১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

বাংলাদেশের ফুটবলের পালে নতুন হাওয়া

স্পোর্টস ডেস্ক : সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের ফুটবলে পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ঝিমিয়ে যাওয়া ফুটবল আবার ফিরে পেয়েছে তাদের প্রাণ। একসময় যেই ফুটবলে দর্শকদের কারণে স্টেডিয়াম জায়গা পাওয়া ছিল দুষ্কর, সেই ফুটবলেই ধীরে ধীরে দর্শক হারায় বাংলাদেশ। যদিও আবার প্রাণ ফিরে পেয়েছে বাংলাদেশের ফুটবল। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন নিজেও সেই পরিবর্তন লক্ষ্য করে বর্তমান দলটিকে বাংলাদেশের সর্বকালের অন্যতম সেরা দল হিসেবেও আখ্যায়িত করেছেন।

বাংলাদেশ পুরুষ ফুটবল দলের সাফল্যের চেয়ে বয়সভিত্তিক আসরে নারী ফুটবল দলের সাফল্য এশিয়া অঞ্চলে সবার নজর কাড়ছে। নারী অনূর্ধ্ব ১৬ ও অনূর্ধ্ব ১৮ দলটি ধীরে ধীরে নিজেদেরকে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে সম্মানের আসনে বসিয়েছে। বাংলাদেশের ফুটবলে আচমকা এই পরিবর্তনের মূলে রয়েছে খেলোয়াড়দের মনোবল ও পরিশ্রম। বাফুফে সভাপতি তরুণ এই ফুটবলারদের মাঝে লড়াই করার দৃপ্ত প্রবল মানসিক শক্তি খুঁজে পেয়েছেন।

বাংলাদেশের ফুটবলের সোনালি অতীতের কথা সবারই জানা। দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলের কেন্দ্রভূমি ছিল লাল সবুজের দেশ। জাতীয় দলের পাশাপাশি ক্লাব ফুটবলেও ছিল টানটান উত্তেজনা। আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচ ঢাকার মাঠে কোন অংশেই ইউরোপ জায়ান্টদের ম্যাচের কম ছিল না। বাংলাদেশের পেশাদার ফুটবল লিগের বয়স দশ বছর অতিক্রম হয়ে গেল। তবে এই দশ বছরে সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে ফুটবল এগোয় নি, পাইপলাইনের বিচারে খেলোয়াড় উঠে আসার সংখ্যাও নেহাত কম।

তবে আসন্ন একাদশ মৌসুমে দেশের ঘরোয়া লিগের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ এ আসরও জমজমাট ও আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে।

১৯৮৭ সালে বাংলাদেশের ঘরোয়া লিগে সর্বপ্রথম বিশ্বকাপ খেলা ফুটবলার খেলতে আসে। ইরাকের হয়ে ৮৬ বিশ্বকাপ খেলা সামির শাকির ও করিম মোহাম্মদ বাংলাদেশে আবাহনীর হয়ে খেলতে এসেছিলেন। এরপর ১৯৯৪ সালে মোহামেডানের হয়ে খেলতে আসেন নাইজেরিয়ান বিশ্বকাপ খেলা ফুটবলার এমেকা ইজিউগো। বাংলাদেশের পেশাদার লিগে এবার আসছেন কোস্টারিকার হয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপ মাতানো দানিয়েল কলিন্দ্রেস। নবাগত বসুন্ধরা কিংসের হয়ে মাঠ মাতাবেন এই স্ট্রাইকার।

এছাড়াও এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনের নীতিমালা অনুসরণ করে বাংলাদেশের পেশাদার লিগের বিদেশি কোটায় কমপক্ষে একজন এশিয়ান খেলোয়াড় নেয়ার প্রক্রিয়া এ আসরেই চাল হবে। সেক্ষেত্রে এশিয়ার খেলোয়াড়দের খুব কাছ থেকে দেখতে এবং কৌশল রপ্ত করতে সুবিধে হবে বাংলাদেশের ফুটবলারদের। বাংলাদেশের ফুটবলে বিদেশি কোচ অনেক এসেছে তবে এবার প্রথমবারের মতো উয়েফা প্রো-লাইসেন্সধারী কোচ স্টুয়ার্ট হল। এছাড়াও প্রতিটি ক্লাবই কোচ নেয়ার ক্ষেত্রে চমক দিচ্ছে। ভালো মানের হাই-প্রোফাইল কোচ দেশে আসলে পরোক্ষভাবে দেশের ফুটবলের উন্নতি হবে, কেননা এই পেশাদার লিগের ফুটবলাররাই দেশের জার্সিতে খেলতে নামে জাতীয় দলের হয়ে।

বাংলাদেশের ফুটবলের আচমকা উত্তরনের আরও বড় একটি কারণ সারা দেশে ফুটবল ছড়িয়ে দেয়া। জাতীয় দলের খেলাগুলো একটা সময় ঢাকা ও চট্টগ্রাম কেন্দ্রিক ছিল, সেখানে বড় বড় আন্তর্জাতিক আসরের ম্যাচ এখন হচ্ছে সিলেট,কক্সবাজার,নীলফামারী সহ বেশ কিছু ভেন্যুতে। এসব ম্যাচে দর্শকদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। মানুষ ধীরে ধীরে আবার ফুটবলে আসক্ত হচ্ছে যা বাংলাদেশের ফুটবলের জন্য অনেক ভালো দিক। বাংলাদেশের নারী অনূর্ধ্ব ১৮ দল সম্প্রতি ভুটান থেকে জিতে নিয়ে এসেছে সাফ অনূর্ধ্ব ১৮’র ট্রফি,পুরুষ দল সম্প্রতি বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের সেমিফাইনালে পৌঁছায় যদিও দলটি সেমিফাইনালে শক্তিশালী ফিলিস্তিনের কাছে হেরে বিদায় নেয় তবে মাঠের পারফরম্যান্স প্রশংসা আদায় করে নিচ্ছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
নভেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া