১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

রাজনীতির ঘোড়দৌড়

বিভুরঞ্জন সরকার: বাংলাদেশের রাজনীতিতে এক ধরনের ঘোড়দৌড় শুরু হওয়ার লক্ষণ স্পষ্ট হয়ে উঠছে। নানা জন নানা রকম বাজি ধরছেন। মরা ঘোড়া নিয়েও কেউ কেউ রেসে নামার সাহস দেখাচ্ছেন। জাতীয় নির্বাচনের আর বেশিদিন বাকি নেই। মাস চারেকের মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে। কেউ প্রকাশ্যে, কেউ গোপনে প্রস্তুতি শুরু করেছেন। কেউ ক্ষমতায় থাকার জন্য, কেউ ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য। জনসমর্থন যার শূন্যের কোটায় তিনিও স্বপ্ন দেখছেন নির্বাচনে অংশ গ্রহণের। কেউ আবার তালেগোলে হরিবল করা যায় কি না, অর্থাৎ নানা কায়দাকানুন করে নির্বাচনটা ভন্ডুল করে ‘বিশেষ ব্যবস্থা’য় সরকারে যাওয়া যায় কিনা সে জন্য প্রভাবশালী নানা মহলে ধরনা দিতে শুরু করেছেন। অর্থাৎ গাছে যেহেতু কাঁঠাল দেখা দিয়েছে, তখন গোঁফে তেল দিতে আর অসুবিধা কি!

বাংলাদশে একটি কথা চালু আছে : পাতা বড় পাতলে কি হবে, দেনেওয়ালার বরাদ্দ আছে। অর্থাৎ দাওয়াত বাড়িতে খেতে বসে বড় পাতা নিয়ে বসলেই বেশি খাবার পরিবেশন করা হয় না। যিনি পরিবেশন করেন তিনি তার মাপ মতোই সবার পাত্রে পরিবেশন করেন। আসন্ন নির্বাচনে কোন দলের ভাগ্যে ক্ষমতার শিকে ছিড়বে তা এখনই নিশ্চিত করে বলা যায় না। মানুষ সব কিছু দেখেশুনেই সিদ্ধান্ত নেবে। রাজনৈতিক দলের বর্তমানটাই শুধু বিবেচনায় আসবে সেটা মনে করার কারণ নেই। অতীতটাও মানুষ ভুলবে না। গ্রেনেড মেরে বিরোধীদল নিশ্চিহ্ন করতে যারা চায় তাদের মুখে গণতন্ত্রের মায়া কান্নায় মানুষ ভুলবে কি?

প্রতিদ্বন্দ্বী রাজনৈতিক দলগুলো পাতা বিছাবে, সাধারণ মানুষ তাতে খয়রাত দেবে। ভোটকে আমাদের দেশে সাধারণত ভিক্ষার সঙ্গে তুলনা করা হয়। সব ভিক্ষুক সমান ভিক্ষা পায় না। কারো প্রতি দাতার একটু দয়া বেশি হয়, সে একটু বেশি পেয়ে যায় আবার কারো প্রতি করুণা কম হলে তার পাত্র অপূর্ণ থাকে।

একাদশ সংসদ নির্বাচনের ফলাফল কি হবে তার পূর্বাভাস এখনই দেওয়া কঠিন। আগামী দু’তিন মাসে দেশে অনেক কিছু ঘটবে। নতুন রাজনৈতিক মেরুকরণ ঘটবে। বিশেষ করে ক্ষমতাসীন দল বা জোট এবং ক্ষমতাপ্রত্যাশী দল বা জোটের মধ্যে এক ধরনের টাগ অব ওয়ার শুরু হয়েছে। এ বলে জয় তো আমার হাতের মুঠোয়। ও বলে মানুষকে ভোট কেন্দ্রে যেতে দাও না, বুঝতে পারবে, হাউ মেনি রাইস ইন হাউ মেনি পেডি।

এই তর্কে হাসে অন্তর্জামী। নির্বাচনর ফলাফল এখন অনেক কিছুর ওপর নির্ভর করে। আর গণনারায়নের মনোভাব আগে থেকে আন্দাজ করা আরো কঠিন। আমাদের ভোট কি শুধু আমাদের সরকার, আমাদের নির্বাচন কমিশনের ওপর নির্ভর করে? বহিঃশক্তির প্রভাবপ্রতিপত্তির কি কোনোই ভূমিকা নেই? আওয়ামী লীগ ক্ষমতা থেকে বিদায় নেওয়ার জন্য নিশ্চয়ই নির্বাচন করবে না। আবার খালেদা জিয়াও ক্ষমতায় না যাওয়ার বাইরে কিছু ভাবছেন না। প্রশ্ন উঠছে জামায়াতের ভূমিকা নিয়ে। বিএনপি কি জামায়াতকে বাদ দিয়ে বৃহত্তর ঐক্য করবে? জামায়াত বিষয়টিকে কীভাবে দেখবে? রাজনীতি এখন নীতিনির্ভর নেই। ক্ষমতাই যেখানে এখন রাজনীতির শেষ কথা হয়ে দাঁড়িয়েছে, সেখানে চারমাস আগে কি বলা সম্ভব আগামী নির্বাচনে কার হাসি কে হাসবে?

তবে দৌড়ঝাঁপ যেভাবে শুরু হয়েছে তাতে এটা বলা যায় যে, খেলাটা হয়তো একতরফা হবে না। -আমাদেরসময় ডটকম অবলম্বনে

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
ডিসেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« নভেম্বর    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া