১৯শে মে, ২০১৯ ইং | ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস’ বইয়ে ইতিহাস বিকৃতি- নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলেন শুভঙ্কর সাহা

ডেস্ক রিপোর্ট : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি অন্তর্ভুক্ত না করে ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস’ বই প্রকাশ করে ইতিহাস বিকৃতির দায় স্বীকার করে হাইকোর্টে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন বইটির সম্পাদক শুভঙ্কর সাহা।

তবে তার ক্ষমা আবেদনের বিষয়ে কোনো আদেশ না দিয়ে প্রকাশিত বইগুলো কি করা হয়েছে, সে বিষয়ে ৯ এপ্রিল প্রতিবেদনে দাখিলের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলী সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে মঙ্গলবার এই আদেশ দেন।

এর আগে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস’ বিকৃতির দায়ে বইটির সম্পাদক শুভঙ্কর সাহাকে তলব করেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি বইটির পুরনো যত কপি আছে, সেগুলো সরিয়ে ফেলতে এবং বইটি যেন বাজারে না ছাড়া হয় সে বিষয়েও আদেশ দেন। ওই আদেশ অনুসারে হাইকোর্টে হাজির হন শুভঙ্কর সাহা।

শুনানিতে শুভঙ্কর সাহাকে উদ্দেশ্য করে আদালত বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে রিলেটেড বঙ্গবন্ধুর এমন ছবি তো ছিল। কিন্ত ওই বইতে দেওয়ার মতো বঙ্গবন্ধুর একটা ছবিও আপনারা পেলেন না?’

এ পর্যায়ে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়ে শুভঙ্কর সাহা বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস বই প্রকাশে একটি টিম দায়িত্বে ছিলেন। আমরা বইয়ে বঙ্গবন্ধুর অবদান, সাতই মার্চের ভাষণ, স্বাধীনতার ঘোষণা, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা- এসব বিষয় অন্তর্ভুক্ত করেছিলাম। কিন্ত বাংলাদেশ ব্যাংক রিলেটেড বঙ্গবন্ধুর কোনো ছবি তখন না পাওয়ায় বইয়ে বঙ্গবন্ধুর কোনো ছবি দেওয়া হয়নি। এইজন্য আমি আদালতের কাছে পুরো টিমের পক্ষে ক্ষমা চাচ্ছি।’

এ সময় আদালত বলেন, ‘আইয়ুব খান, মোনায়েম খানকে বইতে হাইলাইট করলেন অথচ বঙ্গবন্ধুর একটা ছবিও পেলেন না?’ জবাবে শুভঙ্কর সাহা বলেন, ‘বইতে আইয়ুব খানকে স্বৈরাচার হিসেবেই অ্যাখ্যায়িত করা হয়েছে।’ তখন তিনি আবারও দুঃখ প্রকাশ করে নিঃশর্ত ক্ষমা চান।

এ পর্যায়ে রিটকারী আইনজীবী এবি এম আলতাফ হোসেন আদালতে বলেন, ‘ক্ষমা চেয়ে ইতিহাস বিকৃতির দায় থেকে মুক্তি পাওয়া যায় না। জাতি ক্ষমা করতে হবে।’ তখন শুভঙ্কর সাহা আদালতকে জানান, নতুন করে ছাপানো ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস’ বইতে বঙ্গবন্ধুর ছবি দেওয়া হয়েছে। এসময় আদালত বলেন, বঙ্গবন্ধুর ছবি না দিয়ে ছাপানো আগের বইগুলোর কী অবস্থা সে বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য হলফনামা আকারে ৯ এপ্রিলের মধ্যে দাখিলের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এবিএম আলতাফ হোসেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আল আমিন সরকার। অন্যদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. আজিজ উল্লাহ ইমন ও শুভঙ্কর সাহার পক্ষে আইনজীবী যোবায়ের রহমান।

আদেশের পর আইনজীবী আজিজ উল্লাহ ইমন সাংবাদিকদের জানান, বাংলাদেশ ব্যাংক আভ্যন্তরীণ নোটিস দিয়ে ইতিমধ্যে বিকৃতির দায়ে অভিযুক্ত বইয়ের সব কপি তুলে নিয়েছে। আর নতুনভাবে প্রকাশিত বইয়ে বঙ্গবন্ধুর ছবি ও বক্তব্য তুলে ধরা হয়েছে।
২০১৭ সালের ডিসেম্বরে বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস শীর্ষক বইটি প্রকাশ করা হয়। ওই বইয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি অন্তর্ভুক্ত না করে ইতিহাস বিকৃতির ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিয়ে আলোচনা সমালোচনা ওঠার পর গত বছর সমকালেও এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

এরপর গত বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর তথ্য বিকৃতির ওই ঘটনা অনুসন্ধান চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন একটি জাতীয় দৈনিকের সম্পাদক। পরে ওই রিটের শুনানি নিয়ে ২ অক্টোবর রুলসহ অনুসন্ধান কমিটি গঠনের আদেশ দেন হাইকোর্ট। এরপর কমিটি ১৯ ফেব্রুয়ারি প্রতিবেদন দাখিল করলে শুভঙ্কর সাহাকে তলব করা হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
মে ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« এপ্রিল    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া