২০শে মার্চ, ২০১৯ ইং | ৬ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

ক্রাইস্টার্সে মসজিদে জঙ্গী হামলার পর বিসিবি সভাপতি বললেন, যে দেশ নিরাপত্তা দিতে পারবে না, বাংলাদেশ দল সেখানে যাবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক :নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টার্চে আজ বাংলাদেশ সময় রাত চারটায় স্বাগতিকদের বিরুদ্ধে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্ট খেলতে মাঠে নামার কথা। তার আগে স্থানীয় সময় দুপুর পৌনে ২টায় ক্রাইস্টার্সের নূর মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করতে রওনা হন তামিম-রিয়াদরা। মসজিদের কাছাকাছি যাওয়া মাত্র সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়রা। এ অবস্থায় নিরাপত্তার বিষয়ে নড়েচড়ে বসেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

আজ গুলশানের নিজ বাসভবনে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের ক্রিকেটাররা ক্রাইস্টার্চে নিরাপদেই আছেন। মিনিট দশেক আগে তারা মসজিদে রওনা হলে বিপদ ঘটতে পারতো। তিনি বলেন, যে দেশ খেলোয়াড়দের নিরাপত্তা দিতে পারবে না সেখানে বাংলাদেশ সফর করবে না। এ ব্যাপারে আমরা এখন দৃঢ় প্রতয়ী। পাপন আরো বলেন, ভবিষ্যতে দেশের বাইরে খেলতে গেলে ক্রিকেটারদের নিরাপত্তার ব্যাপারে আমরা সতর্ক থাকবো। আজকের (গতকাল) ঘটনার পর এটা নিশ্চিত, খেলোয়াড়রা যে দেশেই যাক না কেনো প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা আমাদের নিশ্চিত করতে হবে। যারা দিতে পারবে আমরা শুধু সে দেশেই খেলতে যাবো।

ক্রাইস্টার্চে শনিবার (বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাত ৪টায়) তৃতীয় টেস্ট শুরু হওয়ার কথা ছিল। ম্যাচের আগের দিন শুক্রবার সকালে অনুশীলন করতে হ্যাগলি ওভাল মাঠে ব্যাগ রেখে স্টেডিয়ামের অদূরে নূর মসজিদে জুম্মার নামাজ পড়তে রওনা হন তামিম-মুশফিকরা। মসজিদের খুব কাছে গিয়ে ক্রিকেটাররা গুলির আওয়াজ শুনতে পেয়ে পার্কের ভেতর দিয়ে দৌড়ে প্রাণ নিয়ে স্টেডিয়ামে ফিরে আসেন তারা। ড্রেসিংরুমে কিছুসময় উদ্বিগ্নে কাটানোর পর স্থানীয় পুলিশের সহায়তায় ক্রিকেটাররা টিম হোটেলে ফিরে যান। এরপরই দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ড মিলে তৃতীয় টেস্টটি বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বোর্ড সভাপতি নিরাপত্তার ব্যাপারে বিসিবির অবস্থান ব্যাখ্যা করেন।

বিসিবি সভাপতি বলেন, আমাদের দেশে যখন বিভিন্ন দেশ খেলতে আসে, তারা প্রথমেই নিরাপত্তার ধরণ নিয়ে কথাবার্তা বলে। আমরাও ভালো নিরাপত্তা দিয়ে থাকি। এখন পর্যন্ত আমরা তেমনটা কোথাও গিয়ে পাইনি। সত্যি কথা বলতে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডে খেলতে গিয়ে নিরাপত্তার বিষয়ে কখনও জোরাজুরি করিনি। অন্যান্য দেশও ওসব দেশে খেলতে গেলে করে না। জঙ্গী হামলা হতে পারে এ ধারণাই নিউজিল্যান্ড সরকারের নেই। এমন ঘটনা ঘটলে তাৎক্ষণিকভাবে কী করতে হবে সে ব্যাপারেও তাদের ধারনা নেই। ঘটনাস্থলে পুলিশ যেতে যতটা সময় লেগেছে, এটা তো অস্বাভাবিক। আমাদের দেশে এমন কিছু হলে পুলিশ পৌঁছাতে সময় লাগে না। আমি মনে করি মসজিদে জঙ্গী হামলায় নিউজিল্যান্ড সরকার প্রস্তুত।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
মার্চ ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« ফেব্রুয়ারি    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া