১৬ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ১লা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

গ্রেনেড হামলায় তারেক রহমানসহ বিএনপির কেউ জড়িত নন : মির্জা ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক : একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় বিএনপি সরকারই সুষ্ঠু তদন্ত করেছে বলে দাবি করেছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম। বলেছেন, এর পরে যে দুটি তদন্ত হয়েছে, তা উদ্দেশ্য প্রণোদিত।

এই হামলায় তারেক রহমানসহ বিএনপির কেউ জড়িত নন- এটিও ‘হলফ করে’ বলেন ফখরুল।

আলোচিত মামলার রায়ের আগের দিন রাজধানীতে এক আলোচনায় এ কথা বলেন বিএনপি নেতা। শহীদ জেহাদ দিবসে এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে।

গ্রেনেড হামলার ১৪ বছর পর বুধবার রায় ঘোষণা করবে বিচারিক আদালত। আর আগের দিনের এই আলোচনায় ফখরুল বেশিরভাগ কথা বলেছেন এই মামলা নিয়ে। এই রায় নিয়ে বিএনপি আগের দিনই শঙ্কার কথা জানিয়েছে। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান ছাড়াও বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিণ্টু, খালেদা জিয়ার ভাগ্নে সাইফুল ইসলাম ডিউকও এই মামলার আসামি।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের জনসভায় গ্রেনেড হামলা হয়। সে সময়ের বিরোধীদলীয় নেতা শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে এই হামলায় ২৩ জন নিহত হয়, আহত হয় কয়েকশ।

এই হামলার পর বিএনপি শাসনামলে যে তদন্ত হয়, তা নিয়ে প্রশ্ন ছিল শুরু থেকেই। হামলার পর আলামত নষ্ট করা ছাড়াও অপরাধীদেরকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করার অভিযোগ করেছে আওয়ামী লীগ।

সে সময় যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআইকে দেশে আনা হলেও সে সময় তারা অসহযোগিতার কারণে সরকারের ওপর বিরক্তি প্রকাশ করে দেশ ছাড়ে।

জোট সরকারের আমলে জজ মিয়া নামে নিরীহ একজনকে প্রধান আসামি করে পুলিশের প্রতিবেদন দেয়া নিয়ে হাস্যরস ছিল শুরু থেকেই। পরে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে প্রকাশ হয়, জজ মিয়াকে আসামি করার বিনিময়ে তার পরিবারকে নিয়মিত মাসোহারা দিত পুলিশ।

তত্ত্বাবধায়কের আমলেই তদন্ত করে জোট সরকারের উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিণ্টু ছাড়াসহ ২২ জনকে আসামি করে বিচার শুরু হয়। পরে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পর অধিকতর তদন্ত করে তারেক রহমান, জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ৩০ জনকে নতুন করে আসামি করা হয়।

এই ৫২ আসামির মধ্যে জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদসহ তিন জনের ফাঁসি কার্যর হয়েছে। বাকি ৪৯ আসামির মধ্যে তারেক রহমান, বাবরসহ অধিকাংশের ফাঁসি চেয়েছে রাষ্ট্রপক্ষ।

ফখরুল বলেন,‘এই হামলার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য সব কাজ করেছিল বিএনপি। মুফতি হান্নানকে বিএনপি গ্রেপ্তার করেছিল। এফবিআইকে তদন্ত করবার জন্য এখানে নিয়ে আসা হয়েছিল।’

পরে তত্ত্বাবধায়ক ও আওয়ামী লীগ আমলে তদন্ত নিয়ে প্রশ্ন তুলেন বিএনপি নেতা। বলেন, ‘যদি সঠিক তদন্ত যদি করা হতো, প্রকৃত দোষীদের যদি খুঁজে বের করা হতো তাহলে আসল সত্য বের হয়ে আসত।’

‘২১ আগস্ট মামলার রায় নিয়ে অনেক কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু কেউ প্রকৃত সত্যটাকে কেউ উদঘাটন করতে যাচ্ছে না।’

‘এই যে ভয়ংকর একটি ঘটনা যার সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া দরকার ছিল। এর আসামিদের খুঁজে বের করে নিয়ে বিচারের ব্যবস্থা করা উচিত ছিল। তা না করে সরকার রাজনৈতিক উদ্দেশে তারেক রহমান, পিণ্টুকে এই ঘটনায় জড়িত করেছে।’

‘আমি হলফ করে বলতে পারি এই ঘটনার সঙ্গে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান,আব্দুস সালাম পিন্টু, লুৎফুজ্জামান বাবরসহ বিএনপির কেউ জড়িত নন।’

এই হামলার পর পরই বিএনপি থেকে বলা হচ্ছিল, আওয়ামী লীগ নিজেই ঘটনা ঘটিয়েছে। শেখ হাসিনা তার ভ্যানিটি ব্যাগে করে গ্রেনেড নিয়ে গেছেন-সংসদে এমন কথাও বলেছেন বিএনপির সংসদ সদস্যরা।

ফখরুল আজও বলেন, এই হামলার সুবিধাভোগী আওয়ামী লীগ। বলেন, ‘এটাকে ইস্যু করে বিএনপিকে ধ্বংস করছে। বিরুদ্ধে কথা বলছি। রাজনৈতিকভাবে তারেক রহমানকে এরসঙ্গে জড়িয়ে দিয়ে এটাই প্রমাণিত হয়েছে সরকার উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তাদেরকে মামলায় জড়িয়েছে।’

ওই ঘটনার পর শেখ হাসিনা তারেক রহমান, আব্দুস সালাম পিন্টু, বিএনপিকে জড়িয়ে কোনো কথা বলেননি বলেও দাবি করেন ফখরুল। বলেন, ‘সাবজেলে যখন তদন্ত কর্মকর্তাকে বলেছিলেন তখনও বিএনপিকে জড়িয়ে কথা বলেননি। তিনি তখন সেনাবাহিনীকে দোষারোপ করেছিলেন যদি মনে থাকে দেখবেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর পুরো পরিস্থিতি পাল্টে গেল। এর মধ্যে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় চার্জশিট দেয়া হয়েছিল তখনও তারেক রহমানের নাম ছিলো না।’

‘৬১ জন সাক্ষী হওয়ার পর তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন করে সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা কাহহারকে চাকরি ফিরিয়ে দিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা করা হলো। তিনি কিশোরগঞ্জ থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তিনি এত বছর পরে মুফতি হান্নানকে ৪১০ দিন রিমান্ডে নির্যাতন করে তারেক রহমানের নাম এখানে নিয়ে আসা হয়েছে।’

হামলার পরই নিন্দা জানিয়েছিলেন দাবি করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘তখনকার প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া তার সফর সংক্ষিপ্ত করে ঢাকায় ফিরে এসে সুধা সদনে শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তখন বলা হলো ওখানে যাওয়া যাবে না কারণ ছাত্রলীগ, যুবলীগ ঘেরাও করে রেখেছে।’

‘এখন একতরফাভাবে বলা হয় আরাফাত রহমান কোকোর মৃত্যুর পর প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে দেখতে গিয়েছিলেন। কিন্তু ‍ঢুকতে দেয়া হয়নি। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পর সেদিন শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে বেগম খালেদা জিয়া যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তাকে যেতে দেয়া হয়নি।’

পেনশন নিয়ে নতুন সিদ্ধান্তের সমালোচনা –

এ সময় তিনি শতভাগ পেনশন তুলে নেয়া সরকারি কর্মকর্তাদেরকে ১৫ বছর পর আবার পেনশন দিতে সরকারি সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেন। বলেন, ‘সরকারের জনগণের দরকার নেই। তাদের প্রয়োজন আমলা, পুলিশ, বন্দুকধারী, সরকারি লোকজন।’

‘আগে নির্বাচনে ব্যাংক কর্মকর্তা, শিক্ষকদের দেখতাম প্রিজাইডিং কর্তকর্তা হতেন। কিন্তু এখন শুনছি সরকারি কর্মকর্তারা এই দায়িত্ব পালন করবেন। কারণ তারা সরকারের নির্দেশের বাইরে যেতে পারবে না।’

শেখ হাসিনা গত ১০ বছরে সবাইকে অসুস্থ করে ফেলেছে বলেও দাবি করেন ফখরুল। বলেন, ‘বর্তমানে যে অবস্থা চলছে এটা ধারণার বাইরে। যারা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াই করেছি, মুক্তিযুদ্ধ করেছি, স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করেছি তারা এমন পরিস্থিতি দেখিনি। ভয়াবহ অবস্থা। আমরা ফ্যাসিবাদের কথা বইয়ে পড়েছি এখন দেখছি, উপলদ্ধি করছি, অনুভব করছি।’

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে ও নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিম উদ্দিন আলমের পরিচালনায় স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী প্রমুখ।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া