২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

‘আপাতত বিয়ে নিয়ে চিন্তা নেই’

MIMIবিনােদন ডেস্ক : আফসানা মিমি। শোবিজ জগতের জনপ্রিয় মুখ। অভিনয়ের পাশাপাশি মডেলিং, উপস্থাপনা ও পরিচালনায়ও সমান ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন একসময়। নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের ‌টিভি ধারাবাহিক ‘কোথাও কেউ নেই’ দিয়ে প্রথম আলোচনায় আসেন তিনি। আর নব্বইয়ের দশকে বেইলি রোডের মহিলা সমিতি মঞ্চে অভিনয়ে অভিষেক হয় মিমির। এরপর দুই দশকের বেশি সময় ধরে তিনি মুগ্ধ করে রাখেন টিভি দর্শকদের। নাটকে অভিনয়ের পাশাপাশি বেশ কিছু চলচ্চিত্রেও কাজ করেছেন তিনি। বর্তমানে অভিনয়ে অনিয়মিত মিমি সমাজ উন্নয়নমূলক বিভিন্ন কাজে জড়িত। ভিন্নভাবে কাজ করছেন সাংস্কৃতিক উন্নয়নে। এরই ফাঁকে সবকিছু মিলে গেলে অভিনয় কিংবা উপস্থাপনায় হাজির হন। সম্প্রতি কথা হয় এই গুণি মানুষটির সঙ্গে।

শেষ কী কাজ করলেন?

১৫ থেকে ১৭ মে চয়নিকা চৌধুরীর একটি নাটকের শুটিং করেছি। কালিয়াকৈর, রাঙ্গামাটি রিসোর্টে ছিল শুটিং। সেখানে পাভেল-বন্যা মির্জা, ইমন-প্রভা, নাঈম-সোনিয়া ও শহীদুজ্জামান সেলিম ছিলেন।

নাটকের গল্পটা শুনতে চাইছি।

গল্পটা কয়েকজন দম্পতির জীবনের টানাপোড়েন ও ভালোবাসার গল্প। তারা সবাই একটি রিসোর্টে বেড়াতে যায়। একটি দম্পতি অন্য দম্পতির সম্পর্কগুলো প্রত্যক্ষ করে। তারা একেক রকম ভাবলেও আসলে সবার সম্পর্কটা থাকে অন্যরকম। এমনই একটি গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে নাটকটি। কাজ করে অনেক ভালো লেগেছে। সেলিম ভাই, বন্যা, পাভেল, চয়নিকা সবাই মিলে অনেক আড্ডা হয়, কথা হয়।

অনেক দিন পর নাটকে অভিনয় করলেন।

হ্যাঁ, প্রায় ছয় মাস পর।

এখন আপনাকে নাটকে কম দেখা যায় কেন?

প্রাতিষ্ঠানিক কাজের জন্য অভিনয় থেকে সরে গেছি। আফজাল ভাইয়ের অনুরোধে গত বছর ঈদের একটি নাটকে কাজ করেছিলাম লম্বা বিরতির পর। তখন চয়নিকারও একটি কাজ করেছিলাম।

তাছাড়া এখন ওজনও অনেক বেড়ে গেছে, তাই কাজ করতে চাইনি। কাজ করা ঠিকে হবে কি না এ রকম ভাবছিলাম। আফজাল ভাই বলেছিল আমার বয়স ও সময়ের সঙ্গে মিল রেখেই গল্পটি। আমার মনের মতো হলেই কাজটি করতে। তারপর কাজ করি। কাজটি করতে পেরে ভালো লেগেছিল।

প্রায় ১৫ বছরের একটি বড় গ্যাপ নিলেন? মাঝে কী কাজ করেছিলেন?

আমি তো মূলত একজন অভিনেত্রী। অভিনয় সব সময়ই করতে পারব। তাই অন্যকিছু নিয়ে ভাবছিলাম। এর মাঝে আমি ‘বন্ধন’, ‘গৃহগল্প’, ‘সাড়ে তিনতলা’, ‘ডলস হাউজ’, ‘পৌষ ফাগুনের পালা’, ‘সাতটি তারার তিমির’-এর মতো মেগা ধারাবাহিক তৈরি করেছি। আর শমী কিন্তু অনেক বছরই বিজ্ঞাপনের সঙ্গে যুক্ত। আফজাল ভাইও বিজ্ঞাপনের কাজ করেন।

কেমন লাগছে ক্যামেরার পেছনে কাজ করতে?

আমি ক্যামেরার পেছনের কাজই বেশি এনজয় করছি। একজন অভিনেতা সারা জীবনই অভিনয় করতে পারেন। তাই মাঝে ব্রেক দিয়ে ভিন্ন কিছু করার চেষ্টা করেছি।

নাটক তৈরির পাশাপাশি আর কী করেছেন?

এর মাঝে বাংলাদেশ ফিল্ম ও টেলিভিশন নামের একটি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছি। যেখান থেকে আমরা ছোট দুটি কোর্স শেষ করলাম। একটি অভিনয়ের ওপর কোর্স ছিল তিন মাসের। অন্যটি এডিটিংয়ের- ছয় মাসের কোর্স। এখন পুরো বিষয়টিই চলমান। গবেষণা চলছে। এক বছরের একটি ডিপ্লোমা কোর্স করার ইচ্ছা আছে ফিল্ম মেকিংয়ের ওপর।

কেমন সাড়া পেয়েছিলেন?

আমরা যেমন চেয়েছিলাম, আশানুরূপ সাড়া পেয়েছি। আমরা তেমন জোরেশোরে শুরু করিনি। এখনো বিষয়গুলো গবেষণা করছি। কারণ টেকনোলজিও অনেক পরিবর্তন হয়ে গেছে।

বাচ্চাদের নিয়ে একটি স্কুল করেছিলেন জানতাম?

হ্যাঁ। আর একটি স্কুল আমরা করতে পেরেছি ‘ইচ্ছেতলা’ নামে। সেখানে ৫ থেকে ১৪ বছর বয়সী ছেলেমেয়েদের সাংস্কৃতিক চর্চার মধ্য দিয়ে তৈরি করি আমরা।

কী রকম কর্মকাণ্ড হয় সেখানে?

সাধারণত বিভিন্ন স্কুলে গিয়ে ছাত্রছাত্রীরা নাচ-গান-আবৃত্তি শেখে। কিন্তু আমাদের এখানকার শিক্ষাটা একটু মজার। শুক্র ও শনিবার তিন ঘণ্টা করে মোট ছয় ঘণ্টা বাচ্চাদের আমাদের এখানে রাখি। সেখানে তাদের ৫টি বিষয়ে শিক্ষা দিই। নাচ, গান, ছবি আঁকা, চারু ও কারু শিক্ষা, কনটেম্পোরারি ড্যান্স ও মার্শাল আর্ট। বাংলা উচ্চারণ-আবৃত্তি-বাংলা গল্প কবিতা ও অভিনয়। এই পাঁচটি শিক্ষা বিষয়ে আমরা প্রত্যেকের ওপর নজর দিয়ে থাকি।

অন্যান্য স্কুল থেকে এটা কী রকম আলাদা?

এখানে কোনো পরীক্ষা হয় না। বা কোনো কম্পিটিশন নেই। সব বাচ্চা সবকিছুতে অংশগ্রহণ করবে। একসময় যার গান ভালো লাগবে, তাকে গান শেখানো হবে। বা কারো ছবি আঁকা ভালো লাগবে, তাকে ছবি আঁকাটাই শেখানো হবে। এই ধরনের কনসেপ্ট নিয়ে আমরা কাজ করছি। ভবিষ্যতে এই কনসেপ্টটি সারা দেশেই ছড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হবে। স্কুলটি করে অনেক ভালো সাড়া পেয়েছি। এটাকে এখন সামনের দিকে নিয়ে যেতে হবে।

আপনাদের আর কী কার্যক্রম রয়েছে?

এই স্কুল থেকে ক্রিসমাস ট্রি তৈরি করে চকোলেট দিয়ে বড়দিন উদযাপন করি। বৌদ্ধপূর্ণিমায় ফানুস তৈরি করে উড়াচ্ছি। লাইব্রেরি তৈরির চেষ্টা করছি। প্রজেকশনে ছবি দেখি। ২১শে ফেব্রুয়ারিতে ছোট্ট করে শহীদ মিনার তৈরি করে সাজালাম। পহেলা বৈশাখে উত্তরায় ছোট করে শোভাযাত্রা করেছি এবার। মোট কথা একটি সাংস্কৃতিক বাংলা তৈরি করার চেষ্টা করছি। এবার ইচ্ছেতলার চিলড্রেন থিয়েটারের আয়োজন করছি। মিউজিক থিয়েটার শো করব। সেপ্টে্ম্বরে শিল্পকলায় শো করার ইচ্ছা আছে।

তাহলে কি আর আপনাকে টিভিতে দেখা যাবে না?

খুব নিয়মিত অভিনয় করতে পারব না। ফিটনেস ঠিক করতে হবে। পরিচিত পুরনো সহকর্মী বন্ধুরা থাকলে কাজ করে মজা পাই। ভালো কন্টেন্ট পেলে, গল্প চিত্রনাট্য ভালো লাগলে অবশ্যই কাজ করব। নতুনদের সঙ্গেও কাজ করতে আমি ভীষণ আগ্রহী। মাসে দুই মাসে একটা কাজ তো করাই যায়। তবে প্রফেশনালি নেয়া সম্ভব হবে না।

আপনি তো অনেকেরই প্রথম নাটকে কাজ করেছেন।

আমি গাজী রাকায়েতের প্রথম নাটকে কাজ করেছি। এ ছাড়া গিয়াস উদ্দিন সেলিম, বিপাশা, অমিতাভ রেজারও প্রথম প্রোডাকশনে কাজ করেছি আমি।

তারা লাকি, না আপনি?

(হেসে)তারা সবাই অনেক লাকি।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানতে চাইছি।

নতুন সিরিয়ালের পরিকল্পনা করছি। বলার মতো অবস্থা এখনো হয়নি। এ ছাড়া আমি এটিএন নিউজে ভিন্নধর্মী কাজ করেছি। রান্নার অনুষ্ঠান নস্টালজিয়া তৈরি করেছিলাম। মুন্নী সাহা আমার বন্ধু। তার অনুরোধেই কাজটি করেছিলাম। সেটি ছিল ভিন্ন রকম একটি অনুষ্ঠান।

কী রকম?

মুন্নী আর আমি ইডেন কলেজের একই ডরমেটরিতে থাকতাম। আমরা খুব আগের বন্ধু। একদিন মুন্নী বলল, ‘দেখ আমাদের সংস্কৃতির সবচেয়ে বড় সম্পদ হচ্ছে আতিথেয়তা। সাধারণত একটি গ্রামে নিউজের জন্য গেলে তারা গ্লাসটি ধুয়ে পানি খাওয়ায়। অথচ খুবই সাধারণ খড়ের চালাঘরে হয়তো তারা থাকে। একটু নাস্তা খাওয়ানোর চেষ্টা করে। শেষে চলে আসার সময় বলে, কিছুই তো খাওয়াতে পারলাম না।’ আবহমান বাঙালির সংস্কৃতির মূল সুর তাই বলব আতিথেয়তা। গ্রামবাংলার রান্নার যে সংস্কৃতি, ঐতিহ্য এসব নিয়েই একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলাম। গ্রামের একটি উঠোনে এই ভিন্নধর্মী অনুষ্ঠানটি তৈরি হতো। সেখানে দুই বোন শর্মিলী আহমেদ ও ওয়াহিদা মল্লিক জলি দুই বোনকে নিয়ে এসেছিলাম।

আর কি প্রোগ্রাম করার ইচ্ছা আছে?

ভিন্নধর্মী রান্না ও সাহিত্য নিয়ে আমার অনুষ্ঠান করতে ইচ্ছে করে। আমি ছোটবেলা থেকেই সাহিত্য অনুরাগী। বইয়ের প্রতি ভালোবাসাই আমাকে শিল্প-সংস্কৃতির চর্চার দিকে নিয়ে এসেছে। সারা জীবন শিল্প-সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করে যাব। এর উত্তরণ করে যাওয়ার চেষ্টা করব।

বর্তমান মিডিয়া নিয়ে আপনার প্রজন্মের শিল্পীদের কষ্ট আছে বলে জানি।

কষ্টের পাশাপাশি একপশলা ভালো লাগাও মাঝে মাঝে পাই। জয়া আহসান যখন দেশ ছাড়িয়ে আক্ষরিক অর্থেই বাইরের দেশে ভালো কাজ করেন, তখন খুব ভালো লাগে। তখন আমি গর্ববোধ করি।

কিন্তু সামগ্রিকভাবে আমরা যা করছি, অনেক পিছিয়ে পড়ছি। বাংলাদেশের থিয়েটার, সিনেমা, নাটক এখন কোন পর্যায়ে রয়েছে। স্বাধীনতার পর ধীরে ধীরে সংস্কৃতির ধারার যে ক্রমবিকাশ হচ্ছিল, তা এখন ক্রমশ পিছিয়ে যাচ্ছে। সব দেশেরই কৃষ্টি-কালচার ধীরে ধীরে উন্নত হয়, কিন্তু আমাদেরটা ক্রমশ পিছিয়ে গেলে। সত্যি দুঃখজনক।

মাঝে মাঝে নিজেকে প্রশ্ন করি, এই পিছিয়ে যাওয়া কেন? কারা পেছাল বাংলার এই সংস্কৃতিকে? তারা কে, কী তাদের পরিচয়? যারা এসব দখল করে রয়েছে, এই অসুন্দরের পেছনে কাজ করছে, তারাই বা কে?

আপনারা সরে যাচ্ছেন বলেই এরা জায়গা দখল করছে।

না, অসুন্দরের পূজারিদের বেশি জায়গা দেয়া হচ্ছে বলেই আমরা সরে যাচ্ছি। যারা দেশের সংস্কৃতিকে সুস্থ-সুন্দর করতে চাচ্ছি তারা সরে যাচ্ছি। আমাদের রুচি-মূল্যবোধ জলাঞ্জলি দিয়ে সাংস্কৃতিক চর্চা করতে পারব না। এই দুটোকে বাদ দিয়ে যে সংস্কৃতি তা অ-সংস্কৃতি, তা অপসংস্কৃতি। এটা কোনো সংস্কৃতি হতে পারে না।

এবার একান্ত ব্যক্তিগত একটা প্রশ্ন। বিয়ে নিয়ে কী ভাবছেন? বিয়ে করবেন না?

(হেসে) আপাতত এইগুলো নিয়ে কোনো চিন্তাভাবনা নাই।

আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টের কথা জানা যায় না।

প্রয়োজন পড়ে না, তাই নেই। ফেসবুক অনেক টাইম কিল করে। কখনো অফিসিয়াল কাজের জন্য প্রয়োজন হলে করব।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া