২৫শে মে, ২০১৯ ইং | ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

খালেদার আপিল আবেদনের শুনানি ২১ ও ২৪ জুলাই

দুর্নীতির মামলা: খালেদার আপিল আবেদনের শুনানি ২১ ও ২৪ জুলাইনিজস্ব প্রতিবেদক : জিয়া অরফানেজ ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার কার্যক্রম স্থগিত এবং বিচারক নিয়োগ প্রক্রিয়া চ্যালেঞ্জ করে বিএনপি চেয়ারপারসনের করা রিট খারিজ করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের শুনানি অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২১ জুলাই। এছাড়া এই দুই মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নিম্ন আদালতের অভিযোগ গঠনের বিষয়ে করা আপিলের শুনানি হবে আগামী ২৪ জুলাই।
 
আজ (রোববার) সকালে প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ আদেশ দেন। ওই দুই মামলার কার্যক্রম স্থগিত ও বিচারক নিয়োগ-প্রক্রিয়ার বৈধতা নিয়ে খালেদা জিয়ার করা দুটি রিট গত ১৯ জুন হাইকোর্টে খারিজ হয়। এই আদেশ ও মামলা দুটির কার্যক্রম স্থগিত চেয়ে ৭ জুলাই দুটি আবেদন (সিএমপি) করেন খালেদা জিয়া।
পরদিন আবেদন দুটি চেম্বার বিচারপতির আদালতে উপস্থাপন করা হয়। আবেদন দুটি ১৩ জুলাই নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠান আদালত।
আজ আদালতে বিষয়টি উপস্থাপিত হলে খালেদা জিয়ার পক্ষের আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী সময়ের আবেদন জানান। পরে আদালত ২১ জুলাই শুনানির তারিখ ধার্য করেন।
উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১৯ মার্চ অভিযোগ গঠন করে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত। এ অভিযোগ গঠনের আদেশ বাতিল চেয়ে খালেদার করা আবেদন ২৩ এপ্রিল খারিজ করে দেয় হাইকোর্ট। এরপর এই দু মামলায় বিচারক নিয়োগ প্রক্রিয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ১২ মে রিট আবেদন করেন খালেদা জিয়া।
পরে ২৫ মে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ খালেদা জিয়ার করা রিট আবেদনে দ্বিধাবিভক্ত আদেশ দেয়। ১৯ জুন বিচারপতি রেজা-উল হকের একক বেঞ্চ রিট আবেদনটি খারিজ করে দেয়।
 
গত ১৯ মার্চ ওই দুই মামলায় খালেদা জিয়া ও তাঁর বড় ছেলে তারেক রহমানসহ নয়জনের বিরুদ্ধে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৩ অভিযোগ গঠন করেন। অভিযোগ গঠনের ক্ষেত্রে খালেদা জিয়াকে দোষী কি নির্দোষ জিজ্ঞাসা করা হয়নি এমন দাবি করে ওই আদেশ বাতিল চেয়ে ১৩ এপ্রিল হাইকোর্টে (রিভিশন) আবেদন করেছিলেন খালেদা জিয়া।
রিভিশন আবেদন খারিজ হওয়ার পর মামলা দুটির কার্যক্রম স্থগিত চেয়ে ও বিচারক নিয়োগ-প্রক্রিয়ার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ১২ মে খালেদা জিয়া দুটি রিট করেন। প্রাথমিক শুনানির পর ২৫ মে হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চ বিভক্ত আদেশ দেন। এক বিচারপতি মামলার কার্যক্রম স্থগিতের পাশাপাশি রুল দেন। অপর বিচারপতি আবেদন দুটি খারিজ করে দেন।
এরপর প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য হাইকোর্টের একটি একক বেঞ্চে পাঠান। দুই দিন শুনানি শেষে ১৯ জুন হাইকোর্টের একক বেঞ্চ রিট আবেদন দুটি খারিজ করে আদেশ দেন।
 প্রসঙ্গত জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে অর্থ লেনদেনের অভিযোগ এনে ২০১১ সালের ৮ আগস্ট খালেদা জিয়াসহ চারজনের নামে তেজগাঁও থানায় একটি মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে অনিয়মের অভিযোগে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় অপর মামলাটি করে দুদক। ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট দুদক খালেদা জিয়া, তাঁর ছেলে তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
মে ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« এপ্রিল    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া