১৮ই জুলাই, ২০১৮ ইং | ৩রা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

প্রধানমন্ত্রীর সাথে মেলবোর্ন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের সাক্ষাৎ

ডঃ মাহবুব আলম/মোল্লা রশিদুল হক, মেলবোর্ন, অস্ট্রেলিয়াঃ   গত ২৭ শে এপ্রিল (শুক্রবার) ২০১৮ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা গ্লোবাল সামিট অন ওম্যান সন্মেলনে “গ্লোবাল উইমেন্স লিডারশিপ এ্যাওয়ার্ড” গ্রহন করার জন্য তিন দিনের  এক সংক্ষিপ্ত সফরকালে অষ্ট্রেলিয়ার সিডনী আসলে মেলবোর্ন আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ তাঁর সাথে গত ২৯ শে এপ্রিল (রবিবার) সাক্ষাত করেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,  মাননীয় পররাস্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদের উপস্থিতিতে অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও বঙ্গবন্ধু কাউন্সিলের প্রধান নেতৃবৃন্দ সেখানে উপস্থিত ছিলেনমেলবোর্ন আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মেলবোর্ন আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ড. মাহবুব আলম ও দায়িত্বশীল সাধারন সম্পাদক মোল্লা মোঃ রাশিদুল হক।মেলবোর্ন আওয়ামীলীগের সাক্ষাত পর্যায়ে ড. মাহবুব আলম তার পরিচয় দিয়ে বক্তব্য শুরু করেন। তিনি প্রথমেই প্রধানমন্ত্রীকে মেলবোর্নবাসীর পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন যে, আপনাকে শুভেচ্ছা জানানোর জন্য আমরা ২০-২৫ জন বাংলাদেশী মেলবোর্ন থেকে এসেছি। আপনি আমাদের শুভেচ্ছা গ্রহন করুন।এরপর তিনি মেলবোর্নে ২০১২ সালে আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠার প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন। তিনি বলেন, আপনার সরকার যখন যুদ্ধাপরাধীর বিচার প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছিল তখন অন্যান্য দেশের মত অষ্ট্রেলিয়াতেও যুদ্ধাপরাধীর বিচারের বিপক্ষে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীরা প্রচার-প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছিল। তখন আপনার সরকারকে সমর্থন দেয়ার জন্য আমরা মেলবোর্নে  আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠা করি। যদিও প্রায় ৪০ বছর যাবত বাংলাদেশীরা মেলবোর্নে বসবাস করে আসছে, কিন্তু ২০১৪ সালে আমরা প্রথমবারের মত বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত (শোক) দিবস পালন করি, ঐসময়  যমুনা টিভিতে বঙ্গবন্ধুর  শাহাদাত বার্ষিকীর উপর একটা প্রতিবেদন প্রচারিত হয়।ড.মাহবুব আলম আরও বলেন যে এখানে আমরা অন্যান্য বাংলাদেশীদেরকে নিয়ে একটি বাংলা স্কুল প্রতিষ্ঠা করেছি। স্কুলে আমরা আমাদের ছেলে-মেয়েদেরকে বাংলা ভাষা শিখাচ্ছি। সেই সাথে আমাদের সংস্কৃতি, আমাদের স্বাধীনতার ইতিহাস শিখিয়ে যাচ্ছি, যাতে আমাদের ছেলে-মেয়েরা আমাদের দেশকে জানতে পারে। বাংলাদেশের মেইনস্ট্রীম মিডিয়ায় এর উপর একটি প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়েছে।ড. আলম বলেন আমি বর্তমানে একটী ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে পড়াচ্ছি ও স্টেট গভর্নমেন্টে জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সিস্টেম (জি আই এস) বিশেষজ্ঞ হিসাবে কাজ করছি। আমি একটি পলিটেকনিক কলেজ প্রতিষ্ঠা করার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি এবং তার শাখা বাংলাদেশে খুলতে চাই যাতে আমাদের ছেলেমেয়ের বাংলাদেশে থেকে অষ্ট্রেলিয়ার উন্নত শিক্ষা গ্রহন করতে পারেওড. আলম বলেন যে এখানে আমাদের দায়িত্বশীল সাধারন সম্পাদক মোল্লা মোঃ রাশিদুল হক আছেন। তিনি মেলবোর্ন ইউনিভারসিটির একজন রিসার্চ ফেলো ও মোনাশ ইউনিভেরসিটির একজন লেকচারার। তিনি নিশ্চয়ই তার কথা বলবেন। আপনি আমাদের জন্য দোয়া করবেন। এ বলেই ড. মাহবুব আলম তার বক্তব্য শেষ করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে ড. আলমের বক্তব্য়ের উপর নোট নিতে দেখা যায়।

এখানে উল্লেক্ষ্য যে, ড.মাহবুব আলম বাংলাদেশের টাঙ্গাইল জেলার মধুপুর উপজেলার বাসিন্দা। তিনি ২০০১ সাল থেকে অষ্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন বসবাস করছেন। তিনি বর্তমানে জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সিস্টেম (জি আই এস) বিশেষজ্ঞ হিসাবে ভিক্টোরিয়া প্রাদেশিক সরকারে কর্মরত আছেন। তিনি মেলবোর্ন ইউনিভারসিটি ও সানশাইন কোস্ট ইউনিভারসিটির একজন প্রাক্তন রিসার্চ ফেলো।

এরপর মেলবোর্ন আওয়ামীলীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক মোল্লা মোঃ রাশিদুল হক তার বক্তব্য তুলে ধরেন। নিজের পরিচয় দেয়ার সময় তিনি বলেন যে অস্ট্রেলিয়াতে   দুটো বিশ্ববিদ্যালয়ে কাজ করা ছাড়াও আরও বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে জড়িত আছেন।  তাঁর বাবা – চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি যাকে নেত্রী “চাঁদপুরের প্রফেসর” নামে চিনতেন তাঁর পরিচয় দেন ও নেত্রীকে ফুপু বলে সম্বোধন করেন (উনি মাথা নেড়ে অনুমতি দেন)। তিনি ১৯৯৬ সালে নেত্রীর সাথে উনার প্রথম দেখার স্মৃতিচারন করেন (নেত্রী মাথা নেড়ে জানান যে উনার তা মনে পড়েছে)

এরপর তিনি বলেন, আমাদের নিজেদের মধ্যে দলাদলি বন্ধ করে কিভাবে আওয়ামী লীগ সরকারকে আসন্ন নির্বাচনে জয়ী করা যায় সেই প্রচেস্টা চালিয়ে যাওয়া উচিত। যেখানে বিরোধী দলগুলো এক হয়ে আমাদের বিরুদ্ধে কাজ করছে, সেখানে আমরা কেনো এতভাবে বিভক্ত? তার কথায় উপস্থিত অনেকেই হাত তালি দিয়ে তা স্বাগত জানান।

তিনি আরও বলেন, ১৯৭৫ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ২১ বছরে বাংলাদেশে বিশাল “তথ্য সন্ত্রাস” হয় এবং এতে প্রায় দুই জেনারেশনের ব্রেইন ওয়াশ হয়,  আমাদের উচিত আমরা কিভাবে তাদের সঠিক পথে ফিরিয়ে আনতে পারি সে লক্ষ্যে কাজ করা। তিনি বলেন, গত ফেব্রুয়ারি মাসে ঢাকায় তার সাথে সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের আহবায়ক প্রফেসর মুহাম্মদ এ আরাফাত ভাইয়ের সাথে দেখা হলে উনার সাথে আমাদের কাজ করার প্রত্যয় ব্যাক্ত করেন। জয় ভাই ও ববি ভাইয়ের গবেষণা ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান (যেমনঃ সি আর আই, ইয়ং বাংলা) গুলোতে আমরা কিভাবে কন্ট্রিবিউট করতে পারি সেখানে আমাদের মনোনিবেশ করা দরকার। সোশ্যাল মিডিয়ায় বিরোধী দলগুলোর প্রপাগান্ডায় যেন মানুষ বিভ্রান্ত না হয়, আমরা যাতে সেদিকে সজাগ থাকি। তিনি আরও বলেন, আগামী নির্বাচনে কিভাবে আমরা (প্রবাসীরা) স্ব স্ব এলাকায় বা কেন্দ্রে সহযোগিতা করতে পারি তাঁর জন্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বা আন্তর্জাতিক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদের সহায়তা কামনা করেন।

মোল্লা হকের কথা শেষ হলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী  ও জননেত্রী শেখ হাসিনা তার সাথে একমত পোষণ করেন ও তার বক্তব্যের উপর বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেন। প্রধানমন্ত্রী  বলেন, ২১ বছরের তথ্য সন্ত্রাসে অনেকেই প্রভাবিত। এমনকি যাদের বয়স ৫০-৫৫ তারাও বাংলাদেশের সঠিক ইতিহাস জানে না। তাদের কাছে আমাদের সঠিক ইতিহাস পৌঁছে দিতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ডিটিজাল বাংলাদেশ গড়ি আমরা আর তা ব্যবহার করে বিরোধী দলগুলো আমাদের বিরুদ্ধে প্রোপাগান্ডা চালায় । তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় আমাদের পদচারনা বাড়াতে হবে। তারা বিভ্রান্তিমূলক পোস্ট দিলে আমাদেরকে তাদের মুখোশ উন্মোচন করে দিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সি আর আই কিভাবে গঠন করলেন ও কিভাবে তা নিয়ন্ত্রন করেন এবং ইয়ং বাংলা’র বিভিন্ন কাজ (যেমনঃ জয় বাংলা কনসার্ট) তুলে ধরেন। তিনি আমাদের সবাইকে একযোগে দলের ও সরকারের সাহায্যে এগিয়ে আসতে আহবান করেন। প্রধানমন্ত্রী সবার উদ্দেশ্যে বলেন যে তিনি নিজে অষ্ট্রেলিয়াতে আওয়ামীলীগের কমিটির অনুমোদন দিলেই কেবল তা গ্রহনযোগ্য হবে। আমরা যেন অন্য কারো দ্বারা কোনভাবে প্রভাবিত বা বিভ্রান্ত না হই।

বক্তব্যের সময় ও কথা বলার ফাঁকে প্রধানমন্ত্রীকে মোল্লা হকের বক্তব্যের উপর নোট নিতে দেখা যায়। পরে নেত্রী মোল্লা মোঃ রাশিদুল হকের নাম আরেকবার জিজ্ঞেস করে তা তাঁর নোটবুকে টুকে নেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া