১৮ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৩রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

চলার শক্তি হারিয়ে বসেছেন এশিয়াডে প্রথম পদকজয়ী বক্সার

স্পোর্টস ডেস্ক : কয়েকটি গলি ঘুরে পাওয়া গেল বাড়িটা। খুব সাধারণ। আশপাশের বাড়িগুলোর সঙ্গে মিলেমিশে দাঁড়িয়ে শহরের উপকণ্ঠ তালাইমারিতে। দরজায় ধুলো জমতে জমতে লাল রং বিবর্ণ হতে শুরু করেছে। সেই দরজা দিয়ে বাড়ির ভেতর ঢুকতেই কেমন একটা বিমর্ষ আবহ।

বসার ঘর থেকেই আওয়াজ আসে, ‘আসুন, আছি এ ঘরে। উঠে গিয়ে যে আপনাদের ডেকে এনে বসাব, সে উপায় তো আমার নেই!’ গম্ভীর কণ্ঠ থেকে যেন বেরিয়ে আসে হাহাকারের সুর। কে বলবে এই রাশভারী মানুষটার কথায় একটা সময় গমগম করে উঠত এই বাড়ি! এসব ভাবতে ভাবতেই ভেতরে ঢুকে দেখা গেল, বিছানায় নিশ্চল শুয়ে আছেন মোশাররফ হোসেন। সেই যে বক্সার মোশাররফ! ১৯৮৬? সিউল এশিয়ান গেমস? কিছু মনে পড়ে?

হ্যাঁ, প্রথমবার এশিয়ান গেমসে পদক জয়ের গৌরবে বাংলাদেশ গৌরবান্বিত হতে পেরেছিল তো এই মানুষটার কল্যাণেই। ৮১ কেজি লাইট হেভিওয়েট বিভাগে নেপালি প্রতিপক্ষকে সেমিফাইনালে নকআউট করেছিলেন মাত্র ৩৮ সেকেন্ডে।

৩২ বছর পরও, ব্যক্তিগত ইভেন্টে দেশের একমাত্র পদকজয়ী হয়ে আছেন ১০ বারের জাতীয় চ্যাম্পিয়ন। মোশাররফের নিঃসঙ্গতা কি শুধু এখানেই? আজ যে পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে পড়ে আছেন বিছানায়, সেই লড়াইটাও লড়তে হচ্ছে একা। দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনা সেই মানুষটার চরম দুর্দশার দিনেও খোঁজ নেওয়ার সময় হয়নি বক্সিং ফেডারেশনের।

যুব গেমসের বক্সিং ম্যাচ পরিচালনার জন্য ৯ মার্চ ঢাকায় গিয়েছিলেন। পরের দিন শেষরাতে হঠাৎই হৃদ্রোগে আক্রান্ত হন মোশাররফ হোসেন। সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) দ্রুত ভর্তি করা হয়েছিল বলে রক্ষা। প্রাণে বেঁচে গেছেন। কিন্তু শরীরের বাঁ পাশটা অসাড় হয়ে গেছে। আট দিন সিএমএইচে চিকিৎসা নিয়ে ফেরার বেলায়ও পাননি ফেডারেশনের কোনো সহযোগিতা। বড় আক্ষেপে কথা জড়িয়ে আসে মোশাররফের, ‘আমি তো ফেডারেশনের কাজেই ঢাকা গিয়েছিলাম। সেখানেই অসুস্থ হয়েছি। বাড়ি ফেরার একটা ব্যবস্থা করতে অনুরোধ করেছিলাম ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদককে। বলেছিলেন ব্যবস্থা করবেন। কিন্তু ফেরার দিন ফোন করতেই বললেন, ব্যস্ত আছেন। বাসে করে বহু কষ্টে আমার পরিবার আমাকে রাজশাহীতে নিয়ে এসেছে।’

মোশাররফ হোসেনের বড় সন্তানটি বন্দী হুইলচেয়ারে। সেটার পরোক্ষ কারণও ওই বক্সিং। আফসোস তাই আজ আরও বেশি করে পুড়ায় দেশকে ’৮৫ সাফ সোনা এনে দেওয়া বক্সারকে, ‘আমার ছেলের এই অবস্থার জন্য আমিই দায়ী। বক্সিংও। ওর ছেলেবেলায় তো সারা দেশে ছুটে বেড়াতাম খেলার জন্য। এমনই এক দিনে ডায়রিয়ায় পড়ল ছেলেটা। আমার স্ত্রী ওকে নিয়ে কোথায় ছোটাছুটি করল…। বাড়ি ফিরে দেখলাম, আমার ছেলেটার এই অবস্থা!’

শক্ত-সমর্থ মানুষটার চোখ দুটো লাল হয়ে আসে। পলক ফেললেই জমে থাকা জল ফোঁটা হয়ে ঝরবে। মোশাররফ বলে গেলেন, ‘তবু কোনো আফসোস ছিল না। আমার মেয়েটা ডাক্তার হয়েছে। ওই আমার সবচেয়ে বড় সম্পদ, ভরসা। আমার চিকিৎসা, আমার ফিজিওথেরাপির খরচ, স্ত্রীর চিকিৎসা সব চলছে ওর দায়িত্বে। ফেডারেশনেরও তো কিছু দায়িত্ব ছিল। সাধারণ সম্পাদক কুদ্দুস খান সিএমএইচে এসে একবার দেখেই দায়িত্ব শেষ করে গেছেন। তারপর আর কেউ কোনো খবরও নেয়নি।’

রাজশাহীতে এখন মোশাররফ হোসেনের ফিজিওথেরাপি চলছে। লম্বা সময় ধরে চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়াটাই সবচেয়ে বড় চিন্তা। মাথার কাছে থরে থরে সাজানো জীবনভর জিতে আনা সব ট্রফি। জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কারের সনদসহ আরও কত সম্মাননা স্মারক। সেগুলোও যেন লজ্জায় মাথা নুইয়ে নিচ্ছে, পুরো জাতির প্রতিনিধি হয়ে! এই প্রতিবেদকের সঙ্গে যতক্ষণ কথা বলছিলেন, কারও কাছে একবারও সহযোগিতা চাইলেন না মোশাররফ হোসেন। সত্যিকারের বিজয়ী বোধ হয় একেই বলে! অপরাধবোধকে সঙ্গী করে বিদায় নিয়ে বেরিয়ে আসা হলো ‘চ্যাম্পিয়নের’ বাড়ি থেকে।

এগিয়ে দিতে এলেন মোশাররফের ৪০ বছরের সহচর আলতাফ হোসেন। বক্সিংয়ে জাতীয় চ্যাম্পিয়ন ছিলেন তিনিও। বললেন, ‘এখন যে অবস্থা তাতে সরকার, ফেডারেশন বা ক্রীড়া সংস্থার সহযোগিতা ছাড়া চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া অসম্ভব। সেনাবাহিনীর চাকরি থেকে অবসরের পর সারা জীবনের জমানো সম্বল দিয়ে এই বাড়িটা করেছিল। এটাই আছে। আর আছে মেয়েটা। ওভাবেই চলছে। কিন্তু এভাবে আর কত দিন। মানুষটার দুরবস্থায় দেশেরও তো কিছু করার আছে।’

সে তো আছেই। কিন্তু কে নেবে এই দায়িত্ব? দেশকে হিরণ¥য় স্মৃতির উপলক্ষ গড়ে দেওয়া মানুষটা পড়ে আছেন অসহায়-নিশ্চল। -প্রথমআলো

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া