১৮ই আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকাল বন্ধ, শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ

Jahangirnagডেস্ক রিপাের্ট : সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের প্রতিবাদে দফায় দফায় পুলিশ-শিক্ষার্থী এবং ছাত্রলীগের ত্রিমুখী সংঘর্ষের পর ২৭ মে শবিবার রাতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করেছেন কর্তৃপক্ষ। রোববার সকাল ১০টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় ৪০জন শিক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ। 

এব্যাপারে আশুলিয়া থানার ওসি মহসিনুল কাদির বলেন, আটককৃত শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন থানায় রাখা হয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় অজ্ঞাত সংখ্যক ব্যক্তিকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।
এরআগে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় প্রতিবাদ করার সময় শনিবার দুপুরে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের উপর দুই দফা হামলা চালায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। এ ছাড়া পুলিশ বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের উপর দফায় দফায় টিয়ারসেল, রাবার বুলেট ছোড়ে এবং লাঠিপেটা করে। ছত্রভঙ্গ শিক্ষার্থীরা বিকাল থেকেই উপাচার্য ফারজানা ইসলামের বাসভবনের সামনে অবস্থান নিতে শুরু করেন। 

JBএকপর্যায়ে তারা উপাচার্যের বাসভবনের সামনের ফটক ভেঙে ভেতরে ঢুকে পড়েন। রাত ৯টার দিকে বাসভবনের ফটক ভেঙে তারা ভিতরে প্রবেশের চেষ্টা করলে শিক্ষকদের সাথে ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। এ সময় ফার্মেসি বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক সুকল্যাণ কুমার কুণ্ডু ও নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক নাসিরউদ্দিন আহত হন। এ ছাড়া ৬/৭ জন শিক্ষার্থীও আহত হন।বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা এ সময় ফুলের টব ও জানালার কাঁচ ভাঙচুর করে।
রাত ১০টায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ক্যাম্পাসে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

সড়ক দুর্ঘটনায় দুই সহপাঠী নিহত হওয়ার প্রতিবাদে শনিবার দুপুর পৌনে ১২টায় বিক্ষোভ শুরু হওয়ার ১৫ মিনিটের মাথায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সেখানে হামলা চালায়। এর ঘণ্টা পাঁচেক পর আরেক দফা হামলা চালানো হয়। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ হামলায় ছাত্রলীগের ২০ জন নেতা ও অর্ধশত কর্মী অংশ নেয়। এ ছাড়া বিক্ষুব্ধদের ওপর রাবার বুলেট নিক্ষেপ ও টিয়ার শেল ছোঁড়ে পুলিশ। হামলায় ৮/১০ জন গুরুতর আহত হয়েছে।
শিক্ষার্থীদের অভিযোগ হামলায় ছাত্রলীগ নেতা ৪০ তম ব্যাচের সানাউল, ৪২ তম ব্যাচের নীলাদ্রী শেখর মজুমদার, একই ব্যাচের সাদী, নগর ও পরিকল্পনা বিভাগের রবিউল ৪২, ছাত্রলীগ নেতা সানজিদ, ৪২ তম ব্যাচের কার্ত্তিক ঘোষ, মিলনসহ ১৯ নেতা অংশ নেন।হামলায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সুফিয়ান চঞ্চল ছিলেন বলে শিক্ষার্থীদের অভিযোগ। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চঞ্চলের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

হামলায় আহতরা সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এর মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহিন রয়েছেন। তার মাথায় টিয়ারশেল লেগেছে। এছাড়া সাংবাদিক হাফিজুর রহমান রয়েছে। তার পিঠে রাবার বুলেট লাগে।
হামলার পরপরই শিক্ষার্থীরা উপাচার্য ফারজানা ইসলামের বাসভবনের সামনে অবস্থান নিতে শুরু করে। বিক্ষুব্ধরা বাসভবনের সামনের ফটক ভেঙে ভেতরে ঢুকেছেন। বর্তমানে বিক্ষুব্ধরা সেখানে অবস্থান নিয়েছে।
শুক্রবার ভোরে সাভারের সিঅ্যান্ডবি এলাকায় বাসের ধাক্কায় নিহত হন জাবির মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থী নাজমুল হাসান রানা ও মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের শিক্ষার্থী আরাফাত। তাদের লাশ বিশ্ববিদ্যালয়ে জানাজার জন্য না এনে বাড়ি নিয়ে যাওয়ায় তাদের সহপাঠীরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে দোষারোপ করছেন।
এ ঘটনায় শুক্রবার দুপুরেই এক ঘণ্টার জন্য রাস্তা অবরোধ করে রেখেছিলেন নিহতের সহপাঠী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা। শনিবার দুপুর থেকে কয়েকটি দাবি নিয়ে ফের মহাসড়কে নামেন তারা।
এর আগে ঢাকা-আরিচা সড়ক অবরোধের পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা উত্তেজিত শিক্ষার্থীদের শান্ত করে মহাসড়ক ছেড়ে দেওয়ার জন্য কয়েকদফা কথা বললেও শিক্ষার্থীদের রাস্তা থেকে সরাতে পারেননি। বেলা ২টার দিকে অবরোধকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে যান উপাচার্য ফারজানা ইসলাম। এসময় ‘আমার ভাইয়ের জানাজা, ক্যাম্পাসে কেন হলো না’, ‘আমার ভাই মরল কেন প্রশাসন জবাব চাই’ ইত্যাদি নানা ধরনের স্লোগানে ক্ষোভ জানায় শিক্ষার্থীরা।
এ সময় শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি গেইটে পুলিশ চেক পোস্ট বসানো, জয় বাংলা (প্রান্তিক) গেটে ৭দিনের মধ্যে ফুট ওভার ব্রিজ নির্মাণ কাজ শরু করা, আজকের মধ্যেই পর্যাপ্ত স্পিড ব্রেকার নির্মাণ, গতি সীমা নির্দিষ্ট করা, নিহত শিক্ষার্থীদের আত্মীয়দের যোগ্যতা অনুসারে বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি প্রদান, নিহত দুই শিক্ষার্থীর পরিবারকে ১০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়াসহ কয়েকটি দাবি তুলে ধরেন অবরোধকারী শিক্ষার্থীরা।
উপাচার্য দাবিগুলো বাস্তবায়নের আশ্বাস দেন এবং শিক্ষার্থীদের তুলে ধরা লিখিত দাবির কাগজে স্বাক্ষর করেন। কিন্তু এরপরও রাস্তা থেকে সরে না গিয়ে আজকের মধ্যেই স্পিড ব্রেকার নির্মাণসহ দাবিগুলো পূরণের নিশ্চয়তা চেয়ে রাস্তা আটকে রাখেন শিক্ষার্থীরা। পরে বেলা সোয়া ৫টার দিকে পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে এবং লাঠিপেটা করে শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া