১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

১৫০ পরিচালকের কাছে ১৫ কোটি টাকা পাওনা এফডিসির!

বিনােদন ডেস্ক : বারবার তাগাদা দিয়েও উদ্ধার হচ্ছে না এফডিসির পাওনা টাকা। ১৫০ ছবির পরিচালকের কাছে প্রায় ১৫ কোটি টাকা পায় এফডিসি। তালিকায় জনপ্রিয় ও পরিচিত মুখ। এ নিয়ে কঠোর হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। শীঘ্রই নেয়া হবে আইনি পদক্ষেপ।

আগে যেখানে বছরে ৮০- ১০০ সিনেমার শুটিং হত এফডিসিতে,এখন সেখানে চলে ২০-৩০ টি ছবির শুটিং। আর মুদি দোকানের মত হাতে গোনা এই কয়েকটি ছবির প্রযোজক ও পরিচালকরাও পরিশোধ করছে না পাওনা টাকা। আবুল খায়ের বুলবুল, এনায়েত করিম, স্বপন চৌধুরী, ওস্তাদ জাহাঙ্গীর আলম, শরিফুদ্দীন খান দীপু, শাহীন সুমন, কমল সরকার থেকে শুরু করে মনোয়ার হোসেন ডিপজল- সময়ের সব আলোচিত পরিচালক ও প্রযোজকরা আছে এই খাতায়।

এঁদের নিয়ে একটি ফাইল তৈরি করেছেন এফডিসির ফিন্যান্স বিভাগের লক্ষ্মণচন্দ্র দেবনাথ। তিনি জানান,‘ কারো কারো কাছে ৫০ লাখ টাকার উপর পাওনা। এমনিতে কাজ কম হচ্ছে, তাদের সুবিধা দেয়া হয়েছে যেন এই থেকে সিনেমা নির্মাণ করে ব্যবসা করে টাকা দিতে পারে। কথা ছিল নিজেদের সুবিধামতো বকেয়া পরিশোধ করে দেবেন তাঁরা। কিন্তু ছবির মুক্তি হয়ে গেলেও বিষয়টি নিয়ে কেউ মাথা ঘামাচ্ছেন না। বারবার চিঠি দিয়েও পাওয়া যায় না তাদের। সরকারের টাকা মেরে দেয়ার অধিকার কারো নেই। এটা তাদের বোঝা উচিত আজ হোক বা কাল হোক এটা পরিশোধ করতেই হবে।’

এফডিসির উৎপাদন শাখায় আছেন আইয়ুব আলী। তিনি জানান, ‘বকেয়া ছবিগুলোর বেশির ভাগ নির্মিত হয়েছে ২০০০ সালের পর।’

এফডিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমির হোসেন বলেন,‘ বকেয়া নিয়ে সকলকে একদিন বসার অনুরোধ করেছি। তাও কোন সাড়া দেননি এসব পরিচালক ও প্রযোজক। হয়তো অনেকে ভাবছে এটা সবাই ভুলে যাবে। আর কোন এক সময় অবস্থা খারাপ দেখিয়ে সরকারের কাছ থেকে মওকুফ করিয়ে নেবে। তা হয় নাকি! বিষয়টি নিয়ে সরাসরি মন্ত্রনালয় সিদ্ধান্ত নেবে। আদালত পর্যন্ত গড়ালেও অবাক হব না।’

অভিযুক্ত পরিচালকদের একজন শাহীন সুমন। নিয়মিতই ছবি নির্মাণ করছেন। এখনো তার ছবি ‘একটি প্রেম দরকার’ শুটিং চলছে। কিন্তু তিনি বকেয়া পরিশোধ করছেন না। শাহীন বলেন, ‘পরিচালনার বাইরে আমি আর কিছুই করি না। আয়ের অন্য কোন উৎস নেই। এখান থেকেই জীবিকা নির্বাহ করি।

এখান থেকেই সিনেমা নির্মাণ করি। এত দিন ছবি নির্মাণ করে পাওয়া পারিশ্রমিক থেকে দুই লাখ করে টাকা জমা দিয়ে কিস্তি আকারে শোধ করেছি। কিন্তু হঠাৎ এফডিসি কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, একবারে পুরো টাকা শোধ করতে হবে; নইলে আর ছবি করতে পারব না। এটা কেমন কথা! ছবি না করতে পারলে তো আমি শোধও করতে পারবো না। আর যে ছবির জন্য আমার বকেয়া পড়েছে। তার কোনটাই মুক্তি দিতে পারিনি। সবগুলো এফডিসিতেই পড়ে আছে। এমন নয় যে আমি টাকা আত্নসাৎ করেছি। আমি পালিয়ে বেড়াচ্ছি। এফডিসি চাপ দিয়ে বড়জোর আর ছবি নির্মাণ বন্ধ রাখতে পারবে। অনুরোধ করছি, কঠোর সিদ্ধান্ত বদলে আমাকে ছবি নির্মাণের সুযোগ দেওয়া হোক। আমি অবশ্যই পাওনা টাকা কিস্তিতে শোধ করে দেব।’

শাহীন সুমন ছাড়া অভিযুক্ত আর কোনো নির্মাতাই এখন ছবি নির্মাণ করেন না। প্রায় সাত বছর ধরে ছবি নির্মাণ থেকে দূরে আছেন আবুল খায়ের বুলবুল। ওস্তাদ জাহাঙ্গীর আলম কক্সবাজারে রিসোর্ট করেছেন, সেটি নিয়েই ব্যস্ত। শরিফুদ্দীন খান দীপুও আট বছর হলো ছবি নির্মাণ করছেন না। এনায়েত করিম জীবিত নেই। কাহিনি লেখা ছাড়া এই মুহূর্তে ছবি নির্মাণে ফিরতে চান না কমল সরকার। নাম প্রকাশে অভিযুক্ত একজন বলেন,‘আমার কাছে যে ছবিটির জন্য টাকা পাওনা সেই ছবি কখনো মুক্তিই পাবে না। বিষয়টা এমন হয়েছে, খাইলাম না, ছুঁইলাম না, দোষ নিলাম ঘাড়ে।’

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
নভেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া