১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

রংপুরের ‘পল্লী নিবাসে’ চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন এরশাদ

ডেস্ক রিপাের্ট : নিজ বাসভবন রংপুরের পল্লী নিবাসে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ।

মঙ্গলবার বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটে পল্লী নিবাসে এরশাদকে দাফন সম্পন্ন হয়। এ সময় উপস্থিত সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে কেউ কেউ কান্নায় ভেঙে পড়েন।

রংপুরের কালেক্টরেট ঈদগাহ ময়দানে জানাজা শেষে দলীয় নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষ তার মরদেহ বহনকারী গাড়ি নিয়ে বিকেল সাড়ে ৪টায় পল্লী নিবাসে পৌঁছান। প্রায় চার কিলোমিটার হেঁটে এরশাদের মরদেহ বহনকারী গাড়ির সঙ্গে প্রয়াত নেতার স্বপ্নের বাসভবন পল্লী নিবাস পর্যন্ত যান দলীয় নেতাকর্মীরা। সেখানে মরদেহ পৌঁছানোর পর সেনাবাহিনীর পক্ষে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। এরপর সেনাবাহিনীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে মরদেহ দাফনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

দাফনের আগে এরশাদপুত্র সাদ তার বাবার আত্মার মাগফিরাত কামনার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চান। সবশেষে বিকেল ৫টা ৪০ মিনিটে এরশাদকে দাফন করা হয়।

এরশাদের ছোট ভাই ও জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের, মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা, সাবেক মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, রংপুর সিটি মেয়র ও জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য মোস্তাফিজার রহমান মোস্তা, এরশাদপুত্র সাদ ও এরিকসহ পার্টির কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতাসহ সর্বস্তরের মানুষ দাফনে অংশ নেন।

এর আগে, আজ বাদ জোহর বেলা আড়াইটায় রংপুরের কালেক্টরেট ঈদগাহ ময়দানে জানাজা শেষে মরদেহ ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পথে মরদেহ বহনকারী গাড়ি আটকে দেওয়া হয়। এ সময় জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা স্লোগান দিয়ে এরশাদকে রংপুরে দাফনের দাবি জানান।

এ অবস্থায় রংপুরের মানুষের ভালোবাসার প্রতি শ্রদ্ধা রেখে পল্লী নিবাসেই সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদকে দাফনের সিদ্ধান্ত নেয় জাতীয় পার্টি।

রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন বলেন, স্যারের মরদেহ রংপুরে তার ইচ্ছা অনুযায়ী দাফন করা হয়েছে। আমরা স্যারের ইচ্ছা পূরণ করতে বদ্ধপরিকর ছিলাম। এখানে দাফন হওয়ায় সাধারণ মানুষসহ দলীয় লোকজন স্বাচ্ছন্দ্যে স্যারের কবর জিয়ারত করতে পারবেন। এটা আমাদের পরম পাওয়া।

এর আগে জানাজা শেষে নেতাকর্মীদের দাবির মুখে এইচ এম এরশাদের দাফন রংপুরেই হবে বলে ঘোষণা দেন এরশাদের ছোট ভাই ও জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদের।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মৃত্যুর আগে পল্লী নিবাস সংস্কার করে তিনতলা নতুন ভবন গড়ার উদ্যোগ নিয়েছিলেন এরশাদ, যা এত দিন বাউন্ডারির মধ্যে আলাদা ছিল। এরশাদ থাকতেন দোতলা ভবনে। আর পিএসসহ অন্যান্য স্টাফদের জন্য ছিল একতলা ভবন। পুরোনো ভবন ভেঙে তিনতলা কমপ্লেক্স করা হচ্ছে। দ্বিতীয় তলায় এরশাদ ও ছেলে এরিকের কক্ষ তৈরি করা হয়েছে। ভবনটির দ্বিতীয় তলার কাজ শেষ। তৃতীয় তলায় চলছে ফিনিশিংয়ের কাজ। এবার এলে সেখানেই থাকার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই তিনি না ফেরার দেশে চলে গেলেন।

জানা যায়, রংপুরে অসমাপ্ত বাড়ি পল্লী নিবাসকে উপমহাদেশের রাজনীতির একটি প্রশিক্ষণশালা করতে চেয়েছিলেন এরশাদ। যেখানে তৃণমূল এবং জাতীয় নেতাকর্মীদের সম্মিলন ঘটবে। মারাত্মক অসুস্থ অবস্থায়ও এর নির্মাণকাজ তদারকি করতেন তিনি। গত ২৮ জুন রংপুরে আসার কথা ছিল এরশাদের। তার সফর কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি ছিল না। বাড়ির নির্মাণকাজ দেখতেই তিনি রংপুরে আসতেন এবং নির্মাণাধীন পল্লী নিবাসে এবার ওঠার কথা ছিল তার। অবশেষে জীবিত নয়, লাশ হয়েই পল্লী নিবাসে উঠলেন এরশাদ।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া