২২শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং | ৭ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকে নাড়িয়ে দিতে পেরেছেন

DELWARঅধ্যাপক ড. দেলোয়ার হোসেন : রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করা যে জরুরি তা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বের সবাইকে জানিয়েছেন। বিশ্বকে নাড়া দিতেও পেরেছেন। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী যে পাঁচটি প্রস্তাবনা দিয়েছেন সেগুলো বাস্তবায়নের ব্যাপার রয়েছে। বাস্তবায়ন করতে হলে যে ধরনের চাপ সৃষ্টি করা দরকার মিয়ানমারের উপরে, সে চাপটা সকল রাষ্ট্র, সংস্থা এবং যে সকল আন্তর্জাতিক শক্তি রয়েছে তাদের সে চাপটা দিতে হবে। মিয়ানমারের উপরে চাপ দেওয়ার ক্ষেত্রে বৃহৎ শক্তিগুলোর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। এবং সে জায়গায়তে বাংলাদেশ হয়তো জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে এনে দিতে পেরেছে বা রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে একটি পরিষ্কার দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এখন সে আলোকে ভবিষ্যতে কূটনৈতিক প্রচেষ্টা এবং অন্যান্য যে দীর্ঘ প্রক্রিয়াগুলো রয়েছে সেগুলো এগিয়ে নিতে হবে। রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানে একই গতিতে এগোতে হবে। এ বিষয়ে বাংলাদেশকে তো কাজ করবেই, একই সঙ্গে অন্য দেশগুলোকেও একসঙ্গে কাজ করতে হবে। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে অন্য দেশগুলোর সঙ্গে আরও কথা বলতে হবে। কারণ বাংলাদেশের এখানে সরাসরি কথা বলার সুযোগ রয়েছে। মুসলিম বিশ্বের সঙ্গে কথা বললে শুধু ধর্মের বিষয়টা প্রাধান্য পাবে এবং পাচ্ছে। অন্য দেশগুলোর সঙ্গে কথা বললে মানবতা এবং জাতিগত দিকটি চলে আসবে। বাংলাদেশ যে প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছে। এবং বাংলাদেশের ভূখ-ে অবস্থান করছে, তারা বাংলাদেশের জন্য এটা একটা চ্যালেঞ্জ। অপর দিকে রোহিঙ্গারা এখানে অত্যন্ত কষ্ট করছে। ফলে বাংলাদেশের একটা খুব জোরেসোরে চাপ দেওয়ার চেষ্টা করছে। এবং সেটা বাংলাদেশ করছে।

আমি মনে করি, শক্তিশালী দেশগুলোর এখন উচিত হবে আরও জোরালভাবে এগিয়ে আসা। এই মুহূর্তে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের দেশগুলোও এ বিষয়ে কথা বলছে। বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে সন্ত্রাস বিরোধী আলোচনায় যে বক্তব্য রেখেছেন। এবং মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এবং সামরিক বাহিনীর উপরে যে আক্রমণাত্মক এবং খুবই যে শক্ত অবস্থান নিয়েছে সেটি খুবই ইতিবাচক। ইউরোপের দেশগুলো. বিশেষ করে ফ্রান্স এবং যুক্তরাজ্য ইতোমধ্যে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীকে গণহত্যার অপরাধে দায়ে দায়ী করেছে। এবং তারা মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর সঙ্গে সামরিক সহযোগিতারও বিষয়টি তারা আপাতত স্থগিত রাখছে। পাশাপাশি আমরা যুক্তরাজ্যে যেটা লক্ষ্য করেছি যে অং সান সু চিকে দেওয়া যে সমস্ত পুরষ্কার দেওয়া হয়েছিল এগুলো স্থগিত করা হয়েছে। ফলে ইউরোপে কিন্তু প্রচ-ভাবে রোহিঙ্গাদের পক্ষে একটা জনমত তৈরি হয়েছে। মিয়ানমার যে সেখানে ‘এথনিক ক্লিংজিং’ বা গণহত্যা চালিয়েছে সেটা তারা স্পষ্টভাবে বুঝতে পেরেছে। ফলে এ চাপটা সেখানে আছে এবং এর বাইরে যে চীন, রাশিয়া এবং ভারত হয়তো বা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক বা নিজেদের স্বার্থের কারণে বা ভূ-রাজনৈতিক স্বার্থের কারণেই তারা মিয়ানমার সরকারের উপরে সরাসরি চাপ সৃষ্টি করছে না। কিন্তু তারা যেটা করছে, তা এই মুহূর্তে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ছিল বলে আমি মনে করি।
পরিচিতি: আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া