২০শে জুলাই, ২০১৮ ইং | ৫ই শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

পুঁজিবাজারে অস্বস্তি

ডেস্ক রিপাের্ট : ২০১০ সালের ধসেও যে ঘটনা ঘটেনি, সেটিই এবার ঘটেছে দেশের পুঁজিবাজারে। টানা ১২ কার্যদিবস পতন হয়েছে মূল্য সূচকের। সেই সঙ্গে প্রতিদিনই কমছে বাজার মূলধন। এতে অনেকটাই দিশেহারা হয়ে পড়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা।

প্রতিদিন শেয়ারবাজারের পতনে কমেই চলেছে কোম্পানির শেয়ারের দাম। কেনা দামের চেয়ে অনেক নিচে নামায় ক্ষতির মুখে বিনিয়োগকারীরা।

টানা ১২ দিনের পতনে পুঁজিবাজারের মূলধন কমেছে প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা। আর সূচক কমেছে ৩৭০ পয়েন্ট।

এই পরিস্থিতিতে সম্প্রতি নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন-এসইসির এর আয়োজনে বাজার পরিস্থিতি নিয়ে হতাশা জনিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বিনিয়োগকারীদের ব্যাংক থেকে পুঁজিবাজার থেকে টাকা তোলার পরামর্শ দেয়া হলেও বাজার দুর্বল বলে আক্ষেপ তার।

আগামী অর্থ বছরের বাজেটে পুঁজিবাজারের জন্য নীতি সহায়তা থাকবে জানিয়ে বাজেটের পর বাজার সংশ্লিষ্টদের নিয়ে বসার কথাও জানিয়েছেন মন্ত্রী।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত ২৬ এপ্রিল থেকে একটানা পতনের মুখে পুঁজিবাজার। গত বৃহস্পতিবারও পুঁজিবাজারে বড় দরপতন হয়েছে। বিক্রির চাপে কমছে শেয়ারের দাম। কোনো কোনো কোম্পানির শেয়ারের দাম এক-তৃতীয়াংশও কমেছে। বৃহৎ মূলধনী কোম্পানিতেও নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পুঁজিবাজারে বেসরকারি ব্যাংকের মূলধন অনেক বেশি। ব্যাংকগুলোর ২০১৭ সালে লভ্যাংশ কমেছে। কোনো কোনো ব্যাংক নগদ অর্থ জমা রেখে শুধু বোনাস শেয়ার ইস্যু করেছে। আবার গত বছরের প্রথম প্রান্তিকের তুলনায় এবার প্রথম প্রান্তিকে বেশিরভাগ ব্যাংকের মুনাফা কমেছে। এতে ব্যাংক খাতের শেয়ারে বিক্রির চাপ বেড়ে গেছে। ফলে বাজারে দরপতনে বড় প্রভাব পড়েছে।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, পতনের কবল থেকে কোনো খাতই রক্ষা পায়নি। গত বৃহস্পতিবার ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ২৯৯ কোম্পানির শেয়ারের মধ্যে ২৬৬টিই দর হারিয়েছে।

টানা ১২ দিনের পতনে প্রতিদিন গড়ে প্রায় এক হাজার ৪৩৩ কোটি টাকার বেশি মূলধন হারিয়েছে। সব মিলিয়ে সেটি ১৭ হাজার কোটি টাকার বেশি।

কেউ শেয়ার বিক্রি করে চলে গেছে আবার কেউ বাজার পর্যবেক্ষণ করছে। গত ২৬ এপ্রিল বাজার মূলধন ছিল চার লাখ চার হাজার ৬৬৭ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। এখন সেটি দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৮৭ হাজার ৪৬৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা।

এই সময়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে সূচক কমেছে ৩৭০ পয়েন্ট। সেই হিসাবে প্রতিদিনই ৩০ পয়েন্টের বেশি সূচক কমেছে। পাশাপাশি প্রতিদিন বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে।

গত ২৬ এপ্রিল ডিএসইর প্রধান সূচক ছিল পাঁচ হাজার ৮১৩ পয়েন্ট। সর্বশেষ গতকাল বৃহস্পতিবার এই সূচক কমে দাঁড়িয়েছে পাঁচ হাজার ৪৪৩ পয়েন্ট।

ডিএসই ব্রোকারস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোস্তাক আহমেদ বলেন, ‘শেয়ারবাজারে তারল্য সংকট দেখা দিয়েছে। ব্যাংক, বিমা ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর লভ্যাংশ ভালো না হওয়ায় বাজারে শেয়ার বিক্রির চাপ বেড়ে গেছে। মূলত সে জন্যই বাজারে নেতিবাচক অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।’

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের রেকর্ড বলে গত ১০ বছরে এর আগে টানা ১২ কার্য দিবস এইভাবে ঋণাত্মক ছিল না।

মোস্তাক আহমেদ বলেন, ‘সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হচ্ছে, এই গত ১৪ মে মাসের কৌশলগত বিনিয়োগকারী হিসেবে চীনা কনসোর্টিয়াম শেনঝেন ও সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জের সাথে চুক্তি করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। এতে পুঁজিবাজার আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত হবে, বাজারের জন্য খুবই ইতিবাচক। কিন্তু এতো ভালো একটি খবরও বাজারকে একদিনের জন্যও পজেটিভ করতে পারেনি। যা বিনিয়োগকারীদের অবাক করে দিয়েছে।’

‘বাজারের এই আচরণ যে মোটেও স্বাভাবিক নয় তা বোধকরি বাজারের সাথে সম্পৃক্ত আছে এমন সবাই বুঝতে পারবে। একটি কথা মাথায় রাখতে হবে, অস্বাভাবিক কোনো কিছুই বেশিদিন স্থায়ী হয় না। কিছুদিনের মধ্যেই তাকে স্বাভাবিক আচরণে ফিওে আসতে হয়। তাই আশা করছি, আগামী কিছু দিনের মধ্যেই বাজার তার স্বাভাবিক আচরণে ফিরে আসবে।’

ডিএসইর এক শীর্ষ ব্রোকারেজ হাউসের এমডি নাম প্রকাশ না না করার শর্তে বলেন, ‘সুখবরেও শেয়ারবাজার উন্নতির লক্ষণ নেই। সবাই শেয়ার বিক্রি করছে। আর বিক্রির চাপে পতনও দীর্ঘায়িত হচ্ছে। কোনো একটি গোষ্ঠী দাবি আদায়ে পরিকল্পনা মাফিক শেয়ারবাজারকে ফেলে দিচ্ছে। বাজারের উন্নয়নে নিয়ন্ত্রক সংস্থার কঠোর নজরদারি বাড়ানো প্রয়োজন।’

২০১০ সালের মহাধসের পর বাজারে কিছুটা স্বস্তি আসতে শুরু করে ২০১৬ সালের শেষ দিক থেকে। আর ২০১৭ সালের প্রায় পুরোটা সময় বাজারে ছিল তেজী ভাব। এই সময়ে মূল্যসূচক এক হাজার ২০০ পয়েন্টের বেশি বাড়ে। কিন্তু ২০১৭ সালের শেষ দিক থেকেই বাজারে নেতিবাচক পরিস্থিতি তৈরি হয়।

গত মার্চ মাসে সূচক সাড়ে পাঁচ হাজারের নিচে নেমে এসেছিল। বিভিন্ন মার্চেন্ট ব্যাংক ও সিকিউরিটি হাউজের সিইওরা তখন বলেছিলেন এর নিচে সূচক নামবে না। সেই থেকেই সূচক ঊর্ধ্বমুখী পানে ছুটতে থাকে। এক পর্যায় সূচক ৫ হাজার ৮০০ পয়েন্ট ছাড়িয়ে ফের পতনের সুর নেয় শেয়ার বাজার।

সপ্তাহ জুড়ে অধিকাংশ খাতের দরপতন –

বিদায়ী সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে দও কমেছে ১৯ খাতে। অন্যদিকে দাম বেড়েছে একমাত্র খাদ্য-আনুসঙ্গিক খাতে। এই খাতে দশমিক ৭৮ শতাংশ দর বেড়েছে।

আলোচ্য সপ্তাহেসবচেয়ে বেশি দরকমেছে সেবা-আবাসনখাতে। এই খাতে ৬.১৭ শতাংশ দও কমেছে। এরপরে টেলিকমিউনিকেশন খাতে ৪ দশমিক ১৮ শতাংশ দরকমেছে।

অন্য খাতগুলোর মধ্যে ব্যাংক খাতে ৩ দশমিক ৪৩ শতাংশ, সিমেন্ট খাতে ২.৯২ শতাংশ, সিরামিক খাতে ১ দশমিক ৫৩ শতাংশ, প্রকৌশল খাতে ১.৮৮ শতাংশ, জ্বালানি-বিদ্যুৎ খাতে দশমিক ১৯ শতাংশ, সাধারণ বিমা খাতে দশমিক ৫৬ শতাংশ, জীবন বিমা খাতে ৩ দশমিক ২৩ শতাংশ দও কমেছে। এছাড়া আইটি খাতে ৩.২৬ শতাংশ, পাট খাতে ৩.৬৪ শতাংশ, বিবিধ খাতে ২.৪৫ শতাংশ, মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতে ১ দশমিক ৪৫ শতাংশ, আর্থিক খাতে ২ দশমিক ২১ শতাংশ ও কাগজখাতে ১.৮৫ শতাংশ দও কমেছে।

ওষুধ-রসায়ন খাতে ১.৬০ শতাংশ, ট্যানারি খাতে দশমিক ৮০ শতাংশ, বস্ত্র খাতে ৩.৩০ শতাংশ দর কমেছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া