২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের দাবি নাকচ আইনমন্ত্রীর

ডেস্ক রিপাের্ট : ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার বিষয়ে সামাজিক মাধ্যমে প্রচার চলছে। তবে এ বিষয়ে বিদ্যমান আইন পাল্টানোর কোনো দরকার আছে বলে মনে করেন না আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

বৃহস্পতিবার হবিগঞ্জে এক অনুষ্ঠানে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন আইনমন্ত্রী। দুপুরে হবিগঞ্জ আইনজীবী সমিতির নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন করতে সেখানে গিয়েছিলেন তিনি।

সম্প্রতি ধর্ষণের বেশ কিছু ঘটনায় ক্ষোভ এবং উদ্বেগ ছড়িয়েছে দেশে। সম্প্রতি হবিগঞ্জে এক কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যা, অন্য একটি জেলায় এক বছর দুই মাসের একটি শিশুকে ধর্ষণের পর সামাজিক মাধ্যমে ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার বিষয়ে প্রচার চলছে।

এ বিষয়ে সরকারের কোনো উদ্যোগ রয়েছে কি না জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণের পর মৃত্যু হলে মৃত্যুদণ্ডের বিধান রয়েছে। আবার শুধু ধর্ষণ হলে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে। এক্ষেত্রে নতুন আইনের কোনো প্রয়োজনীয়তা রয়েছে বলে আমার মনে হয় না।’

আগামী নির্বাচনে জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হচ্ছে কি না-এমন প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ‘এ সম্পর্কিত আইনটি বর্তমানে মন্ত্রিপরিষদের সভায় উপস্থাপনের জন্য প্রস্তুত রয়েছে। যে কোনো সময় এটি উপস্থাপন করা হবে। সেখান থেকে অনুমোদন হলে আইনটি সংসদে আসবে। পরে তা বাস্তবায়ন হবে।’

আইনটি শুধু জামায়াতকে নিষিদ্ধ করার জন্য কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘যে কোনো দল, সংগঠন বা ব্যক্তি যেই মানবতাবিরোধী হোক না কেন তাদের আইনের কাঠামোতে এনে বিচারের জন্য আইনটি সংশোধন হচ্ছে।’

সরকারের প্রভাবে খালেদা জিয়ার জামিন উচ্চ আদালতে আটকে আছে বলে বিএনপির অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি যে অভিযোগ করেছে, তা হলো তাদের রাজনৈতিক বোমাবাজি।’

‘দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে শুনানির পর্যায়ে রয়েছে বিষয়টি। আর মামলাটি পরিচালনা করছে দুর্নীতি দমন কমিশন। খালেদা জিয়ার জামিনের ব্যাপারে সরকারের হস্তক্ষেপ নেই।’

হবিগঞ্জ আইনজীবী সমিতির সভাপতি আফীল উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে হবিগঞ্জ সদর-লাখাই আসনের সংসদ সদস্য আবু জাহির, চুনারুঘাট-মাধবপুর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুব আলী, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব আবু সালেহ মো. জহিরুল হক, যুগ্ম সচিব বিকাশ কুমার সাহা, হবিগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আমজাদ হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবির মুরাদ, আইন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মাহবুবা রহমান সরকার, পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরাও এ সময় বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমান। এরপর বিকালে হবিগঞ্জ জালাল স্টেডিয়ামে আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যও দেন মন্ত্রী।

জেলায় শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠাসহ নানা উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করায় সংসদ সদস্য আবু জাহিরকে এ সংবর্ধনা দেয় নাগরিক সংবর্ধনা কমিটি।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া