২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

দূতাবাসের সহযোগিতা না পাওয়ার অভিযোগ বাংলাদেশীদের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ইরাক থেকে বাংলাদেশের শ্রমিকদের ফেরত আনার মতো পরিস্থিতি এখনও সৃষ্টি হয়নি।
তবে গত কয়েকদিনে ইরাক থেকে ৮০ জনের মতো শ্রমিক নিজের খরচে দেশে ফিরেছেন। তাদের অনেকেই অভিযোগ করেছেন, তাদের কাছে অর্থ না থাকলেও সরকার বা দূতাবাস থেকে কোনো সহায়তা তারা পাননি। কর্তৃপক্ষ এমন সব অভিযোগ মানতে রাজি নয়।
মন্ত্রী মনে করেন, এখনও যেহেতু সরকারি উদ্যোগে ইরাক থেকে শ্রমিকদের ফেরত আনার পরিস্থিতি হয়নি তাই এখন কেউ ফেরত এলে, তাকে নিজের খরচেই আসতে হবে।
ইরাক থেকে প্রথম দফায় ২৭ জন বাংলাদেশী শ্রমিক ফেরত এসেছেন পহেলা জুলাই। দ্বিতীয় দফায় ৫১ জন ফেরত এসেছেন ৮ জুলাই। তাদের অনেকেই সংবাদ মাধ্যমে অভিযোগ করেছেন, তাদের অনেকের অর্থ না থাকায় দেশ থেকে আত্মীয়-স্বজন বিমানের টিকেট পাঠানোর পর তারা ফেরত এসেছেন।
তাদের একজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, বাগদাদে বাংলাদেশের দূতাবাসে টেলিফোনে যোগাযোগ করেছিলাম, কিন্তু তারা বলেছে, এখনও কোনো খারাপ পরিস্থিতি হয়নি। ফলে দেশে ফেরত পাঠানোর ব্যাপারে এখনই সহায়তার কিছু নেই। ফলে আমরা নিজের খরচে দেশে ফিরেছি।
দু’দফায় যে শ্রমিকরা ফেরত এসেছেন, তাদের সকলেই দক্ষিণ কোরিয়ার একটি কোম্পানিতে কাজ করতেন। এই কোম্পানিতে বাংলাদেশেরই সাড়ে তিন হাজারের মতো শ্রমিক রয়েছেন। সেখানে এখনও কর্মরত রয়েছেন, তিনিও নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, তাদের ক্যাম্প থেকে একজনকে ধরে নিয়ে ইরাকের সরকারি বাহিনী নির্যাতন করায় তাদের মধ্যে ভয় কাজ করছে। কিন্তু তিনি নিজেও বাগদাদে বাংলাদেশ দূতাবাসে যোগাযোগ করে একটাই বক্তব্য পেয়েছেন, তা হলো, এখনও দেশে ফেরত পাঠানোর পরিস্থিতি হয়নি। অপেক্ষা করুন।
ইরাকে ২০ হাজারের মতো বাংলাদেশী শ্রমিক রয়েছেন। তাদের ফেরত আনার প্রস্তুতি তুলে ধরার পাশাপাশি যে কোন সহায়তার জন্য বাগদাদে বাংলাদেশী দূতাবাসে ২৪ ঘণ্টার জন্য টেলিফোন লাইন চালু রাখাসহ বিভিন্ন ব্যবস্থার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু টেলিফোনেও কোনো উত্তর না পাওয়ার অভিযোগ শ্রমিকদের অনেকেই করছেন।
এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন দূতাবাসের কর্মকর্তারা।
তারা বলেছেন, শ্রমিকদের সাথে তারা সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন। এছাড়া এখনও সরকারি উদ্যোগে শ্রমিকদের ফেরত পাঠানোর পরিস্থিতি হয়নি বলে তারা মনে করেন।
দূতাবাসের কর্মকর্তারা উল্লেখ করেছেন, দক্ষিণ কোরিয়ার যে কোম্পানির কিছু শ্রমিক দেশে ফেরত গেছে, রাষ্ট্রদূত ওই কোম্পানিতে গিয়ে কর্তৃপক্ষের সাথে পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক করেছেন।
প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ইরাক থেকে এখনও বাংলাদেশের শ্রমিকদের ফেরত আনার কোনো অবস্থাই সৃষ্টি হয়নি। কাজেই তাদের কেউ যদি নিজের উদ্যোগে ফেরত আসে, এটা স্বাভাবিক ঘটনা।
কিন্তু এর আগে তিনিও যে ফেরত আনার প্রস্তুতি রাখার কথা বলেছিলেন, সে ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মন্ত্রী বলেছেন, যাদের একেবারে কোনো উপায় থাকে না , তখন তাদের ফেরত আনা হয়। সেজন্য আমরা প্রস্তুতি রেখেছি। ইরানের সাথে কথা হয়ে রয়েছে যে, ইরাকে খারাপ পরিস্থিতি হলে ইরান সীমান্ত খুলে দেবে এবং বাংলাদেশের শ্রমিকরা সেখানে আশ্রয় নেবে। তারপর তাদের ফেরত আনা হবে। এ ব্যাপারে আইওএম এর সাথেও কথা হয়েছে। বিবিসি।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া