২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

জহির রায়হান : স্বদেশ, সমাজ ও জীবনের রূপকার

                     – পারভীন আক্তার জেমী –

RAIHANরাজনৈতিক চেতনামণ্ডিত, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক, জীবনঘনিষ্ঠ চলচ্চিত্রের রূপকার হিসেবে খ্যাতি অর্জন করলেও কবিতা, পত্রিকা সম্পাদনা, উপন্যাস ও ছোটগল্প সব অঙ্গনেই সমান দক্ষতার সাথে বিচরণ করেছেন জহির রায়হান (১৯ অগাস্ট ১৯৩৫)। পঞ্চাশের দশকে ছাত্রাবস্থায় তাঁর প্রথম গল্পগ্রন্থ সূর্যগ্রহণ (১৩৬২) প্রকাশিত হয়। জহির রায়হানের গল্প বিশ্লেষণ করলে বোঝা যায় একজন গল্পকার হিসেবে দেশ ও সমাজের প্রতি তাঁর কতখানি দায়বদ্ধতা। গল্প রচনায় তাঁর নিজস্ব চেতনা ও আদর্শের ছাপ সে দায়বদ্ধতাকে দিয়েছে স্বতন্ত্রমাত্রা।

জহির রায়হানের গল্পগুলোকে বিষয়ভিত্তিক বিশ্লেষণে কয়েকভাগে চিহ্নিত করা যায়। 
০১. ভাষা আন্দোলনভিত্তিক ০২. মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ০৩. যুদ্ধবিরোধী চেতনা ০৪. রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট ০৫. জীবন বাস্তবতা ও ০৬. সমাজধর্মভিত্তিক ইত্যাদি।
১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন আমাদের জাতীয় জীবনে এক বিরাট তাৎপর্য বহন করে। বায়ান্নোর ভাষা আন্দোলন বাঙালি জাতির প্রথম স্বাধিকার আন্দোলন। বাংলা আমাদের মাতৃভাষা। এ ভাষার রয়েছে নিজস্ব ঐতিহ্য। মাতৃভাষাকে রক্ষার জন্য জীবন দিয়েছে বাংলার ছাত্র-জনতা। এ আন্দোলন বাঙালির চেতনাকে জাতীয়তাবোধে উদ্বুদ্ধ করেছিল।
জহির রায়হান ভাষা আন্দোলন ভিত্তিক ৫টি গল্প রচনা করেছেন সূর্যগ্রহণ, মহামৃত্যু, অতিপরিচিত, কয়েকটি সংলাপ, একুশের গল্প। প্রতিটি গল্পই লেখকের আলাদা দৃষ্টিকোণ থেকে বিশ্লেষিত হয়েছে। সূর্যগ্রহণ গল্পে কবি তসলিম যেমন ভাষাকে রক্ষার জন্য জীবন উৎসর্গ করেছে তেমনি ভাষা সৈনিকের পরিবারকে দুর্গতির হাত থেকে রক্ষার জন্য আনোয়ার সাহেব অতি নিভৃতে তার জীবনের সমস্ত অর্থ, আর সময় উৎসর্গ করেছেন। কারো অবদান কম নয়।
একজন প্রকাশ্যে ভাষার জন্য জীবন দিয়েছেন, আরেকজন অতি নিভৃতে, সঙ্গোপনে সে শহীদের পরিবারকে উপার্জিত সব অর্থ দিয়ে, তসলিমের মৃত্যুরখবর না জানিয়ে বিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষা করেছেন। জহির রায়হান এ গল্পের ভেতর দিয়ে ভাষার জন্য মানুষের আত্মদান ও ত্যাগস্বীকারের বিষয়টি তুলে এনেছেন। মহামৃত্যু গল্পেও ভাষা শহীদদের আত্মদান এবং তাঁদের মৃত্যু যে কতখানি গর্বেরবিষয়, ভাষা শহীদদের প্রতি সর্বস্তরের জনগণের শ্রদ্ধা প্রকাশের মাধ্যমে সেই অনুভূতিকে প্রকাশ করেছেন।
ভাষা আন্দোলন আমাদের পবিত্র সংগ্রামের প্রতীক। জহির রায়হান সে সংগ্রামের অর্থাৎ ২১ শে ফেব্রুয়ারির ঘটনাবলীর পূর্ব এবং উত্তরকালে তাকে ঘিরে মানুষের যে প্রত্যাশা, সে প্রত্যাশার রূপ চমৎকার চিত্রনাট্যের মাধ্যমে তুলে ধরেছেন কয়েকটি সংলাপ গল্পে। একুশের গল্পটিও ভাষা আন্দোলনভিত্তিক প্রতীকাশ্রিত গল্প। ছাত্ররা যে ভাষা আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিল, প্রয়োজনে জীবন উৎসর্গ করেছিল। ভাষা আন্দোলনে আত্মত্যাগের পাশাপাশি স্বার্থান্বেষী মহলের রূপও এঁকেছেন।
অতি পরিচিত একুশের চেতনাসমৃদ্ধ রূপক গল্প। দেশভাগের পর এ দেশে কিছু লোক রাতারাতি বিত্তশালী হয়ে উঠে। বিত্তের বেসাতে এক সময় তারা রাতারাতি হয়ে উঠে সমাজ ও রাষ্ট্রের ক্ষমতাসীন ব্যক্তি। যারা এক সময় বলে যে বাংলা ভাষার নিজস্ব ঐতিহ্য নেই। এ রকম মানসিকতার ব্যক্তিরা হয়ে ওঠে বাংলার শিক্ষামন্ত্রী।
ট্রলির বাবার চরিত্রের রূপকে জহির রায়হান আমাদের সমাজের ভণ্ড, মুখোশধারী, সুবিধাভোগী ব্যক্তিদের মুখোশ উন্মোচন করেছেন। ভাষা আন্দোলন ভিত্তিক গল্পগুলোর পটভূমি এক হলেও গল্পের বক্তব্য ভিন্ন ভিন্ন তাৎপর্য বহন করে। ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস যে কত ভিন্ন মাত্রায় জনজীবনে প্রভাব ফেলেছে তার স্বার্থক রূপায়ন দেখা যায় জহির রায়হানের গল্পে।
যুদ্ধ জীবনের সাথে সম্পৃক্ত। জীবন যুদ্ধে প্রতিনিয়ত আমাদের লড়াই করতে হয়। একটি দেশের আগ্রাসী মনোভাব ব্যক্তির উপর কীরূপ প্রভাব ফেলে ক্ষমতা আগ্রাসী রাষ্ট্র, রাষ্ট্রনায়কেরা সে ভাবের গভীরে কখনো প্রবেশ করে না। তাদের শুধু আরো চাই, ক্ষমতার আধিপত্য বিস্তার করতে হবে।
পৃথিবটিা তাদের হাতের মুঠোয় থাকতে হবে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রভাব আমাদের দেশে বা দেশের মানুষের উপর বা অন্যান্য দেশের মানুষের উপর কতখানি ধ্বংসাত্মক ও মরণঘাতি ব্যাধি নিয়ে উপস্থিত হয়েছিল তারই কিছু চিত্র ফুটে ওঠে ম্যাসাকার গল্পে। এক ধরণের যুদ্ধ বিরোধী রাজনেতিক বক্তব্য নিয়ে জহির রায়হান এ গল্পে উপস্থিত।
গল্পে বিভিন্ন চরিত্রের মাধ্যমে তাঁর রাজনৈতিক দর্শন, স্বদেশ ও মানুষের প্রতি ভালোবাসার প্রকাশ ঘটেছে। যুদ্ধ কখনো শান্তি বয়ে আনে না। এক ধরণের প্রচারধর্মী বক্তব্য নিয়ে লেখক এ গল্পে হাজির। লেখক উপলব্ধি উপলব্ধি করেছেন যে, যুদ্ধ সভ্যতার নিষ্ঠুর পরিহাস। যা মানুষকে মানুষের বিরুদ্ধে লড়বার প্ররোচনা দেয়।
এ গল্পের ভেতর দিয়ে লেখক মানুষের উপলব্ধির গভীরতাকে প্রকাশ করেছেন। ‘…যুদ্ধ এমন একটা ব্যাধি যে শুধু দুর্বল এবং রোগা লোকের জীবন হরণ করে না; সুস্থ, সবল এবং সতেজ মানুষকেও হত্যা করে।’ ম্যাসাকার গল্পটি যুদ্ধের বিরুদ্ধে এবং শান্তির স্বপক্ষে লেখকের জোরালো পদক্ষেপ। একজন লেখকের দায়বদ্ধতা এ গল্পের বক্তব্যকে আরো বেশি প্রতিবাদী হতে সাহায্য করেছে।
বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ জাতির গৌরব গাঁথা। জাতির স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাস। মুক্তিযুদ্ধ ইতিহাসের এত বিস্তৃতি, এত গভীরতাকে কিছু ঘটনা, দৃশ্য, বর্ণনা, কাহিনির মাধ্যমে তুলে ধরা সম্ভব নয়। জহির রায়হান তাঁর সময়ের প্রয়োজনে গল্পে শুধুমাত্র একজন মুক্তিযোদ্ধার ডায়রীর অংশকে জীবনের জীবন্ত সত্যরূপে প্রকাশ করার কৃতিত্ব দেখাতে পেরেছেন। ডায়রীর অংশ বিশেষ হয়ে উঠেছে মুক্তিযুদ্ধের দলিল। ডায়রীর ভেতরের প্রতিটি অক্ষর জীবন্ত হয়ে পাঠককে নিয়ে যায় সেই গৌরবোজ্জ্বল সংগ্রামে।
পাঠক প্রবেশ করে জীবন্ত গল্পের ভেতর। গল্পে উঠে এসেছে যুদ্ধবিধ্বস্ত জীবন, পথ-ঘাট, রেলষ্টেশন, গ্রাম-জনপথ, মিলিটারিদের আক্রমণের রূপ, বিভিন্ন পেশার লোকদের বাংলাদেশ ভূ-খণ্ডের জন্য লড়াই করা, শ্রেণি বৈষম্য দূর করার বাসনা।
সাধারণ মানুষের ভয়-ভীতি, যুদ্ধে যাবার পর্যাপ্ত উপকরণের অভাববোধ, বায়ান্নোর ভাষা আন্দোলন, রাজনৈতিক পটভূমি, বঙ্গবন্ধু, যুদ্ধ ও লড়াইয়ের উদ্দেশ্য, যুদ্ধে অংশগ্রহণকারীদের আশাবাদী প্রত্যয়, অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াই, যুদ্ধকালীন সময়ের সাথে সম্পৃক্ত এমন কিছু নেই যা এ গল্পে তুলে ধরেননি।
এত চমৎকার বাস্তব চিত্রকল্পের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের স্বরূপ তুলে ধরতে পেরেছেন। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক একটি গল্প রচনা করেই জহির রায়হান মুক্তিযুদ্ধের সমস্ত চেতনাকে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন। একজন গল্পকার হিসেবে এখানেই জহির রায়হানের বড় কৃতিত্ব।
সমকালীন রাজনীতিকেও জহির রায়হান তাঁর গল্পে উপজীব্য করেছেন। পোস্টার গল্পে সমাজ রাজনীতির বৈপ্লবিক প্রতিচ্ছবি এঁকেছেন। স্বার্থান্বেষী চরিত্র ছাড়াও বেকার সমস্যা, শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের কথা আছে। আরো আছে কর্মী ছাঁটায়ের নামে মানুষের জীবিকার পথ বন্ধ করে দেবার কথা। নয়াপত্তন গল্পেও স্থান পেয়েছে গণমানুষের ইচ্ছাশক্তি, স্বনির্ভরতা, তাদের অংশগ্রহণমূলক রাজনৈতিক চেতনার কথা।
দেশ ও সমাজের সাথে সম্পৃক্ত মানুষ, মানুষের জীবন। মানুষের জীবনের প্রতিটি বাঁকেই রয়েছে অতৃপ্তি, কামনা-বাসনা, ইচ্ছাপূরণের স্বপ্ন। জহির রায়হান জীবন বাস্তবতাকে গল্পের অনুষঙ্গ করে তুলেছেন। ইচ্ছার আগুনে জ্বলছি তাঁর অতৃপ্ত মনের বাসনার প্রকাশ। যা সাধারণ মানুষের স্বাভাবিক বাসনাগুলোকে অতিক্রম করেছে।
উত্তমপুরুষে বর্ণিত গল্পে ইচ্ছাগুলো এরকম ছবি বানাতে চান কুষ্ঠ রোগীদের নিয়ে, রাজনৈতিক আক্রোশ কীভাবে একজন মানুষের বাসনাগুলোকে নষ্ট করে দিতে পারে তার চিত্র আঁকতে চান, মানুষরূপী জানোয়ারদের নিয়ে, অবরুদ্ধ তরুণ সমাজকে নিয়ে, মানুষের মনের সংকীর্ণতাকে ফুটিয়ে তুলতে চান ছবির মাধ্যমে। মানুষের বৈপরীত্য ও স্ববিরোধিতার কঠিন বাস্তবতা এ গল্পের বিষয়বস্তু। আরো রয়েছে সমাজ জীবনের জটিল, কুটিল ও দ্বন্দ্বময় চিত্রায়ণ।
জীবনযুদ্ধে টিকে থাকার সংগ্রাম আঁকতে গিয়ে একজন জাত পকেটমারের গল্প পকেটমার গল্পে তুলে ধরেছেন। যে কিনা দুর্ভিক্ষের করাল থাবা থেকে বাঁচার জন্য জীবনের স্বপ্নকে পেছনে ফেলে শহরে এস হয়ে ওঠে পকেটমার। মানবতা চাপা পড়ে মনে জন্ম নেয় স্বার্থচিন্তা।
ঘটনাক্রমে অভিজ্ঞতা, বাস্তবতা ও জীবন সংগ্রামই তাকে আবার মানবিক করে তুলে এবং গল্পে শেষ পর্যন্ত মানবতার জয় ঘোষিত হয়। জীবন মানুষের। জীবনকে উপভোগ করতে দেয় না মানুষরূপী কুকুরেরা। কুকুরের রূপকে বঞ্চিত মানুষের আর্তনাদকে তুলে ধরেছেন। মানুষের অধিকারের চেতনা জাগ্রত হলে কুকুরবেশি ভদ্রলোকেরা বেশিদিন তাদের অত্যাচার চালাতে পারবে না।
এ রকম সমাজ পচনের চিত্র পাই তাঁর কতকগুলো কুকুরের আর্তনাদ গল্পে। আত্মসম্মান নিয়ে বেঁচে থাকা, জীবনের কাছে হেরে না যাবার গল্প দেমাক। মধ্যবিত্তের জীবন এঁকেছেন সোনার হরিণ গল্পে। আবার প্রথম গল্প হারানো বলয়ে একজন সমাজবাদী হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন।
ধর্মের অপব্যবহার কীভাবে ব্যক্তি ও সমাজে প্রভাব পড়ে সমাজধর্ম বিষয়ক গল্পগুলো তার স্বাক্ষর। সমাজধর্মের মৌলিক জিজ্ঞাসাকে সকলের সামনে প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলেছেন একটি জিজ্ঞাসা গল্পে। ধর্মের নামে ব্যবসা, লোক ঠকানো, গ্রামীণ ধর্মীয় অনুভূতি, অন্ধ বিশ্বাস এবং পীর দরবেশের প্রভাব ব্যক্তি ও সমাজ জীবনে কতরূপে প্রভাব ফেলে তার রূপায়ন বাঁধ।
অপরাধ গল্পে পাওয়া যায় বাল্যবিবাহ, পর্দাপ্রথার আড়ালে নারীকে অবরুদ্ধ করে রাখা, নারীর অবমূল্যায়ন, নারী মুক্তির আকাঙ্ক্ষার কথা উপজীব্য। নারী মুক্ত চিন্তার যোগ্যতা রাখে। নারীর স্বাধীনতা প্রয়োজন। নারীর এ ধরণের মানসিক পরিবর্তণের চিত্র পাই স্বীকৃতি গল্পে।
জহির রায়হান শুধুমাত্র একটি গল্পগ্রন্থ লিখেই বাংলা ছোটগল্পের অঙ্গনে তাঁর স্বকীয়তার ছাপ রাখতে সক্ষম হয়েছেন। ভাষার সরলতা, গতিময় বর্ণণা, উপমা ও প্রতীকের ব্যবহার, চিত্রকল্প ভাষারীতি এবং সর্বোপরি বিষয়ের স্বাতন্ত্র্য আর বিশ্লেষণের অভিনবত্ব জহির রায়হানের গল্পগুলোকে আরো বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত করে তুলেছে।
দেশ, সমাজ ও মানুষের প্রতি দায়বদ্ধ শিল্পী হিসেবে তিনি তাঁর গল্পের প্রতিটি বিষয়কে জীবন ঘনিষ্ঠ ও বাস্তবরূপে তুলে ধরতে পেরেছেন। দেশ, সমাজ ও মানুষের জীবনের যা কিছু অবলোকন করেছেন, উপলব্ধি করেছেন তা-ই তাঁর গল্পের বিষয় হয়ে উঠেছে। সময় তাঁর কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছে বেঁচে থাকার অধিকার।
তা না হলে এ রকম প্রতিভাবান শিল্পীর কাছ থেকে আরো অনেক শিল্পসমৃদ্ধ ছোটগল্প উপহার পেতাম। জাতির জন্য, সাহিত্যের পাঠকের জন্য এ দুর্ভাগ্য। যতটুকু দিয়েছেন তার মধ্য দিয়ে তিনি বাংলাদেশের মানুষের মাঝে, সাহিত্যেরঅঙ্গনে চির অম্লান হয়ে থাকবেন।
ড. পারভীন আক্তার জেমী : প্রাবন্ধিক, অধ্যাপক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া