১৬ই আগস্ট, ২০১৮ ইং | ১লা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

গাজীপুর সিটি নির্বাচন ২৮ ‍জুনের মধ্যে করার নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক : আগামী ২৮ জুনের মধ্যে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন করার নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ। তাছাড়া নির্বাচন স্থগিত করে হাইকোর্টের দেয়া আদেশের বিরুদ্ধে স্থগিতাদেশও দিয়েছেন সর্বোচ্চ আদালত। আইনজীবীদের মতে, এই আদেশের ফলে যে কোন দিন নির্বাচন করতে পারবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এমনকি ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী সম্ভব হলে আগামী ১৫ মে তারিখেও নির্বাচন করতে পারবে ইসি। তবে যেদিনই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হোক না কেন, তা ২৮ জুনের মধ্যেই করতে হবে। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন পূর্ণাঙ্গ আপিল বেঞ্চে আজ বৃহস্পতিবার এই আদেশ দেন।

এর আগে সকালে শুনানি শুরু হয়। এরপর আদালত শুনানি সাড়ে ১১টা পর্যন্ত মুলতবি রাখেন। মুলতবির পর আরো শুনানি নিয়ে এই আদেশ দেন আদালত।

শুনানিতে আজ রিটকারীর আইনজীবী রোকনউদ্দিন মাহমুদ শুনানি করেন।

অন্যতম আপিলকারী ও বিএনপির মেয়রপ্রার্থী হাসান সরকারের পক্ষে শুনানি করেন জয়নুল আবেদীন।

আরেক আপিলকারী ও আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থীর পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী শফিকুল ইসলাম বাবুল।

আর ইসির পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ওমর ফারুক মোস্তাফা।

প্রসঙ্গত, গত ৬ মে সীমানা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে গাজীপুর সিটি নির্বাচন ৩ মাসের জন্য স্থগিত করেন হাইকোর্ট।

একই সঙ্গে সাভারের শিমুলিয়া ইউনিয়নের ছয়টি মৌজাকে গাজীপুর সিটি করপোরেশনে অন্তর্ভুক্ত করা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না- এ মর্মে রুলও জারি করেন আদালত।

এরপর সিটি করপোরেশন নির্বাচন স্থগিতের বিরুদ্ধে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী ও আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থী আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় আবেদন করেন।

এর আগে মঙ্গলবার গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে হাইকোর্টের স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে আপিল শুনানির জন্য বুধবার দিন ধার্য করেন চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

চেম্বার আদালতে রিটকারীর পক্ষে রোকন উদ্দিন মাহমুদ, বিএনপির মেয়রপ্রার্থীর পক্ষে মওদুদ আহমদ, জয়নুল আবেদীন, মাহবুব উদ্দিন খোকন শুনানি করেন।

উল্লেখ্য, আদালতে ৬ এপ্রিল রিট আবেদনটি দায়ের করেন সাভার উপজেলার আশুলিয়া থানার শিমুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এ বি এম আজহারুল ইসলাম সুরুজ। ৫৭টি সাধারণ ও ১৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড নিয়ে গাজীপুর সিটি করপোরেশন গঠিত। এখানে ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৬৪ হাজার ৪২৫ জন। গত ৪ মার্চ সিটি করপোরেশনের সীমানা নিয়ে গেজেট জারি হয়। যেখানে শিমুলিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ বড়বাড়ী, ডোমনা, শিবরামপুর, পশ্চিম পানিশাইল, পানিশাইল ও ডোমনাগকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

রিটের পক্ষে আইনজীবী জানান, ২০১৩ সালে এ ছয়টি মৌজাকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। তখন বিষয়টি নিয়ে এ বি এম আজহারুল ইসলাম সুরুজ আবেদন করেন। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ গ্রাহ্য না করায় হাইকোর্টে রিট করার পর আদালত আবেদনটি পুনর্বিবেচনা করতে নির্দেশ দেয়।

এর মধ্যে ২০১৬ সালে শিমুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হয়। ওই নির্বাচনে এ ছয়টি মৌজা শিমুলিয়ার মধ্যেই ছিল। নির্বাচনে আজহারুল ইসলাম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এখন আবার এ ছয় মৌজাকে সিটিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। যেহেতু তিনি ছয়টি মৌজার ভোটেও নির্বাচিত হয়েছিলেন। তাই এ ছয়টি মৌজাকে সিটিতে অন্তর্ভুক্ত করার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করেন। রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আদালত ওই আদেশ দেন।

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচন আগামী ১৫ মে হওয়ার কথা ছিল।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া