২০শে মে, ২০১৯ ইং | ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

শিশুদের স্ক্রিন- টাইম(Screen-time): প্রযুক্তি উদ্ভাবকদের শিশু ও আমাদের শিশু

জলিলুর রহমান : ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন(WHO) শিশুদের জন্য স্ক্রিন-টাইম নির্দেশিকা'(screen-time guidelines) প্রকাশ করেছে। বিশ্বের সবচেয়ে সফল সিইওগন (CEO) কীভাবে বাড়িতে নিজেদের শিশুদের ‘স্ক্রিন টাইম’ নিয়ন্ত্রণ করছেন তা এখানে দেখুনঃ

কারিগরি ব্যবহারের প্রথম দিক নির্দেশনা অনুযায়ী, শিশুদের স্ক্রিন ব্যবহার করা কতটা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে তা জানানো হয়েছে।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, ৫ বছরের কম বয়সী শিশুদের প্রতিদিন এক ঘণ্টার বেশি ‘স্ক্রিন’ দেখার সময় ব্যয় করা উচিত নয়, ১ বছরের কম বয়সী শিশুদের স্ক্রিন ব্যবহার করা উচিত নয়। যদিও WHO ক্ষতির দিকটি উল্লেখ করেনি , তবে সংস্থাটি বলেছে যে প্রযুক্তির মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহারে শারীরিক ক্রিয়াকলাপ হ্রাস পেতে পারে যা মৃত্যু এবং স্থূলতার কারণ হতে পারে।

‘টেক টাইটানস’ (Tech titans) যারা সোশ্যাল মিডিয়া বা ডিভাইস(device) বাচ্চাদের ব্যবহার করার জন্য তৈরি করেছেন তারা দীর্ঘদিন তাদের বাচ্চাদের নিজেদের ‘গ্যাজেট-মুক্ত (‘gadget-free) রেখেছেন।

প্রয়াত অ্যাপল সিইও Steve Jobs তাঁর বাচ্চাদের সেই সময়কার আবিষ্কৃত নতুন আইপ্যাড দিয়ে খেলতে দেননি। স্টিভ জবস তার বাচ্চাদের মধ্যে তাঁর নিজের তৈরি প্রযুক্তি ব্যবহার সীমিত করেছেন। নতুন একটি আইপ্যাড বের হলে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে জব বলেছেন যে তিনি তার বাচ্চাদের এটি ব্যবহার থেকে নিষিদ্ধ করেছেন। নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদক নিক বিলটনকে বলেছেন, “আমরা আমাদের বাচ্চাদের বাড়িতে কতটা প্রযুক্তি ব্যবহার করি তা আমরা সীমাবদ্ধ করি।” আসলে বাচ্চাদের স্ক্রীন ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়াতে খুব চিন্তিত ছিলেন তিনি।
আইপডের সহ-নির্মাতা টনি ফেডেল সম্প্রতি বলেছেন যে স্টিভ জবস বেঁচে থাকলে তিনি প্রযুক্তির আসক্তিকে মোকাবেলা করতেন এবং এটি রোধে কাজ করতেন।

মাইক্রোসফ্ট সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস এবং তার স্ত্রী মেলিন্ডা ১৪ বছর বয়সের আগে তাদের বাচ্চাদের সেল ফোন কিনে দেননি।
আসলে, গেটস পরিবারের বাচ্চাদের ডিনার টেবিলে ফোন ব্যবহার করার অনুমতি দেওয়া হয়নি। বিল গেটস ২0১৭ এর একটি সাক্ষাত্কারে বলেছিলেন, তারা তাদের বাচ্চাদের ঘুমাতে যাওয়ার কতটুকু সময় আগে ফোন ব্যবহার করতে পারবে তা নির্ধারণ করে দিতেন। এমনকি প্রাক্তন সিইও তাঁর মেয়ের ভিডিও গেম খেলার সময় স্ক্রিন টাইম এ একটি ক্যাপ নির্ধারণ করে রাখতেন যাতে খুব বেশী সময় গেম খেলতে না পারে।

স্ন্যাপচ্যাটের (Snapchat) প্রতিষ্ঠাতা Evan Spiegel – যার প্ল্যাটফর্মটি তরুণদের মধ্যে জনপ্রিয় – এই প্রযুক্তি শিশুরা কতটুকু ব্যবহার করতে পারে তার সীমা নির্ধারণ করা আছে। ইভান স্পিগেল তার বাচ্চাদের প্রতি সপ্তাহে স্ক্রিন সময় দেড় ঘন্টা নির্ধারণ করে দিতেন। স্পিগেল ফাইন্যান্সিয়াল টাইমসকে বলেন পর্দা সীমা নিয়ম (screen-limit rule) তার প্রথম স্ত্রী মিরান্ডা ক্যারের কাছ থেকে আসে। স্ন্যাপচ্যাট প্রতিষ্ঠাতা স্ক্রিনের সময় নির্ধারণের জন্য অন্যান্য বাবা-মায়েদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

এলিট সিলিকন ভ্যালি’র বাবা-মায়েরা যারা তাঁদের বাচ্চাদের প্রযুক্তি মুক্ত( tech-free) পরিবেশে বড় করছেন এমনকি বাচ্চাদের দেখভাল করার জন্য যে nannies রাখা হয় তাদেরকে “no-phone contracts.” চুক্তিতে স্বাক্ষর করতে হয়।

২0১৮ সালের পিউ রিসার্চ সেন্টার জরিপ অনুসারে তরুণরা অন্য কোনও বয়সের তুলনায় স্ন্যাপচ্যাট বেশী ব্যবহার করেছে যেমন ১৩ থেকে ৭ বছর বয়সের ৩৫% তরুন ইউটিউব, ইনস্টগ্রাম এবং ফেসবুকের তুলনায় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মটি প্রায়শই ব্যবহার করেছে।
গুগল সিইও Sundar Picha তার বাচ্চাদের কাছ থেকে দূরে টিভি রাখে। গত বছরের একটি সাক্ষাত্কারে, Picha নিউইয়র্ক টাইমসকে বলেন, তার ১১ বছরের ছেলেটির সেল ফোন নেই, এবং সে টেলিভিশনের ব্যবহার সীমিত রাখে।

ডালাস মাভারিক্সের ব্যবসায়িক মুগল এবং সহ-মালিক মার্ক কিউবান তার বাচ্চাদের প্রতিটি ঘন্টা পড়ার জন্য দুই ঘন্টা নেটফ্লিক্সের অনুমতি দেন।
কিউবান এই দেখার পদ্ধতিটি প্রথমে প্রয়োগ করেছিলেন, কিন্তু তার কন্যা তার বন্ধুর কাছ থেকে আরেকটি নেটফ্লিক্স পাসওয়ার্ড পেয়েছিল। তিনি তার পুত্রের সাথে একই কৌশল চেষ্টা করেছিলেন: গণিত ভিডিও দেখার পরে বা গণিত সমস্যার সমাধান করার পরে তিনি কেবল Minecraft খেলতে পারতেন।
এখন সিইওর Cisco routers রয়েছে যা তার বাচ্চাদেরকে প্রযুক্তি ব্যবহার করার সময় সনাক্ত করতে পারে এবং সমস্ত কার্যকলাপ বন্ধ করে দিতে পারে।

Apple CEO Tim Cook চান নি যে তার ভাতিজা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করুক এবং যুক্তি দেন যে স্কুলে প্রযুক্তির ব্যবহার সীমিত হওয়া উচিত।
যদিও কুকের নিজের সন্তান নেই তিনি বিশ্বাস করেন না যে overusing প্রযুক্তি বাচ্চাদেরকে সাফল্যের দিকে পরিচালিত করে, এবং তিনি তার ভাতিজার জন্য সামাজিক মিডিয়া ব্যবহার সীমাবদ্ধ করতে চান।
উপরন্তু, কুক শ্রেণীকক্ষে overusing প্রযুক্তি ব্যবহারের বিরুদ্ধে সতর্ক বানী উচ্চারণ করেন।

Microsoft CEO Satya Nadella তার বাচ্চাদের কোন সাইটে যেতে পারে তা নিরীক্ষণ করেন। Nadella তার বাচ্চারা তাদের কম্পিউটারে কি করছেন তা রিপোর্ট নেন। বিনোদোনের জন্য প্রযুক্তি সব সময়েই তাঁদের ঘরে একটি আলোচনার বিষয় যেমন কতগুলি সিনেমা, কোন ধরণের সিনেমা বা ভিডিও গেমস খেলা হবে তা আলাপালচোনার মাধ্যমে নির্ধারণ করা হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
মে ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« এপ্রিল    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া