২৫শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং | ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

‘আ’লীগ ঘুমের মধ্যেও খালেদা-তারেকের স্বপ্ন দেখে ভয় পায়’

‘আ’লীগ ঘুমের মধ্যেও খালেদা-তারেকের স্বপ্ন দেখে ভয় পায়’ডেস্ক রিপাের্ট : মোহাম্মদ শাহজাহান, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান। রাজনৈতিক নানা চরাই-উত্তরাই পার হয়ে রাজনীতিতে এখনো সক্রিয় তিনি। এক এগারোর পরীক্ষিত এই নেতা বিএনপি পুনর্গঠনের দায়িত্ব পালন করছেন।

বিএনপি পুনর্গঠনের অগ্রগতি, দেশের সমসাময়িক রাজনৈতিক পরিস্থিতি এবং আগামী নির্বাচন নিয়ে এই প্রতিনিধির সঙ্গে খোলামেলা কথা বলেছেন মোহাম্মদ শাহজাহান।

বিএনপির পুনর্গঠন প্রক্রিয়ার আগ্রগতি সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন?

আগে বিএনপির সাংগঠনিক জেলা ছিল ৭৮টি। বর্তমানে কয়েকটি উপজেলা ও পৌরসভা যুক্ত হয়ে ৮১টি সাংগঠনিক জেলা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৫১টি কমিটি হয়েছে। ৩০টি মতো এখন বাকী আছে। ম্যাডাম (খালেদা) দেশে আশার পর উনার সঙ্গে আলোচনা করে খুব অল্প সময়ের মধ্যে দল পুনর্গঠনের কাজ শেষ করব।

দল পুনর্গঠন করতে গিয়ে দলীয় বা দলের বাইরে কোনো প্রতিবন্ধকতায় পড়ছেন কী-না?
প্রতিবন্ধকতা তো আছেই। কোনো সাংগঠনিক কাজ করতে পারছি না। সদস্য সংগ্রহ করতে গেলেও সেখানে বাধা দেওয়া হচ্ছে। কর্মী সভা করার সুযোগ পাচ্ছি না। বাধা দেয়া হচ্ছে। এজন্য ৪-৫টির বেশি কমিটি করতে পারিনি।
যেখানেই প্রোগ্রাম দিয়েছি সেখানেই পুলিশ বাধা দিয়েছে। যার কারণে মাঠ পর্যায় থেকে তথ্য সংগ্রহ করে কেন্দ্র থেকে কমিটি করতে হচ্ছে।
দলের মধ্যে কোনো আভ্যন্তরীণ সমস্যা নেই তা বলব না, বড় রাজনৈতিক দলের কিছু থাকতেই পারে। কিন্তু সবচেয়ে বড় বাধা হলে সরকার।  

কেন্দ্র থেকে তৃণমূলে কমিটি চাপিয়ে দেয়া হয়-এমন অভিযোগ প্রায়ই আসে- আপনি কি বলবেন?
মাঠ পর্যায়ে গিয়ে কমিটি করার সুযোগ তো আমরা পাচ্ছি না।
তথ্য সংগ্রহ করে দলের চেয়ারপারসনের সঙ্গে আলোচনা করে নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করা হয়। এখানে কারোর ইচ্ছা-অনিচ্ছায় কমিটি গঠন করা হয় না।
কেন্দ্র থেকে দায়িত্ব নিয়ে কমিটি শতভাগ জেনুইন করা সহজ কাজ নয়। দুই-এক জায়গায় কমিটি একটু এদিক-সেদিক হয় না, তা তো নয়। সেজন্য একটু কথা তো থাকবেই।

আগামী নির্বাচন নিয়ে আপনারা কী ভাবছেন?
বিএনপি একটি নির্বাচনমুখী রাজনৈতিক দল। আমরা মনে করি নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আমাদেরকে ক্ষমতায় যেতে হবে। কেউ আমাদেরকে ক্ষমতায় বসিয়ে দিবে এই নীতিতে বিশ্বাস করি না। ক্ষমতায় যাওয়ার আমাদের একমাত্র পথ হল জনগণ। আর জনগণের সমর্থন পাওয়ার জন্য দরকার হলো অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন। এমন একটা নির্বাচন থেকে আমরা বঞ্চিত।

আপনারা সমঝোতার কথা বলছেন, কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া নেই তাহলে…
আমরা আশা করেছিলাম সরকার বিরোধী দল তথা বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর অন্যায় জুলুম-অত্যাচার-নির্যাতন বন্ধ করবে। সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য একটি অর্থবহ নির্বাচন অনুষ্ঠানে রাজনৈতিক সমঝোতায় আলোচনার পথে আসবে। কিন্তু আমরা ক্ষমতাসীনদের কাছ থেকে কোনো প্রকার তার লক্ষণ দেখতে পাচ্ছি না। বরং ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো আরেকটি একতরফা নির্বাচন করতে রাজনৈতিক পরিবেশকে অস্থিতিশীল করে তুলছে। এরা (আওয়ামী লীগ) দেশে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন চায়- তাদের কোনো কাজে এমন লক্ষণ দেখছি না। তারপরও বিএনপি নির্বাচনের জন্য শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যাবে।

বর্তমান সাংবিধান অনুযায়ী সরকার আরেকটি নির্বাচনের ব্যবস্থা নিলে আপনাদের অবস্থান কী হবে?
শেষ পর্যন্ত যদি দেখি সরকার ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন করতে মরিয়া, তখন পরিস্থিতি বলে দেবে বিএনপির করণীয়। আমরা সহায়ক সরকারের কথা বলছি, প্রকৃত পক্ষে নির্বাচনকালীন কিংবা অন্তর্বর্তীকালীন নিরপেক্ষ সরকার। আর সেই সরকার যে কোনো নামে হতে পারে। কারো মতে সহায়ক সরকার, কারো মতে তত্ত্বাবধায়ক সরকার, কারো মতে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার। অর্থাৎ একটি সুষ্ঠু নির্বাচন করতে যে ধরনের সরকার প্রয়োজন বিএনপি সেই ধরনের সরকার চায়।

সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনার ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন (ইসি) রাজনৈতিক দল ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে সংলাপ করছেন। আপনারা নিশ্চয়ই ইসি সংলাপে অংশ নিচ্ছেন। ইসি সংলাপে বিএনপির মূল দাবি কী থাকবে?
ভোটাধিকার প্রয়োগে নিশ্চয়তাসহ অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে যে যে পদক্ষেপ নেয়া দরকার সে ব্যাপারে বিএনপি একটি প্রস্তাবনা তুলে ধরবে। এক কথায় দেশে অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করতে যে সকল পদক্ষেপ নেয়া দরকার সে বিষয়টিকে প্রাধান্য দেয়া হবে। আমরা নির্বাচন কমিশনের কথা শুনবো এবং আমাদের কথা বলবো। আমরা নির্বাচন কমিশনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাই না। যদিও তারা নিজ কৃতকর্মের মধ্য দিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়েন। তারাই জনগণের মধ্যে সন্দেহ সৃষ্টি করেন। আমরা নির্বাচন কমিশনকে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠায় একটি ভালো নির্বাচন উপহারের ক্ষেত্রে পরীক্ষক হিসেবে দেখতে চাই।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বর্তমানে লন্ডনে। দেশে ফেরা না ফেরা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে আলোচনা আছে। তিনি কবে নাগাদ দেশে ফিরছেন?
চিকিৎসা শেষে যথাসময়ে দেশে ফিরবেন ম্যাডাম (খালেদা জিয়া)। উনি দেশে ফিরতে উদগ্রীব। দেশের বাইরে স্বস্তি অনুভব করেন না, বরং দেশে থাকতে পছন্দ করেন। ভ্রমণে যাননি, তিনি চিকিৎসার জন্য বিদেশ গিয়েছেন। অথচ ক্ষমতাসীনরা কত কথাই তো বলছে। তাদের রাতে ঘুম হয় কি না, সেটাও আমরা জানি না। তারা তো রাতে ঘুমের মধ্যেও খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে স্বপ্ন দেখেন। তবে আমার মনে হয় সরকার বিএনপি, খালেদা জিয়া এবং তারেক রহমানের নাম শুনলেই ভয় পায়।
এতক্ষণ সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
আপনাকেও ধন্যবাদ।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
নভেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া