২১শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং | ৮ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

মির্জা ফখরুলকে শাহ মোয়াজ্জেম -খালেদা জিয়া এখনও জেলে কেন?

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত ভুল ছিল মন্তব্য করেছেন দলটির সহ সভাপতি শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন। তিনি দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুলকে প্রশ্ন রেখে বলেন, খালেদা জিয়া আজও জেলে কেন?

ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে রোববার বিএনপির সাবেক মহাসচিব কেএম ওবায়দুর রহমান স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে আয়োজিত এক আলোচনাসভায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুর রহমানের ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এ আলোচনাসভা হয়।

একাদশ নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ নিয়েও প্রশ্ন তোলেন শাহ মোয়াজ্জেম। বলেন, কেন এই নির্বাচনে আমরা গেলাম। কথা হলো নির্দলীয় সরকার ছাড়া নির্বাচন হবে না, কিন্তু তা তো হলো না। দলীয় সরকারের অধীনেই হলো। কথা হলো খালেদা জিয়া ছাড়া নির্বাচন হবে না, কিন্তু খালেদা জিয়া ছাড়া আমরা নির্বাচনে গেলাম। কেন এ অবস্থা হলো? কেন আজও খালেদা জিয়া জেলে? কেন একটা দাবিও সরকার মানল না?

খালেদা জিয়াকে ছাড়া নির্বাচনে যাওয়ার সমালাচনা করে তিনি আরও বলেন, ‘কেন এই নির্বাচনে আমরা গেলাম। কথা ছিল, নির্দলীয় সরকার ছাড়া নির্বাচন হবে না, কিন্তু তা তো হলো না। কথা ছিল, খালেদা জিয়া ছাড়া নির্বাচন হবে না। তবে তাকে ছাড়াই আমরা নির্বাচনে গেলাম। কেন আজও খালেদা জিয়া জেলে? কেন একটা দাবিও সরকার মানল না? ‘

ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলে শাহ মোয়াজ্জেম বলেন, ‘আমরা তাকে নেতা মানলাম। কেন, ফখরুল কী দোষ করেছিল? আমাদের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, মহাসচিব ফখরুল। আমাদের তো অন্য কারও দরকার নেই। আমরা যা পারি করব, না পারলে করব না। কিন্তু এটা কী হলো? ঠাডা (বাজ) পড়লো সমগ্র জাতির ওপর।’

ড. কামালের নাম উল্লেখ না করে তিনি বলেন, যিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এক কোটি ভোটের ব্যবধানে হেরেছিলেন আমরা তাকে নেতা মানলাম। কেন, মির্জা ফখরুল কী দোষ করেছিল?

নাম উল্লেখ না করে শাহ মোয়াজ্জেম বলেন, আমি স্বাধীনতার ইতিহাস জানি। সেই সময়ে ভারতে আমরা সব চলে গেলাম। এনটায়ার কেবিনেট চলে গেল। গভর্নর হাউসে ইয়াহিয়া খানের সঙ্গে কথা বলার সময়ে যে ব্যক্তি ছিল সর্বক্ষণ, সে গেল না।

পরে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপির মহাসচিব বলেন, নিরাপদ স্থানে বসে কথা বলে আওয়ামী লীগকে পরাজিত করা যাবে না। দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমাদের নেত্রীর গ্রেফতারের পর যখন কর্মসূচি দিয়েছি, আমরা দেখেছি- কতজন এসেছেন, কতজন আসেননি। দেখেছি- কারা কারা সেই কর্মসূচির মধ্য থেকে আস্তে চলে গেছেন। দেখেছি- এই নির্বাচনের মধ্যে কারা বেরিয়ে এসেছেন, প্রতিবাদ করেছেন এবং প্রতিবাদ করেননি। শুধু কথা বলে, একটা আবদ্ধ ঘরের মধ্যে নিরাপদ জায়গায় এসব কথা বলে আমরা সেই শত্রুকে (আওয়ামী লীগ) পরাজিত করতে পারব না।

বর্তমান ফ্যাসিবাদী সরকারের পতন ঘটানোর যুদ্ধে বিজয়ী হতে হলে আবেগের সঙ্গে জনগণের ঐক্যকে আরও সুদৃঢ় করতে হবে বলে মন্তব্য করে মির্জা ফখরুল বলেন, শুধু আবেগ দিয়ে যুদ্ধ জয় হয় না। জনগণের ঐক্যকেও সুদৃঢ় করতে হয়। কঠিন সময় এখন।

বিএনপিকে সবচেয়ে জনপ্রিয় দল উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, অনেকে বলেন- বিএনপি নিঃশেষ হয়ে যাবে। আমি বলি- বিএনপি কোনো দিন নিঃশেষ হবে না। কারণ বিএনপি জনগণের দল। এই দেশের মাটির গন্ধ হচ্ছে বিএনপির রাজনীতি। দেশের জনগণের শ্রমের যে ঘাম, সেটি হচ্ছে বিএনপির রাজনীতি। তিনি বলেন, অনেকবার বিএনপিকে ভাঙার ষড়যন্ত্র হয়েছে, কিন্তু কেউ সফল হয়নি। বহু চেষ্টা হয়েছে এখন পর্যন্ত বিএনপির একজন কর্মীকেও কেউ সরিয়ে নিতে পারেনি।

সংগঠনের সভাপতি টিএম গিয়াস উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান সম্রাটের পরিচালনায় আলোচনাসভায় জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, নিতাই রায়চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, সাংবাদিক মাহফুজউল্লাহ, প্রয়াত কেএম ওবায়দুর রহমানের মেয়ে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ রিংকু, যুবদল নেতা মাহবুবুল হাসান ভুঁইয়া পিংকু প্রমুখ বক্তব্য দেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
এপ্রিল ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মার্চ    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া