১৭ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

তারেকের যাবজ্জীবন, বাবর-পিণ্টুসহ ১৯ জনের ফাঁসি

 একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় ১৯ জনের ফাঁসির আদেশ এসেছে। এদের মধ্যে আছেন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিণ্টু। অন্যদিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানের।

এই মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে আরও ১৮ জনের, যাদের মধ্যে আছেন বিএনপির সংসদ সদস্য কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসাইন কায়কোবাদ, প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে বেগম খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী।

এই মামলায় মোট আসামি ছিলেন ৫২ জন। এদের মধ্যে জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদ মানবতাবিরোধী অপরাধে এবং জঙ্গি নেতা মুফতি আবদুল হান্নান এবং বিপুল যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর ওপর গ্রেনেড হামলা মামলায় ফাঁসির দড়িতে ঝুলেছেন।

বাকি ৪৯ জনের কেউই নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে পারেননি। এর মধ্যে ৩৮ জনের সর্বোচ্চ সাজা এবং বাকি ১১ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড হয়েছে। অর্থাৎ কোনো আসামিই নির্দোষ প্রমাণ হননি।

হামলার ১৪ বছর পর বুধবার দুপুরে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে ঢাকার বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক শাহেদ নুরুদ্দীন এই রায় ঘোষণা করেন। তিনি যাদেরকে দণ্ড দিয়েছন তাদের মধ্যে ১৮ জন পলাতক। তাদের বিরুদ্ধে জারি হয়েছে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা।

তবে ১৪ বছরে বিচারিক আদালত থেকে রায় এলেও দণ্ড কার্যকরের জন্য এখন নানা ধাপ রয়ে গেছে। হাইকোর্টে ডেথ রেফানেন্স এবং আপিল শুনানির পর আপিল বিভাগেও আবেদন করার সুযোগ পাবেন আসামিরা। সেখানেও দণ্ডিত হলে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনার সুযোগ আছে।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের জনসভায় শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গ্রেনেড হামলায় নিহত হয় ২৩ জন। আহত হয় কয়েকশ নেতা-কর্মী।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে চালানো ওই হামলা মামলার তদন্তই চলেছে আট বছর। আর ছয় বছর হয়েছে শুনানি।

এর মধ্যে তদন্ত চলেছে মোট তিনটি সরকারের আমলে। এর মধ্যে ২০০৪ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি সরকারের আমলে চালানো তদন্তে হামলাকারীদের বাঁচিয়ে জজ মিয়া নামে নিরীহ একজনকে ফাঁসানোর চেষ্টা হয়।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তদন্ত করে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে মন্ত্রিসভার সদস্য আবদুস সালাম পিণ্টুসহ ২২ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দেয়া হয়, শুরু হয় বিচার।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর অধিকতর তদন্তে আসামি করা হয় তারেক রহমান, বাবর, জামায়াত নেতা মুজাহিদসহ আরও ৩০ জনকে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
ডিসেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« নভেম্বর    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া