২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

বিএনপির ভারতভীতি ভারতপ্রীতিতে রূপ নিচ্ছে?

                             – কাজী সিরাজ –

SERAZনির্বাচনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না এলেও দেশের প্রধান দুই রাজনৈতিক দল নির্বাচনী প্রচার শুরুই করে দিয়েছে। দুই দলের প্রধান দুই নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া নিজ নিজ দলের পক্ষে জনগণের কাছে ভোট প্রার্থনা করে চলেছেন। নির্বাচনের পক্ষে প্রথম মুখ খোলেন ক্ষমতাসীন দলের সভানেত্রী শেখ হাসিনা। দলের ২০তম জাতীয় কাউন্সিলে তিনি নেতা-কর্মীদের নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরুর নির্দেশ দেন।   তার বক্তব্য থেকে একটা ধারণা জন্মে যে, একাদশ সংসদ নির্বাচন নির্ধারিত সময়ের আগেও হয়ে যেতে পারে।   বিএনপিও তার অবস্থান ঘোষণায় বিলম্ব করেনি। লীগ কাউন্সিলের পরপরই দলের ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলে স্পষ্ট হয় যে, তারাও নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। সে কাউন্সিলেই একাদশ সংসদ নির্বাচনের ‘মিশন’ সামনে রেখে বেগম খালেদা জিয়া দলের ভিশন-২০৩০ ঘোষণা করেন।

সরকারি দল আওয়ামী লীগ খুবই জুতসই অবস্থানে আছে। ক্ষমতায় থাকার সুবাদে সভা-সমাবেশ ও নির্বাচনের পক্ষে অন্যান্য প্রচার-প্রচারণায় তারা কোনো ধরনের পুলিশি বা আইনি প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়ছে না। বড় বড় সমাবেশ-জনসভায় মন্ত্রী-মিনিস্টার, নেতা-নেত্রীরা ভাষণ দিয়ে বেড়াচ্ছেন। খোদ প্রধানমন্ত্রীও বেশ কয়েকটি বড় জনসভায় আওয়ামী লীগের পক্ষে ভোটের ক্যানভাস করেছেন এবং নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আবারও তার দলকে সরকার গঠনের সুযোগ দেওয়ার জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। বিএনপিকে ভোট না দেওয়ার জন্যও বলেছেন তিনি। তার মতে, বিএনপিকে ভোট দিলে দেশের সর্বনাশ হয়ে যাবে, উন্নয়নের ধারা বাধাগ্রস্ত তো হবেই, উপরন্তু সরকারের বর্তমান উন্নয়ন কর্মসূচিগুলোর ভবিষ্যৎও অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। বিএনপি এখনো বড় কোনো জনসভার অনুমতি না পেলেও মুখ বন্ধ নেই। রমজানে ইফতার মাহফিলের নামে তারা বস্তুত রাজনৈতিক সমাবেশই করেছে। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, অন্যায়-অনাচারের ভারে নৌকা এবার ডুববে। তিনি গণতন্ত্র, সুশাসন ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বিএনপিকে ধানের শীষে ভোট দেওয়ার জন্য জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। দুই দল প্রার্থী বাছাইয়ে প্রাথমিক কাজকর্মও শুরু করে দিয়েছে। এক্ষেত্রেও শাসক দল এগিয়ে আছে। প্রতি নির্বাচনী এলাকাতেই যথেষ্ট আর্থিক সঙ্গতিসম্পন্ন প্রার্থী এখন আওয়ামী লীগে বেশি। দীর্ঘ সাড়ে আট বছর একনাগাড়ে ‘ক্ষমতায়’ থাকার কারণে দলের উঁচু-নিচু স্তরের বহু লোক ‘রুজি-রোজগারের’ যথেষ্ট সহজ সুযোগ পেয়েছেন। অনেকে বাহুবলে সে সুযোগ করেও নিয়েছেন। পত্রপত্রিকায় প্রায় প্রতিদিনই আওয়ামী লীগ ও এর বিভিন্ন সহযোগী দলের নানাজনের নানা ‘কীর্তির’ কথা ফাঁস হচ্ছে। এত টাকাওয়ালা এখন আওয়ামী লীগে যে, ‘কাকে ছেড়ে কাকে নেব’ অবস্থা।

১০ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি এদিক দিয়ে কিছুটা দুর্বল। ক্ষমতায় থাকাকালে ‘রুজি-রোজগার’ অনেকে যা করেছেন পুলিশ, থানা, কোর্ট-কাচারির পিছে তার অনেকটাই গেছে। তবুও এখনো অনেকের এত আছে যে, এরকম দুই-চারটা নির্বাচনী খরচ তাদের কাছে ‘নস্যি’। তবে অতীত ‘রুজি’ আর চলমান ‘রুজির’ শক্তির কিছুটা তো পার্থক্য আছেই। শাসক লীগের নেতা-কর্মীরা কোনো অপরাধের সঙ্গে জড়ালেও আইনি জটিলতা তাদের হচ্ছে বলে মনেই হচ্ছে না; কিন্তু বিএনপি এবং তাদের জোটসঙ্গী জামায়াতে ইসলামীর নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে নতুন নতুন মামলা-মোকদ্দমা দায়েরেরও খবর পাওয়া যাচ্ছে। চান্স পেলেই ‘নাশকতার’ রাজনৈতিক মামলায় ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে কারাগারে। গেল ২ জুলাই মতিঝিল থানার চার ‘নাশকতা’ মামলায় সাবেক বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুককে জেলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। মামলায় হাজিরা দিতে গেলে তার জামিন বাতিল করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয় সংশ্লিষ্ট আদালত। সরকারি দল এবং অঙ্গ ও সহযোগী দলের নেতা-কর্মীরা এলাকায় থেকে নিরুপদ্রবে কাজ করতে পারছেন, এমনকি নানা ধরনের অপরাধমূলক কাজের অভিযোগও যদি কারও বিরুদ্ধে থাকে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দৃষ্টি এড়িয়ে তারা প্রকাশ্যেই দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছে বলে অভিযোগ উঠছে মাঝে মাঝে। এমন সব প্রতিকূলতার মাঝেও বিএনপিকে এখনো নির্বাচনে অংশগ্রহণের ব্যাপারে অটল বলে মনে হচ্ছে। বিএনপির কোনো কোনো শীর্ষ নেতার সঙ্গে আলোচনা করে এমন ধারণাই পাওয়া যায় যে, ‘সহনীয় পর্যায়ের’ নিরপেক্ষ নির্বাচন হলেও তারা এবার জনগণের সমর্থনে সরকার গঠনে সক্ষম হবে। এটা স্বীকার করতে কারোরই দ্বিধা থাকা উচিত নয় যে, দীর্ঘ ১০ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকার পরও বিএনপির জনসমর্থনে কোনো চির ধরেনি। বরং বলা চলে, সরকারের নানা সমালোচনাযোগ্য কর্মকাণ্ডের কারণে তাদের প্রতি মানুষের বৈরিতা বাড়ছে। এমনকি তাদের অনেক ভালো সমর্থকও মত পাল্টাচ্ছে। বিএনপির সমর্থনের পাল্লা ভারী হচ্ছে। তাই জয়ের ব্যাপারে তারা বেশ আশাবাদী। আশার কথা বাইরেও বিএনপির ভাবনা হচ্ছে, এবার তাদের জিততে হবে। তা না হলে দল মুসলিম লীগের পথ ধরবে। জেতার জন্যই তারা নীতি-কৌশল পরিবর্তন করছে বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। নির্বাচনে জেতার লক্ষ্যে বিএনপি দলের ভারতনীতিতে তাৎপর্যপূর্ণ পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা মনে করেন, বিএনপি এখন মর্মে মর্মে উপলব্ধি করছে, আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের পরম বন্ধু, বিশাল নিকট প্রতিবেশী দেশ ভারতবিরোধী রাজনীতি করে এ দেশে ক্ষমতার রাজনীতিতে সাফল্য অর্জন করা সহজ নয়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে এক কোটি শরণার্থীকে আশ্রয় ও খাবারের ব্যবস্থা এবং সশস্ত্র যুদ্ধে সর্বতো সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশের অনেক ভোটারের ওপর সে দেশটির মনস্তাত্ত্বিক একটা প্রভাব রয়েছে। তাদের ভারতপন্থি না বলে ভারতের প্রতি গভীরভাবে কৃতজ্ঞ বলা যায়। এ ভোটাররা বাংলাদেশের নির্বাচনে ভারতের মনোভাব পরখ করতে চায়। সে অনুযায়ী তারা সিদ্ধান্ত নেয়। বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়ন সহযোগী হিসেবেও ভারত যথেষ্ট অবদান রাখতে পারে বলে দেশের একটি সচেতন মহল দৃঢ় মত পোষণ করে। একেবারে নিকট প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে অর্থনৈতিক লেনদেন ও ব্যবসা-বাণিজ্য অনেক ক্ষেত্রেই সহজতর এবং উপযোগী। আকস্মিক কোনো সংকটে ভারত যত দ্রুততম সময়ে আমাদের পাশে দাঁড়াতে পারে, অন্য কোনো দেশ চাইলেও তা পারে না। এক সময় অখণ্ড ভারতের অন্তর্গত বাংলাদেশের জনগণের সঙ্গে ভারতীয় জনগণের বোঝাপড়া, সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও ঐতিহ্যগত নৈকট্যও অবজ্ঞা করার বিষয় নয়। বাংলাদেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ভোটও একটা বড় ফ্যাক্টর। বিএনপি এসব বাস্তবতা এখন অনুধাবন করছে বলে বোঝা যাচ্ছে। বিএনপির সাবেক সফল মহাসচিব মরহুম আবদুল মান্নান ভূঁইয়া ২০০৭ সালের জুনে তার উত্থাপিত সংস্কার প্রস্তাব বিশ্লেষণের একপর্যায়ে ভারত ও বাংলাদেশের সম্পর্কের ব্যাপারে বলেছিলেন, এ ব্যাপারে একটা স্থায়ী ব্যবস্থা প্রণীত হওয়া উচিত, যাতে সরকার পরিবর্তন হলেও দুই দেশের সম্পর্ক নীতিতে কোনো রদবদল না হয়। তবে তা হতে হবে সমমর্যাদার ভিত্তিতে। এ উদ্দেশ্যে তিনি বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে একটি সুচিন্তিত ‘প্যাকেজ ডিল’-এর প্রস্তাব করেছিলেন। পর্যবেক্ষকরা মনে করেন, মূলত তার এ দৃঢ় অবস্থানের কারণেই বিএনপির ভারতবিরোধী নেতৃত্বাংশ (মালিকপক্ষ— যারা জামায়াত ও দলের জামায়াতপন্থি কুচক্রীদের দ্বারা প্রভাবিত ছিলেন) তার ওপর ভীষণ চটেছিলেন। দল ভাঙা ও খালেদা জিয়াকে মাইনাস করার অভিযোগ ছিল কর্মীদের ক্ষিপ্ত করার একটি নোংরা কৌশল। সবার মনে থাকার কথা যে, ওয়ান-ইলেভেন সরকারের সময় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত একটি দুর্নীতি মামলায় ‘মন্ত্রিসভা পারচেজ কমিটি’র সদস্য হিসেবে সাইফুর রহমান, খন্দকার মোশাররফ, মতিউর রহমান নিজামী, এম কে আনোয়ার, শামসুল ইসলামদের সঙ্গে গ্রেফতারের আগে প্রদত্ত এক বিবৃতিতে আবদুল মান্নান ভূঁইয়া বলেছিলেন, ‘খালেদা জিয়াই আমাদের নেত্রী। তার নেতৃত্বেই আমরা আন্দোলন করব এবং সরকার গঠন করব। ’ কারামুক্তির পর শহীদ জিয়ার মাজারে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে হাজার হাজার মানুষকে সাক্ষী রেখেও একই কথা বলেছিলেন। তখনকার পত্রপত্রিকায় চোখ রাখলেই এর সত্যতা খুঁজে পাওয়া যাবে। বিএনপির রাজাকারপন্থিরা তখন মান্নান ভূঁইয়াকে ‘ভারতের দালাল’ বলেও অপপ্রচার চালিয়েছিল। দলকে পরিচ্ছন্ন করা, দুর্বৃত্তায়নমুক্ত করা, জন্মকালীন আদর্শে পুনঃস্থাপন করার প্রস্তাব পেশ ও দল ভাঙা এক কথা নয়। মান্নান ভূঁইয়া চেয়েছিলেন প্রথমটা। এর পেছনে ভয়ের কোনো কারণ ছিল না। মান্নান ভূঁইয়াবিরোধীদের ভয় ছিল, সংস্কার প্রস্তাব কাউন্সিলে উত্থাপনের পর খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতেই তা পাস হয়ে গেলে দলের ভারতনীতিতে ‘আমূল পরিবর্তন’ আসবে।

তাই কোনো প্রকার কারণ দর্শানোর নোটিস ছাড়াই চেয়ারপারসনকে দিয়ে দলের প্রায় এক যুগের সফল মহাসচিব ও দুঃসময়ের কাণ্ডারি আবদুল মান্নান ভূঁইয়াকে বহিষ্কার করার সুযোগ নিয়েছে তার বিরোধীরা। তারা মান্নান ভূঁইয়ার পদ কেড়ে নিয়েছেন; কিন্তু একজন সৎ, যোগ্য ও আদর্শবাদী রাজনীতিবিদ হিসেবে তার গৌরব কেড়ে নিতে পারেননি। ভারতের সঙ্গে বিএনপির দলগত সম্পর্ক ও ভাবনা নিয়ে আবদুল মান্নান ভূঁইয়ার চিন্তা ও দর্শনই এখন আগামী নির্বাচনে বিএনপির হাতে তুরুপের তাস বলে মনে হচ্ছে। এ ধরনের চিন্তা-ভাবনার সূচনা হয়েছে খালেদা জিয়ার সর্বশেষ ভারত সফরকালে। সেখানে সফরকালে খালেদা জিয়া ভারতের সঙ্গে সম্পর্কের প্রশ্নে স্পষ্ট করে বলেছিলেন, ‘আমরা অতীত ভুলে যেতে চাই। পেছনে নয়, আমরা সামনে তাকাতে চাই। ’ ভারতের রাষ্ট্রীয় স্বার্থবিরোধী কোনো কাজে বাংলাদেশ ভূখণ্ড ব্যবহার করতে না দেওয়ার দৃঢ় অঙ্গীকারও তিনি ব্যক্ত করেন। ভারতকে ট্রানজিট সুবিধা দেওয়ার কথাও তিনি তখন বলেছিলেন। তার সেই অবস্থান দলের রাজাকারপন্থি ও ডানপন্থি প্রতিক্রিয়াশীলদের পছন্দ হয়নি। তাদের প্রতিনিধি হিসেবে খালেদা জিয়ার সফরসঙ্গী ছিল এক ব্যক্তিগত কর্মচারী। খালেদা জিয়া ভারত প্রশ্নে যেদিন তার পরিবর্তিত ব্যক্তিগত অবস্থান ঘোষণা করেন, ভারত ও বাংলাদেশে সেদিন এক অনুকূল প্রতিক্রিয়া লক্ষ করা যায়। কিন্তু বিএনপির প্রতিক্রিয়াশীল অংশ তাতে আতঙ্কিত হয়ে ওঠেন। খালেদা জিয়া দিল্লিতে অবস্থানকালেই তার উল্লিখিত ব্যক্তিগত কর্মচারী তার ‘প্রভু’দের নির্দেশে এক বিবৃতি প্রচার করে যে, ‘বিএনপির ভারত নীতিতে কোনো পরিবর্তন হবে না। ’ এমন একটি নীতিগত বিষয়ে খালেদা জিয়ার একজন ব্যক্তিগত কর্মচারী কীভাবে বিদেশের মাটিতে এমন বক্তব্য দিয়েছিল, সে বিস্ময় এখনো রয়েই গেছে। খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে কর্মচারীর বক্তব্যটি নাকচ করা হয়নি, পদচ্যুতও করা হয়নি তাকে। বোঝা গেছে, ডানপন্থি প্রতিক্রিয়াশীল ভারতবিরোধী চক্রের কাছে খালেদা জিয়া ‘হেরে’ গেছেন। দেশে ফেরার পর খালেদা জিয়ার আচরণেও পরিবর্তন লক্ষ করা যায়। এরপর শোনা যায়, লন্ডন থেকে তারেক রহমান ভারতের নতুন মোদি সরকারের সঙ্গে নতুন সম্পর্কের ভিত রচনার চেষ্টা করছেন। বাংলাদেশ সফররত ভারতের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে খালেদা জিয়ার অ্যাপয়েন্টমেন্ট বাতিলের অসৌজন্যতা সে প্রক্রিয়ায় ব্যাঘাত ঘটায় বলে শোনা যায়। অনেক ভুলভ্রান্তি ও অবিমৃশ্যকারী আচরণের পর ভারতের সঙ্গে সম্পর্কের নীতিতে বিএনপি এখন অনেকটাই স্থিত হয়েছে বলে মনে হয়।

দলের ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল থেকে তা স্পষ্ট হতে শুরু করেছে। ভিশন-২০৩০তে পরিষ্কারভাবেই ব্যক্ত হয়েছে বিএনপির মনের কথা। সম্ভবত বিএনপি সাড়াও পাচ্ছে। গত প্রায় এক দশক পর এবারই বিএনপির ইফতার মাহফিলে ভারতের হাইকমিশনারকে উপস্থিত থাকতে দেখা গেল। এটা একটা বার্তা তো বটেই। এক ইফতার অনুষ্ঠানে খালেদা জিয়া আওয়ামী লীগ ও ভারতের বর্তমান সম্পর্কের প্রতি ইঙ্গিত করে যা বলেছেন তা সংক্ষেপে এমন যে, ২০১৪ সালের নির্বাচনে যে দেশটির সমর্থনে ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসেছে, এবার নাকি তাদের পক্ষ থেকেও তেমন সাড়া নেই। ওই দেশটি এবার নির্বাচনে বিএনপির পক্ষ নেবে কিনা, তা পরিষ্কার করেননি তিনি। তবে একটা সুসম্পর্ক বিএনপির সঙ্গে গড়ে ওঠার সম্ভাবনা তাতে স্পষ্ট হয়েছে। সম্পর্ক নির্মাণের সূত্রটি বোধ হয় সে দেশে গেল নির্বাচনে সরকার বদলে যাওয়া। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি বাংলাদেশের দশম সংসদ নির্বাচনের সময় ভারতে ক্ষমতায় ছিল কংগ্রেস সরকার। কংগ্রেসের সঙ্গে আওয়ামী লীগের পার্টি-টু-পার্টি সম্পর্ক খুব নিবিড়। মুক্তিযুদ্ধের আগে থেকেই তাদের যোগাযোগ— এ তথ্য এখন সবার জানা। সেই সরকার প্রকাশ্যে আওয়ামী লীগের পক্ষে অবস্থান নিয়ে তৎকালীন ভারতীয় স্বরাষ্ট্র সচিব সুজাতা সিংকে বাংলাদেশে পাঠিয়েছিল নির্বাচন বর্জনকারী হুসেইন মুহম্মদ এরশাদসহ অন্যদের ওপর প্রভাব বিস্তার করার জন্য। তিনি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে বলেছিলেন, ‘শেখ হাসিনা যা বলেন সেভাবে কাজ করেন। ’ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ তা পাবলিক করে দেন। মোদি সরকার ক্ষমতায় এসে সুজাতা সিংকে চাকরিচ্যুত করে। এটা ধরেই নেওয়া যায় যে, কংগ্রেসের সঙ্গে আওয়ামী লীগের যে সম্পর্ক বিদ্যমান, বর্তমান ক্ষমতাসীন বিজেপির সঙ্গে তেমন সম্পর্ক হতে অনেক সময় লাগবে। তা ছাড়া তাদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দলের ঘনিষ্ঠ কোনো মিত্র দলের সঙ্গে বিজেপি সম্পর্ক স্থাপন করবে কিনা তাও একটি বড় প্রশ্ন। বিএনপির জন্য এখানে একটা স্পেস আছে। সম্পর্ক নির্মাণটা নির্ভর করবে দুই পক্ষের আগ্রহের ওপর। ভারতে যারাই ক্ষমতায় থাকুক, জাতীয় স্বার্থে অবশ্য তারা কোনো আপস করে না। সম্প্রতি চীনের সঙ্গে আওয়ামী লীগ সরকার জাতীয় স্বার্থে যে অর্থপূর্ণ ও নিবিড় সম্পর্ক গড়ে তুলেছে, ভারত সে সম্পর্ককে কীভাবে দেখছে, বর্তমান সরকারের সঙ্গে ভারতের বর্তমান সরকারের সুসম্পর্ক তার ওপরও নির্ভর করছে। চীনের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ক ও বন্ধুত্ব অনেকটা পুরনো। জিয়াউর রহমানের আমলেই এ সম্পর্ক সিমেন্টেড হয়। ভারত এ ব্যাপারটা কীভাবে মূল্যায়ন করে তাও দেখার বিষয়। চীন ও ভারতকে নিয়ে এক জটিল সমীকরণের মধ্যে আছে বিএনপি। তবুও ক্ষমতায় যাওয়ার ব্যাপারে যে কোনো ডেসপারেট পলিটিক্যাল মুভ বিএনপি নিয়ে নিতে পারে। আগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপির কার্যক্রমে তা স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। বিএনপির এ মুভ দেশের মানুষ ও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় শক্তিকেন্দ্র কীভাবে দেখছে তাও বিবেচনার বিষয়। জোটেও মনে হয় পরিবর্তন আনতে চায় দলটি। বিএনপি জামায়াতের সঙ্গে আপাতত একটা দূরত্ব বজায় রাখতে চায় বলে শোনা যাচ্ছে। জামায়াতকে জোটের বাইরে রেখে গণফোরাম, বিকল্পধারা, সিপিবি, বাসদ, জেএসডি, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগসহ প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলগুলো নিয়ে মহাঐক্যজোট গড়ার চেষ্টাও তারা করছে বলে শোনা যাচ্ছে। তেমন একটা কিছু যদি হয়, তাহলে দেশের রাজনীতিতে তাৎপর্যপূর্ণ কিছু পরিবর্তন লক্ষ করা যাবে। বিএনপি তা ধারণ করতে কি সক্ষম? আবার এমন কথাও রাজনৈতিক মহলে প্রচার আছে যে, জামায়াত বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটে থাকবে কিনা তা জামায়াতই সিদ্ধান্ত নেবে। তারা তো কারও সঙ্গে ঐক্য গড়ে তাদের দলীয় স্বার্থ-চিন্তায়। বিএনপির সঙ্গে থাকার প্রয়োজন তাদের শেষ হয়ে গেছে আপাতত। সংগঠন বিস্তৃত করার সুযোগ গত ১৮-১৯ বছরে তারা পুরোপুরি কাজে লাগিয়েছে। আপাতত বিএনপি থেকে ‘ভক্ষণ’ করার কোনো ‘মধু’ নেই। এখন তাদের অস্তিত্ব রক্ষার সংকট। এ সংকটে বিএনপি তাদের কোনো সাহায্য করতে পারবে না। বিএনপি নিজেই সংকটে। এমতবস্থায় সরকারের সঙ্গে কোনো প্রকার একটা সম্পর্ক তাদের জন্য বেশ উপযোগী। নির্বাচন কমিশনে তাদের নিবন্ধন বাতিল হয়ে আছে। কিন্তু তাদের ক্যাডার-কর্মীরা এখনো অবিচল। আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের পক্ষে তাদের নীরব সমর্থন ক্ষমতাসীনদের খুব কাজে লাগতে পারে। তলে তলে তেমন আলাপ-আলোচনার কথা শোনাও যাচ্ছে।   যেসব আসনে জামায়াতের সমর্থন বিএনপির কাজে লাগতে পারে সেসব আসনে স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করে বিএনপি প্রার্থীকে হারিয়ে দেওয়ার দায়িত্বও নিতে পারে জামায়াত।

তবে এসব আলোচনা ছাপিয়ে ভারতভীতি থেকে বিএনপির বর্তমান ভারতপ্রীতির বিষয়টিই এখন রাজনৈতিক মহলে আলোচনার শীর্ষে। দেখার বিষয়, বিএনপি শেষ পর্যন্ত অবস্থানে দৃঢ় থাকতে পারে কিনা।   আবার ভারতের রাষ্ট্র পরিচালনার ‘নেপথ্য শক্তি’ বিএনপি-আওয়ামী লীগের মধ্যে তাদের জাতীয় স্বার্থে কাকে অধিকতর নির্ভরযোগ্য মনে করে— নৈতিক সমর্থনের ক্ষেত্রে তাও একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

লেখক : সাংবাদিক, কলামিস্ট।
 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া