২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি পাওয়ায় বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়া আরও সহজ হবে : প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপাের্ট : উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতিপত্র পাওয়ায় বাংলাদেশের ঋণ গ্রহণ, প্রকল্প বাস্তবায়ন এবং উন্নয়নের পথে বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়া আরও সহজ হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নিম্ন আয়ের দেশ থেকে বের হয়ে আসায় বাংলাদেশকে ঋণ নিতে গেলে সুদ কিছুটা বেশি দিতে হবে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। বলেছেন, সেটা কোনো ব্যাপার হবে না।

রােববার বিকালে রাজধানীতে আওয়ামী লীগের এক আলোচনায় শেখ হাসিনা এ কথা বলেন। জতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন এবং জাতীয় শিশুদিবস নিয়ে এই আলোচনায় প্রধান অতিথি ছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা।

স্বাধীনতার সাড়ে তিন বছরের কিছু বেশি সময় পর ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশ স্বল্প আয়ের দেশের স্বীকৃতি পেয়েছিল। ৪৩ বছর পর বাংলাদেশ সময় ১৭ মার্চ বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতিপত্র দেয় জাতিসংঘ। এই খবর যখন বাংলাদেশে আসে, তখন দেশে বঙ্গবন্ধুর ৯৮ তম জন্মদিন পালিত হচ্ছে।

জাতিসংঘ উন্নয়নের দিক থেকে সারা বিশ্বের সবকটি দেশকে তিন ভাগে বিভক্ত করে। সবার নিচে রয়েছে স্বল্পোন্নত দেশ বা এলডিসি, এরপর আছে উন্নয়নশীল এবং সবার ওপরে উন্নত দেশ।

এর আগে বিশ্বব্যাংক ২০১৫ সালেই বাংলাদেশকে নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। এরপর জাতিসংঘের এই স্বীকৃতিতে বাংলাদেশের মর্াদা অনেক বেড়েছে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী।

এই স্বীকৃতিক কী প্রভাব, তা ব্যাখ্যা করে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘আজকে আমাদের ঋণ নেয়া প্রজেক্ট নেয়া, বাস্তবায়ন করা এবং দেশকে দ্রুত উন্নয়নের পথে আরও এগিয়ে নিয়ে যেয়ে আমাদের যে মূল টার্গেট যে, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ করব। আর ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত দেশ হবে। সে লক্ষ্য অর্জন করতে পারব।’

এই স্বীকৃতি পাওয়ায় বাংলাদেশ জন্য বাণিজ্যের ক্ষেত্রে কিছু সুযোগ ‍সুবিধা কম পাবে বলে অর্থনীতিবিদরা জানিয়ে আসছেন। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘হয়ত সুদ একটু বেশি দিতে হবে। তাতে কিছু আসে যায় না, ওটুকু আমরা দিতে পারি।’

তবে এই স্বীকৃতির জন্য বাংলাদেশ আর্থিকভাবে লাভবান হবে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে যারা এক সময় আমাদের দিকে করুণার চোখে তাকাত, একটা ঋণ দিতে গেলে, একটা প্রজেক্ট করতে গেলে হাজার রকম শর্ত জুড়ে দিত, আর দুর্নীতি না করলেও দুর্নীতির অপবাদ দিয়ে প্রজেক্টের টাকা বন্ধ করা; যেমন পদ্মাসেতুর ক্ষেত্রে করেছে, আর এটা করতে পারবে না। সে সাহস আর পাবে না। আজকে আমরা উন্নয়নশীল দেশ, আমাদের ঋণ পেতে কোনো অসুবিধা হবে না।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের জন্য আন্তরিকতার সাথে কাজ করলে যে কাজ করা যায়, এটা আমরা প্রমাণ করেছি। ২০১৪ এর নির্বাচনে আমরা জয়ী হয়েছি বলেই উন্নয়নের ছোঁয়াটা মানুষ পাচ্ছে। যদি আমরা না আসতে পারতাম, তাহলে সবগুলো কাজ তারা নষ্ট করে দিতে পারত। যেটা ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট করেছে।’

‘জাতির পিতার জন্ম হয়েছিল বলেই আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি, দেশ পেয়েছি, রাষ্ট্র পেয়েছি, বাঙালি জাতি হিসেবে বিশ্বে মর্াদা পেয়েছি। আজকে তার জন্মদিনেই আমাদের জন্য সেই সুখবর এসেছে যে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল দেশ। এর চেয়ে বড় প্রাপ্তি আর কিছু হতে পারে না।’

এই স্বীকৃতি পাওয়ায় আগামী ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবস নতুন উদ্দীপনায় পালিত হবে বলেও জানান শেখ হাসিনা।

জাতিসংঘের সহস্রাব্দ উন্নয়ন কর্মসূচি বা এমডিজির ছয়টি লক্ষ্য পূরণ করে বাংলাদেশ সারা বিশ্বে আমরা সম্মান পেয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘একমাত্র বাংলাদেশই পারে এটা করতে।’

‘১৫ বছর পর এখন আমরা এসডিজি নিয়েছি। এসডিজি বাস্তবায়নেও আমরা এগিয়ে যাচ্ছি, এটা তারই প্রমাণ এই স্বীকৃতি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যারা এক সময় মুক্তিযুদ্ধ চলার সময় বলেছিল বাংলাদেশ স্বাধীন হয়ে কী করবে? ওটা তো স্বাধীন হলে বটমলেস বাসকেট হবে, আজকে তাদেরকে জবাবটাই আমরা দিয়ে দিয়েছি। বটমলেস বাসকেট না, বাংলাদেশ একটা উন্নয়নশীল দেশ।’

মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানের পক্ষে অস্ত্র ধরা রাজাকার, আলবদর এবং ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুর হত্যায় জড়িতদের ‘একই বৃন্তের ফুল’ বলেও আখ্যা দেন প্রধানমন্ত্রী।

‘একাত্তরের খুনি, রাজাকার, আল বদর বাহিনী আর ৭৫ এর খুনির মধ্যে কোনো পার্থক্য নাই। তারাই এই দেশটাকে ব্যর্থ করতে চেয়েছে।’

জাতির পিতার জন্মদিন একটাই এটাই প্রতিজ্ঞা হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আওয়ামী লীগের প্রতিটি নেতা-কর্মী যারা জাতির পিতার আদর্শে বিশ্বাসী, তাদের আজ একটাই প্রতিজ্ঞা দেশকে নিজেদের জীবনের সবচেয়ে ত্যাগের বিনিময়েও এই দেশকে আমরা উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে গড়ে তুলব।’

এর আগে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর নামকরণ, তাঁর বেড়ে উঠা, ৭ মার্চের ভাষণ, বাংলাদেশের স্বাধীকার আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, যুদ্ধ শেষে দেশ গড়ার সংগ্রাম নিয়ে দীর্ঘ বক্তব্য রাখেন।

বঙ্গবন্ধুর নামকরণের গল্প তুলে ধরে তাঁর মেয়ে বলেন, ‘আমার দাদির কাছে গল্প শোনা, আব্বার নানা তাঁকে কোলে নিয়ে বলেছিলেন, তোমার ছেলের নাম শেখ মুজিবুর রহমান, দেখবে একদিন জগৎজোড়া নাম হবে। জানি না তিনি কীভাবে এ কথা বলেছিলেন।’

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘জাতির পিতা নিজে কখনও তাঁর জন্ম দিন পালন করতেন না। আমরা ঘরোয়াভাবে এই জন্মদিন পালন করতাম। আমার মা প্রতি জন্মদিনে মসজিদে মিলাদের আয়োজন করতেন। আর নিজের হাতে জাতির পিতার পছন্দের খাবার রান্না করতেন।’

‘তিনি (বঙ্গবন্ধু) যদি জন্মগ্রহণ না করতে আমরা স্বাধীন হতাম কি না, আত্মমযাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হতে পারতাম কি না সেটাই বড় প্রশ্ন।’

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাজেদা চৌধুরী, সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু, অ্যাডভোকেট আবদুল মান্নান খান, চিত্রশিল্পী হাসেম খান, কথা সাহিত্যিক সেলিনা হোসেন প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া