১৭ই আগস্ট, ২০১৮ ইং | ২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

বেপরােয়া ইউএনও’র চড়-থাপ্পড়, আতঙ্কে ৫ পরীক্ষার্থী অজ্ঞান!

U N Oডেস্ক রিপাের্ট : শনিবার এসএসসি পরীক্ষাকেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে পরীক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোসাদ্দেক মেহ্দী ইমামের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় আতঙ্কে পাঁচ ছাত্রী জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সুস্থ হওয়ার পর বাসায় ফিরেছেন তারা।এমন ঘটনা ঘটেছে চট্টগ্রামের রাঙামাটির লংগদুতে।

জানা যায়, ১০ ফেব্রুয়ারি শনিবার গণিত পরীক্ষা চলাকালে সকাল ১১টার দিকে লংগদু বালিকা উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শনে যান ইউএনও। এ সময় কেন্দ্রের ৬নং কক্ষে প্রবেশ করে জুনায়েদ ইসলাম পেয়ার নামের এক পরীক্ষার্থী অন্যদের খাতা দেখানোয় তাকে চড় মারতে শুরু করেন। এক পর্যায়ে ওই ছাত্রের খাতাও কেড়ে নেন রাঙামাটির লংগদুর ইউএনও মোসাদ্দেক মেহদি ইমাম।

ইউএনও ওই পরীক্ষার্থীকে শার্টের কলার ধরে টেনে বাইরে এনে চড়-থাপ্পড় মারতে থাকেন। গালিগালাজ করে বলেন, তাকে বহিষ্কার করে দেবেন। এ কথা শুনে শুভ নামের অন্য এক শিক্ষার্থী পেয়ারকে ইউএনও’র কাছে ক্ষমা চাইতে বললে তাকেও চড় মারেন ইউএনও। এ সময় দায়িত্বরত কক্ষ পরিদর্শক শিক্ষকরা শুধু চেয়ে চেয়ে দেখছিলেন। এক শিক্ষিকা বিষয়টি মেনে নিতে না পেরে কান্নাকাটি করেন।

ভুক্তভোগী পেয়ার গণমাধ্যমকে বলেন, সামান্য কারণে ইউএনও অন্তত ১৫ থেকে ২০টা চড় মেরেছেন। খাতাও কেড়ে নিয়েছেন। আধ ঘণ্টা আমি কিছু লিখতেই পারিনি। এতে আমার পরীক্ষা খারাপ হয়েছে।

এক কক্ষ পরিদর্শক বলেন, এমন খারাপ আচরণ করতে এর আগে কোনও কর্মকর্তাকে দেখিনি। উনার (ইউএনও) এমন রূঢ় আচরণে প্রতিবাদ করতে পারিনি।

এ খবরে লংগদু সরকারি উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রের পরীক্ষার্থীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। আতঙ্কে পাঁচ ছাত্রী জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাদের লংগদু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও রাবেতা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।

একই দিনে লংগদু সরকারি উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রেও এক পরীক্ষার্থীকে চড় মারার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অবশ্য দায়িত্বরত শিক্ষকরা ছাত্রকে মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করে জানিয়েছেন, ইউএনও সবাইকে ধমক দিয়েছেন।

পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ, শুধু চড়-থাপ্পর নয়, গালিগালাজ ও ফাইল ছুড়ে মারাসহ অনেক খারাপ আচরণ করেছেন ইউএনও।

আরেক ভুক্তভোগী ইসমাঈল হোসেন বলেন, শুধু গণিত পরীক্ষাই নয়, ১ ফেব্রুয়ারি বাংলা প্রথমপত্র পরীক্ষার দিনও তাকে এবং তার পাশের ছাত্রকে চড় মেরেছেন ইউএনও। তিনি গালিগালাজ করে বলেন, তোর মতো এমন ছাত্র লাগবে না। এমন অভিযোগ এক ছাত্রীরও।

অভিভাবকরা বলেন, ছেলেমেয়েরা ভুল করতেই পারে। তাই বলে সবার সামনে চড়-থাপ্পর মারা কি ঠিক। কাজটা ভালো করেননি ইউএনও।

তারা বলেন, উনি ইউএনও হতে পারেন, কিন্তু সন্তানদের গায়ে হাত তোলার অধিকার নেই। তার এমন আচরণ কোনোভাবেই কাম্য নয়।

এ ব্যাপারে লংগদু বালিকা বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব ও প্রধান শিক্ষক রবিরঞ্জন চাকমা বিষয়টি জানেন না বলে জানান। তবে ইউএনও স্যার রাগারাগি করেছেন বলে শুনেছি।

ইউএনও মোসাদ্দেক মেহ্দী ইমাম অভিযোগ অস্বীকার করে গণমাধ্যমকে বলেন, মারধর করা হয়নি। ধমক দেয়া হয়েছে। অসুবিধা নেই, সব ঠিক হয়ে যাবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া