ্যাকাউন্টে আবুল কালামের হিসাবে ১০ লাখ টাকা জমা দেয়া হয়েছে। চেকে অধ্যক্ষ মুস্তাফা জামানের পাশাপাশি আবুল কালাম আজাদ নিজেও স্বাক্ষর করেছেন।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া