২৪শে অক্টোবর, ২০১৭ ইং | ৯ই কার্তিক, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

লন্ডন অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের পুর্নবাসনের দাবিতে বিক্ষোভ

Demonstrators hold up banners during a march in Westminster, following the fire that destroyed The Grenfell Tower block, in north Kensington, West London, Britain June 16, 2017. REUTERS/Peter Nicholls আন্তর্জাতিক ডেস্ক : গ্রেনফেল টাওয়ার অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের জরুরী সহায়তার দাবিতে কেনসিংটন ও চেলসি টাউন হল ঘেরাও করেছে প্রতিবাদী জনগণ। স্মরণকালের ভয়াবহ এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনসহ কয়েকটি দাবী নিয়ে কয়েকশ’ মানুষ টাউন হলের সামনে জমায়েত হয়। এক পর্যায়ে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে কাউন্সিল বিল্ডিং এর দরজায় আঘাত করে ভিতরে ঢুকে প্রতিবাদী জনতা দোতলায় অফিসে উঠতে চাইলে নিরাপত্তা কর্মীরা তাদের বাঁধা দেয়। এ সময় বিক্ষোভকারীদের সাথে পুলিশের ধাক্কাধাক্কি হয়। বিবিসি জানায়।
বিক্ষোভকারীদের দাবি, অগ্নিকাণ্ডের শিকার গৃহহীনদের 'এখনই' সাহায্যের প্রয়োজন। তারা এ সময় প্রশাসনের অবহেলার সমালোচনা করেন।
উত্তর কেন্সিংটনে ক্লিমেন্ট জেমস সেন্টারের বাইরে জনতা বিক্ষোভ করে যেখানে ক্ষতিগ্রস্থদের সাথে প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে'র বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। মৃত্যুর সংখ্যা অন্তত ৩০ জনে পৌঁছার পরে থেরেসা কাপড়, খাদ্য এবং জরুরী সহায়তার জন্য ৫ মিলিয়ন অর্থ অনুমোদন করে। এখনো ৭০ জন নিখোঁজ আছে বলে ধারণা করছে বিবিসি।

এক প্রতিবাদকারী বিবিসিকে বলেন, “কি ঘটছে আসলে আমরা কিছু জানি না, মানুষ খুবই ক্রুদ্ধ। এখন এইসব গৃহহীন মানুষদের রাস্তায় ঘুমাতে দেয়া উচিত হবে না।”
এ প্রতিবাদ সভার সংগঠক মুস্তাফা আল মনসুর কাউন্সিলের একটি বিবৃতি পড়ে শোনান যেখানে ক্ষতিগ্রস্তদের স্থানীয়ভাবে পুনর্বাসন করার দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল। সেখানে তাদের জন্য তহবিল গঠনের কথাও বলা হয়েছিল।  সেইসাথে ভবনে বাসিন্দাদের সংখ্যা নিয়ে কোন সদুত্তর না দেয়ার জন্য তাদের দায়িত্বহীনতা নিয়ে সমালোচনা করেন তিনি। 
তিনি বিবিসিকে বলেন, “জনগণ তাদের উত্তরে সন্তুষ্ট নয়। তারা এক পর্যায়ে হতাশ হয়ে টাউন হলের বিল্ডিং-এ ঢুকে পড়েছে, তাদেরকে কেউ জোর করেনি। পুলিশ এ সময় তাদের বাঁধা দিলে তাদের সাথে ধাক্কাধাক্কি হয় শুধু।”
এর আগে লন্ডনের গ্রিনফেল টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে আগে না যাওয়ার কারণে কড়া সমালোচনার মুখে পড়েন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। সমালোচনার সেই চাপ বেড়ে গেলে শুক্রবার হাসপাতালে আহতদের দেখতে যান সদ্য নির্বাচনে ধাক্কা খাওয়া ব্রিটিশ এই নেত্রী।
অবশ্য থেরেসা মে ২৪ তলা আবাসিক ভবনটিতে আগুন লাগার বিষয়টি নিয়ে একটি সরকারি তদন্তের ঘোষণা দিয়েছেন। সাম্প্রতিক ইতিহাসে প্রলঙ্কয়কারী এই অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ৩০ জন নিহত হয়েছে, আহত হয়েছে ৬০ জনেরও বেশি। এখনো অনেকের হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। এদিকে ব্রিটেনের সংবাদপত্র সান জানায় অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ৬০ জন নিহত হতে পারে। নিহতদের সঠিক হিসেবে বের করতে মাসখানেকও লাগতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া