২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

ব্যাংক খাতের ‘বোঝা’ সরাতে টাস্কফোর্স চায় এফবিসিআই

নিজস্ব প্রতিবেদক : খেলাপি ঋণকে ব্যাংক খাতের জন্য একটি দুর্বিষহ বোঝা আখ্যায়িত করে এই সমস্যার সমাধানে একটি উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব দিয়েছে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই।

সোমবার মতিঝিলের এফবিসিসিআই ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন এই প্রস্তাব দেন।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, টাস্কফোর্স খেলাপি ঋণ সমস্যার মূল কারণ চিহ্নিত করে তা সমাধানে সুপারিশ করবে। তাদের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে এই সমস্যার সমাধানে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে সরকারের প্রতি দাবি জানান তিনি।

শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, দেশে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিতকরণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবসময়ই উদ্যোগী। ব্যাংকের সুদের হার একক অংকে নামিয়ে আনার দাবি জানিয়েছিলাম আমরা। এরই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় অর্থমন্ত্রী বাণিজ্যিক ব্যাংকসমূহের ব্যাংকের সুদের হার একক অংকে নামিয়ে আনেন, যা গত ১ জুলাই থেকে কার্যকর হয়েছে।

যেসব ব্যাংক এখনও তাদের সুদের হার একক অংকে নামিয়ে আনতে পারেনি তাদেরকে অবিলম্বে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মেনে সুদের হার একক অংকে নামিয়ে আনার দাবি জানান ব্যবসায়ী এই নেতা।

শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড আন্তর্জাতিক মহলে দারুণভাবে প্রসংশিত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর বলিষ্ঠ ও দূরদৃষ্টিসম্পন্ন নেতৃত্বে বাংলাদেশে আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি অর্জন এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের কাতারে শামিল হবে বলে আশা করি।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, ব্যাংক ও আর্থিক খাতে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে একটি স্বাধীন ব্যাংক কমিশন গঠনের বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত প্রক্রিয়াধীন। আশা করি এটা বাস্তবায়ন হলে আমরা ব্যবসায়ীরা অনেক উপকৃত হবো।

অনুষ্ঠানে প্রশ্নোত্তর পর্বে কতগুলো ব্যাংক এখনও সুদের একক নীতি অনুসরণ করেনি জানতে চাওয়া হলে শফিউল ইসলাম বলেন, এ ব্যাপারে আমার কাছে তেমন কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য নেই। তবে ইসলামী ব্যাংক সর্বপ্রথম সুদের হার কমিয়ে আনে বলে নিশ্চিত হই।

বর্তমানে ব্যাংকিং সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে কি না জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমরা এখনো এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করছি না। তবে কিছুটা ব্যাংকিং সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। কারণ সরকার ইতোমধ্যে ট্রাফিক জ্যাম কিছুটা কমাতে পেরেছে, যেটা আমাদের ব্যবসা পরিচালনার ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। তাছাড়া পায়রা সমুদ্রবন্দর পুরোপুরি চালু হলে পণ্য পরিবহনের ব্যয় অনেকটা কমে আসবে। এতে ব্যবসার জন্য আরও সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টি হবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া