২২শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং | ৭ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

বনমন্ত্রী বললেন-সুন্দরবন না থাকলে গোপালগঞ্জও থাকবে না

GOPALGONGডেস্ক রিপাের্ট : বিশ্ব বাঘ দিবসের আলোচনায় যোগ দিয়ে পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেছেন, ‘সুন্দরবন না থাকলে বাগেরহাট ও খুলনাই নয়, গোপালগঞ্জও থাকবে না। বাঘ রক্ষার ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তরিক।’

মন্ত্রী বলেন, ‘শুধু বাংলাদেশেই বাঘের সংখ্যা কমছে না, সমস্ত পৃথিবীতে বাঘের সংখ্যা কমছে। তবে হতাশ হওয়ার কিছুই নেই, বাংলাদেশে বাঘের আবাসস্থল বেড়েছে। ’

২৯ জুলাই শনিবার দুপুরে বাগেরহাট জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে বন অধিদপ্তরের প্রধান বন সংরক্ষক (সিসিএফ) মোহাম্মদ সফিউল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বনমন্ত্রী বলেন, ‘বন নিয়ে যারা চেঁচামেচি করেন, তাদেরকে আহ্বান জানাই, হেলিকপ্টারে সুন্দরবন ভ্রমণ করে দেখার জন্য আসলে গাছ কমেছে কি না।’

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেন, ‘বাংলাদেশের অংশে সুন্দরবনে বাঘ আগের থেকে অনেক বেশি নিরাপদ। মানুষের মধ্যে এখন অনেক বেশি সচেতনতা বৃদ্ধি পেয়েছে। সুন্দরবনের গাছপালা সুরক্ষিত আছে। কোনো কোনো পত্রিকায় যেসব পরিসংখ্যান দেয়া হয় এটা আমাদের পরিসংখ্যান না। প্রধানমন্ত্রী বাঘ রক্ষায় জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছেন। বাঘ হত্যা করলে কাউকেই ক্ষমা করা হবে না।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের সুন্দরবনে বাঘ রক্ষার প্রকল্পগুলো চলত দাতা সংস্থার অর্থায়নে। বাংলাদেশের সম্ভবনাটাকে অনেকেই স্বীকার করতেই রাজি নন। যেমন কি না একাত্তর সালে বাংলাদেশ স্বাধীনতার সময়ে যেদিন পাকিস্তানের নিয়াজি স্বাক্ষর করছেন সেদিনও যেন দেশ স্বাধীন হবে না বলে মনে করেছিলেন তারা। বাংলাদেশ এখন অনেক পরিবর্তন হয়েছে। আগামী প্রজন্মের জন্য আমাদের প্রধানমন্ত্রী নেতৃত্ব এমন একটি মডেল বাংলাদেশ গড়ে উঠেছে যা নিয়ে আপনারা গর্ব করতে পারেন।’

মঞ্জু বলেন, ‘সুন্দরবনে স্মার্ট পেট্রোলিং এর টাকা দিত দাতা সংস্থা ইউএসএআইডি, বলা নাই কওয়া নাই তারা প্যাট্রলিং এর অর্থ বরাদ্দ বন্ধ করে দিয়েছে। কিন্তু আমরা পিছুপা হইনি। আমরা এখন নিজেদের অর্থে এই কাজ করি। বাংলাদেশের মানুষ ইতোমধ্যে সেই সক্ষমতা অর্জন করেছে। আমাদের সমস্য আমাদেরই মোকাবেলা করতে হবে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাগেরহাট-৪ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মোজাম্মেল হোসেন বাঘ হত্যার শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করার প্রস্তাব করেন। তিনি বলেন, ‘সুন্দরবনের বাঘ বাঁচাতে হলে আমাদের সুন্দরবনকে বাঁচাতে হবে। বনে যারা বাঘ মারছে বা বিষ দিয়ে মাছ মারছে তাদের গুলি করে মারা উচিত।’

এমপি বলেন, ‘সুন্দরবনে যারা আগুন দিচ্ছে তাদের জাতীয় শত্রু। রক্ষক যদি ভক্ষক হয় তা হলে সুন্দরবন বেশি দিন থাকবে না। বন বিভাগের যেসব অসাধু কর্মচারী চোরা শিকারীদের সাথে সম্পৃক্ত তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে।’

এর আগে বাগেরহাট শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা পরিষদ মিলনায়তনে গিয়ে শেষ হয়।

বন অধিদপ্তরের প্রধান বন সংরক্ষক (সিসিএফ) মোহাম্মদ সফিউল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন উপমন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপি, বাগেরহাট-২ আসনের সাংসদ অ্যাডভোকেট মীর শওকাত আলী বাদশা, বাগেরহাট-৪ আসনের সাংসদ ডা. মোজাম্মেল হোসেন, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের সচিব ইসতিয়াক আহমেদ ও খুলনার অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মো. ফারুক হোসেন।

সভায় মূল প্রতিপাদ্য উপস্থাপন করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণী বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া