১১ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

পারলে আরেকজন পূর্ণিমার হাত ধরুন

                                     – আলফা আরজু –
TARANAগণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিষয়ের বিশেষজ্ঞ ও শিক্ষক কাবেরী গায়েন আপার পূর্ণিমাকে নিয়ে একটা ফেইসবুক স্ট্যাটাস পড়ে মর্মাহত হলাম। এই ভেবে যে উনি কি সত্যি জানেন না বাংলাদেশে চাকরি পাওয়াটা কত দুস্কর? একজন যে বিষয়ে পড়াশোনা করেন সেই বিষয়ে চাকরি পাওয়া- কতটা কষ্টকর?

না জানারই কথা। কারণ, উনি খুব মেধাবী মানুষ। উনার পরিচিত কোন বন্ধু, আত্মীয়, প্রতিবেশীর নিশ্চয় আমাদের মত আমজনতার চাকরি খোঁজার অভিজ্ঞতা নেই। চাকরির বিজ্ঞাপনে লেখা, সকল যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও ৩৬/৩৭টা চাকরির আবেদন করেও চাকরি না হওয়া- এমন অভিজ্ঞতা নিশ্চয় উনাদের কারোর নেই।

কারণ, উনারা মেধাবী। উনাদের বাড়ি থেকে খুঁজে এনে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। কোনো প্রকার লবিং/নেটওয়ার্কিং ও রেফারেন্স লাগেনি। হতেই পারে। সেই জন্য উনাদের মত খুব মেধাবীদের প্রতি সম্মান রেখে একটা অতীত অভিজ্ঞতা বলি।

ঘটনাটা ২০০১ সালের। আমার খুব ঘনিষ্ঠ এক বন্ধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিষয়ে অনার্স-মাস্টার্স করে চাকরি খুঁজছে। ওই সময় তার আর্থিক অবস্থা এতটাই নাজুক ছিল যে আমার সাথে মাঝে মাঝে আফসোস করে বলত, ‘যদি দেখতে সুন্দর হইতাম, তাইলে শরীর নিয়ে ব্যবসা করতাম’।

হেসে হেসে বলত, কিন্তু আমি ওর কান্নাটা জানতাম। কারণ, সেই সময় আমার বন্ধুটা অন্তঃসত্ত্বা ছিল। পালিয়ে বিয়ে করেছিল বলে তখনও সমাজের স্বীকৃতি মেলেনি। স্বামী মশাই তখনও ছাত্র। তাই তিনি তাদের বাসায় জানাননি।

সেই দুঃসহ সময়ে আমার বন্ধুর খাবার কষ্ট, ঢাকা শহরে টিকে থাকার যুদ্ধ আমি কাছ থেকে দেখেছি।

তো সেই বন্ধুর চাকরি খোঁজার গল্পটাই শুধু বলি। তখন একুশে টিভিতে একটা প্রোগ্রাম ‘দেশজুড়ে’ এর জন্য নতুন কর্মী নিয়োগ চলছে। আমার সেই বন্ধু পত্রিকা থেকে বিজ্ঞাপন পেয়ে চাকরির জন্য আবেদন করেছিল।

তাকে সাক্ষাৎকারের জন্য ডাকা হল। সেই সাক্ষাৎকারের সদস্যদের মধ্যে অন্যতম একজন ছিল আমার সেই বন্ধুর অন্য এক ক্লাসমেট। সাক্ষাৎকার শেষ করে বের হয়ে আমার সাথে প্রথম যে কথাটা ও বলেছিল, ‘আমার চাকরির সাক্ষাৎকার আমার ক্লাসের একজন সহপাঠী নিল’।

ওর কণ্ঠ শুনেই আমার মনে হয়েছিল, ও জেনে গেছে এই চাকরিটাও ওর হবে না। আহা, আমার বন্ধুর যুদ্ধ। খাওয়ার কষ্ট, থাকার কষ্ট,  সমাজের-প্রতিবেশীর তীর্যক চাহনীর কষ্ট, অনাগত একটা সন্তানের জন্য বেঁচে থাকার কষ্ট। দেখেছিলাম খুব কাছে থেকে।

জানেন আপা, বন্ধুর ‘সহপাঠী’ কীভাবে নিয়োগদাতা হয়েছিলেন? জানার কথা না। কারণ আপনারা মেধাবী। আমার সেই বন্ধুর সহপাঠীর পারিবারিক ক্ষমতা ওকে নিয়ে নিয়োগদাতার আসনে বসিয়েছে, আর আমার বন্ধুর চাকরিটাই হয়নি।

ওই যে কীসের যেন মেধা লাগে? মামা/চাচা/শ্বশুর/ভাসুরের মেধা/ক্ষমতা সেই সব সত্যি ছিল না। যার জন্য গুনে গুনে ৩৭ টা চাকরির আবেদন করেও আমার বন্ধুর চাকরি হয়নি। পরে এক ছোটখাটো মামার জোরে বেসরকারি একটা কলেজে ঢুকেছিল।

আমার সেই বন্ধুর ভাষাতেই বলি, ‘নিউজ নেটওয়ার্ক এর কন্ট্রাক্ট প্রায় শেষের দিকে। এর মধ্যে আমার খাবারের খরচ বেড়ে গেছে। আমার সারাক্ষণ খেতে ইচ্ছে করে। ভালো-মন্দ খেতে ইচ্ছে করে। কিন্তু তখন আমার খুব আর্থিক দুর্যোগ – হাতে প্রায় টাকা নাই। বাসাভাড়া-খাবার খরচ। পারছিলাম না। কতবার মনে হয়েছে, আত্মহত্যা করব। এই ভাবে বেঁচে থাকার চেয়ে মৃত্যু অনেক সম্মানের।’

অনেকবার আমার বন্ধু আত্মহত্যার কথা বলত। আমরা কয়েক বন্ধু ওর পাশে থেকে সাহস দিয়েছি, ভালোবেসে ওর হাত ধরেছি, ওর সাথে রাতদিন থাকার চেষ্টা করেছি। শুধু যা করতে পারিনি সেটা হলো, ওর জন্য একটা কর্মসংস্থান। যা খুব প্রয়োজন ছিল তখন।

আপনাদের মত মেধাবীদের নীতিকথার প্রেক্ষিতে অন্য একটা সাক্ষাৎকারের কথা বলি।

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা এর প্রতিবেদক নিয়োগের কাহিনি। আমার বন্ধু লিখিত পরীক্ষা দিয়ে খুব ভালো রেজাল্ট করেছিল বলে ওর সকল অরিজিনাল মার্কসিট ও সার্টিফিকেট জমা নেয়। আরো কি সব কাহিনি এখন আর মনে নাই। কিন্তু, ওর চাকরিটা হয়নি।

কেন জানেন?

তৎকালীন বাসস-এর কর্ণধার (ইন্টারভিউ বোর্ডের প্রধান) কে জিজ্ঞেস করেছিলাম। ওই সময় ওই চাকরিটা কেন হয়নি? উনি বলেছিলেন, ‘চিনতাম না তখন!’ আমার উত্তরে আর বলা হয়নি ‘সার্টিফিকেট ও বাড়ির ঠিকানা নিয়েছিলেন। একটু খোঁজ করে দেখতেন পরিবারের রাজনৈতিক আদর্শ। তবুও কাজটা খুব দরকার ছিল আমার বন্ধুর।

ওই সময় আমার বন্ধু যদি তারানা আপার মত একটা শক্ত হাত পেত, ও একটা নতুন জীবন পেত। জ্বি আপা, নতুন জীবন পেত।

সেই জন্য পূর্ণিমার এই চাকরির খবরে আমার মত কম মেধাবীদের কেউ কেউ খুব খুশি হয়েছে। আপনাদের মত মেধাবী ও আত্মসম্মান ওয়ালাদের বিষয়গুলোর সাথে, যাদের খাওয়া-পড়ার চিন্তা করতে হয়, তাদের মিলবে না। শুধু শুধু এইসব মর্মবাণী দিয়ে মানুষটার মানসিক শান্তি নষ্ট করবেন না।

পারলে অনেক পূর্ণিমা আছে, যার হাত ধরলে পৃথিবীকে দেখিয়ে দেবে।…তাদের হাত ধরুন ও খুব শক্ত করে ধরুন।

লেখক: অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী সাংবাদিক

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
ডিসেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« নভেম্বর    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া