২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৮ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

`সরকারের সবচেয়ে বড় ভুল খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠানাে’

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে নেয়া বর্তমান সরকারের নয় বছরের সবচেয়ে বড় ভুল বলে মনে করেন ২০ দলীয় জোটের শরিক এলডিপির প্রধান অলি আহমেদ।

শনিবার রাজধানীতে এক আলোচনায় অংশ নিয়ে এক কথা বলেন সাবেক বিএনপি নেতা। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ‘স্বাধীনতার ৪৭ বছর: গণত‌ন্ত্রের সংকট’ শিরোনামে এ আলোচনার আয়োজন করে ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও’ আন্দোলন নামে বিএনপিপন্থি একটি সংগঠন।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে দুর্নীতি ও স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াতকে তোষণের অভিযোগে বিএনপি থেকে বের হয়ে আসা অলি ২০০৭ সালের ২২ জানুয়ারির বাতিল হওয়া নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোটেও যোগ দেন। তবে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের নির্বাচনে তাকে বাদ দেয় মহাজোট।

সে সময় খালেদা জিয়া ও জামায়াতের কট্টর সমালোচক হয়ে উঠেন অলি আহমেদ। খালেদা জিয়া, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে বেপরোয়া দুর্নীতির অভিযোগ তোলা এই নেতা অবশ্য আওয়ামী লীগ সরকারের গত আমলে অলি আহমেদ আবার বিএনপির সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলেন এবং বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটে যোগ দেন। দল বিলুপ্ত করে আবার বিএনপিতে ফিরে যাওয়ার বিষয়েও মাঝে আলোচনা শুরু হয়েছিল। তবে সেটি আর আগায়নি।

খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডের রায়ের বিষয়ে অলি আহমেদ বলেন, ‘সরকার বেগম জিয়াকে জেলে দিয়ে পুনরায় ধরা পরেছে, গত ৯ বছরের সবচেয়ে বড় ভুল করেছে খালেদাকে জেলে দিয়ে।’

‘সরকারের ভুল সিদ্ধান্ত, প্রতিশোধপরায়ণতা ও প্রতিহিংসার কারণে খালেদা জিয়া ও বিএনপির জনপ্রিয়তা এখন আকাশচুম্বী। খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে, আইন লঙ্ঘন করে, সংবিধান না মেনে নির্জন-পরিত্যক্ত কারাগারে বন্দী করার কারণে সরকারের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।’

আওয়ামী লীগ কোন দিনই ‘স‌ঠিক’ নির্বাচনে ক্ষমতায় আসতে পারেনি দাবি করে অলি আহমেদ বলেন, ‘৭১ এর পর তারা যতবার ক্ষমতায় এসেছে কোন না কোনোভাবে দুর্নী‌তি করে এসেছে।’

আলোচনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এমাজ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিক মামলায় গ্রেপ্তারের মাধ্যমে দেশকে গণতন্ত্রহীন করতে চায় সরকার। এটা কোনো অবস্থাতেই মেনে নেয়া যায় না।’

‘পাবলিক ব্যাংকে লুট হচ্ছে, শেয়ার বাজার লুট হয়ে গেছে, গোটা দেশ দুর্নীতিতে ছেয়ে গেছে। এ ব্যাপারে সরকারের কোনো উদ্যোগ নেই। অথচ মিথ্যা মামলায় যেখানে এক টাকাও চুরি হয়নি, সেই মামলায় খালেদা জিয়াকে বন্দী করা হয়েছে।’

খালেদা জিয়াকে এ গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে সরকার ২০১৪ সালের মত আবার ক্ষমতা ‘দখল করতে চায়’ বলেও মন্তব্য করেন বিএনপিপন্থী এই বুদ্ধিজীবী।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা, উন্নয়ন, গণতন্ত্র এসবের সাথে জিয়া একাকার হয়ে গেছেন মন্তব্য করে এমাজউদ্দিন বলেন, ‘জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র পক্ষান্তরে বাংলাদেশের সাথেই ষড়যন্ত্র।’

আলোচনায় অংশ নিয়ে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে বন্দীর মধ্য দিয়ে গণতন্ত্রকে নতুন করে হত্যা করা হল। বর্তমান সরকার ২০১৪ সালের মতো আবার ক্ষমতা দখল করতে চায়। এই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ফরমায়েশি রায় দিয়ে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।’

আয়োজক সংগঠ‌নের সভাপ‌তি কে এম র‌কিবুল ইসলাম রিপনের সভাপ‌তিত্বে আলোচনায় আরও বক্তব্য দেন প্রেসক্লাবের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক কাদের গ‌নি চৌধুরী, বিএন‌পির গণ‌শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সে‌লিম ভূইয়া প্রমুখ।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া