২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে বিক্ষোভে উত্তাল বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়

ডেস্ক রিপাের্ট : কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করছেন। বুধবার সকাল থেকে তারা মিছিল সভা করছেন। কোথাও কোথাও শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাস থেকে বের হয়ে সড়কে অবস্থান করছেন। এসময় তাদেরকে স্লোগান দিতে দেখা যায়।আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর—

ঢাবি: ক্লাস বর্জন করে কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা রাজু ভাস্কর্যের সামনে অবস্থান নিয়েছেন।

বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে মিছিল সহকারে তারা এখানে জড়ো হয়েছেন। স্লোগানে স্লোগানে উত্তাল হয়ে উঠেছে এলাকা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল ১০টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও নগরীর বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের শিক্ষার্থীরা মিছিল নিয়ে নিজ নিজ ক্যাম্পাস থেকে বের হয়। এসময় তারা মিছিল নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারের সামনে জড়ো হন। তখন তাদেরকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

এরপর কয়েক হাজার শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে মিছিল বের করে। এসময় স্লোগানে স্লোগানে উত্তাল হয়ে উঠে ক্যাম্পাস।

বঙ্গবন্ধুর বাংলায় বৈষম্যের ঠাঁই নাই’, ‘মতিয়ার চামড়া তুলে নেবো আমরা’, ‘হয় কোটা সংস্কার কর, নাই বুকে গুলি করো,’ ইত্যাদি স্লোগান দিতে দিতে মিছিল সহকারে আন্দোরনরত শিক্ষার্থীরা রাজু ভাস্কর্যের সমানে অবস্থান নিয়েছেন।

রাকিব নামের অান্দোলনরত একজন শিক্ষার্থী বলেন, দ্রুত দাবি না মানলে অান্দোলন অারো তীব্র হবে। অান্দোলন চলছে, চলবে।

তিনি আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার নিন্দা জানিয়ে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানান।

এদিকে, সকাল থেকে গ্রীন রোড ও পান্থপথ মোড়ে বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অবস্থান করছেন।

ওইসব এলাকা দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। যার প্রভাবে নগরীতে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ।

বুয়েট: কোটা সংস্কারের দাবিতে রাজপথে নেমেছে বাংলাদেশ প্রকৌশলী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও। কয়েক’শ শিক্ষার্থী দুপুরে মিছিল রাজু ভাস্কর্যের সামনে জড়ো হন। এসময় তারা বিভিন্ন প্লাকার্ড ও ব্যানার বহন কনে।

বুয়েটের শিক্ষার্থী অাদিত বলেন, কোটা কখনই একটা দেশের উন্নতির জন্য সহায়ক হতে পারে না। অবশ্যই এই কোটা পদ্ধতি সংস্কার করতে হবে।

জাবি:
কোটা সংস্কারের দাবিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছে। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় কয়েক হাজার শিক্ষার্থী মিছিল সহকারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে মহাসড়কে অবরোধ করেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, কোনো ধরনের যানবাহন চলাচল করছে না। তবে অ্যাম্বুলেন্স পার করে দিতে দেখা গেছে শিক্ষার্থীদের। বিপুল পরিমাণ পুলিশ মহাসড়কে মোতায়েন রয়েছে। পুলিশ শিক্ষার্থীদের শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করার অনুরোধ করছে।

ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (তদন্ত) সাঈদুর রহমান বলেন, শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান করলে আমরা কোনো অ্যাকশনে যাব না।

জবি:
কোটা সংস্কারের দাবিতে সকল ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে রাস্তায় নেমেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়(জবি) শিক্ষার্থীরা। এতে ক্যাম্পাসে বিরাজ করছে শূন্যতা। বুধবার সকাল থেকে শাখা ছাত্রলীগের বাধায় ক্যাম্পাসে নামতে পারেনি জবি শিক্ষার্থীরা। পরে তারা সকাল সাড়ে ১০টায় তাঁতীবাজার মোড়ে অবস্থান নেয়।

এতে পুরান ঢাকার ঢাকাসহ সদরঘাট, দয়াগঞ্জ, বাবুবাজার, কদমতলীর সাথে গুলিস্তানের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। শিক্ষার্থীরা মুহুর্মুহু স্লোগানে মুখরিত করতে থাকে তাঁতীবাজার মোড় ও তৎসংলগ্ন এলাকা।

আজকের আন্দোলনের বিষয়ে জানতে চাইলে কোতোয়ালী থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, আমরা শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অবজার্ভ করতেছি। আমরা সতর্ক অবস্থানে আছি।

রাবি:
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বুধবার সকাল ১০টা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে মেইন গেটের তালা খুলে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে অবস্থান করতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বাধা দেয়। তবে শিক্ষার্থীদের ক্রমাগত চাপে পড়ে তালা খুলে দিতে বাধ্য হয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বিশৃঙ্খলা এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এ সময় মতিয়ার কালো হাত ভেঙে দাও গুড়িয়ে দাও, ইনুর কালো হাত ভেঙে দাও গুড়িয়ে দাও, বঙ্গবন্ধুর বাংলাই বৈষম্যের ঠাঁই নাই, মুক্তিযোদ্ধার বাংলাই বৈষম্যের ঠাঁই নাই, ম তে মতিয়া তুই রাজাকার তুই রাজাকার, আমার ভাই আহত কেন প্রশাসন জবাব চাই, আমার বোন আহত কেন প্রশাসন জবাব চাই ইত্যাদি স্লোগানের মাধ্যমে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছে তারা।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘অধিকাংশ শিক্ষক-শিক্ষার্থী চায় কোটা ব্যবস্থার সংস্কার হোক।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটা হল থেকে দলে দলে আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন শিক্ষার্থীরা।

মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়:
কোটা পদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে মাথায় কালো কাপড় বেঁধে বিক্ষোভ মিছিল করেছে টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীরা। বুধবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের সামনে থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম গেটে এসে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়।

বক্তরা বলেন, সরকারি চাকরিতে ৫৬ শতাংশ থেকে কোটা কমিয়ে ১০ শতাংশে নিয়ে আসতে হবে। এই ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলছে, চলবে।

ইবি:

কোটা সংস্কারের দাবিতে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করেছেন। বুধবার বেলা ১১টা থেকে ক্যাম্পাসে মিছিল বের করেন শিক্ষার্থীরা। মিছিলটি ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ শুরু করেছে। আন্দোলনে প্রায় তিন সহ¯্রাধিক শিক্ষার্থীর উপস্থিত রয়েছে। এতে রাস্তায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা রাস্তায় অবস্থান করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান জানান,‘শিক্ষার্থীদের রাস্তা থেকে সরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছি।’

শাবি:

সিলেটের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মিলিত হয়ে একসঙ্গে আন্দোলন করতে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার অভিমুখে পদযাত্রা করেছেন।

বুধবার দুপুর একটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক থেকে কয়েক সহস্রাধিক আন্দোলনরত শিক্ষার্থী পায়ে হেঁটে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের দিকে যাত্রা শুরু করেন। পরবর্তীতে ২টার দিকে তারা শহীদ মিনারস্থ নগরীর ব্যস্ততম মোড় চৌহাট্টা পয়েন্টে অবস্থান নেন।

বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ’ শাবি শাখার আহ্বায়ক মো. নাসির উদ্দিন জানান, সিলেটের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ এর শিক্ষার্থীদের মিলিত হয়ে তারা একসাথে আন্দোলন করবে। তাই সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের দিকে তারা পদযাত্রা করেন।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকাল ৭টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে অবস্থান নেয় সাধারণ শিক্ষার্থীরা। কোটা সংস্কার না করা পর্যন্ত এবং মতিয়া চৌধুরীর বক্তব্য প্রত্যাহার না করলে তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবে বলে জানান।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ক্লাস পরীক্ষা বর্জন করেছেন তারা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়:

সরকারি চাকরিতে কোটা প্রথা সংস্কারের দাবিতে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার ঘোনাপাড়ায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করে বিক্ষোভ-সমাবেশে যোগ দেন।

পরে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশে ঘোনাপাড়ায় গিয়ে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে বাঁশ, ব্লক ও ইট দিয়ে ব্যারিকেড দিয়ে সড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। এ সময় সেখানে শিক্ষার্থীরা অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে।

এদিকে মহাসড়ক অবরোধ করার ফলে দুই পাশেই বেশ কিছু যানবাহন আটকা পড়েছে। যানবাহন না চলায় চরম দুর্ভোগের শিকার হন যাত্রী-সাধারণ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থী আনিচুর রহমান, লোকমান শেখ ও ফজলে রাব্বী বলেন, সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে অটল রয়েছি। কেন্দ্রীয় থেকে আন্দোলন প্রত্যাহারের ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবো।

এদিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোখলেসুর রহমান সরকার, পুলিশ সুপার মুহাম্মদ সাইদুর রহমান খান ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ঘোনাপাড়ায় গিয়েছেন। সেখানে গিয়ে তারা শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলছেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া