১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং | ২রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

জিপিএ-৫ পেয়েছে চা বিক্রেতার মেয়ে

TEAডেস্ক রিপাের্ট : সোনিয়া ইয়াসমিনের মা মারা গেছে গত ৬ বছর আগে। তারপর দ্বিতীয় বিয়ে করেছেন তার বাবা। এখন সব মিলিয়ে ৭ জনের সংসার তাদের। সোনিয়ার বাবা চা বিক্রেতা। অভাবের সংসারে সব কাজ সামলে পড়ালেখা চালিয়ে যেতে হয় সোনিয়াকে। সেই সোনিয়া এবার এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে।

নাটোরের বড়াইগ্রাম পৌরসভার লক্ষ্মীকোল বাজারের সাজেদুর রহমানের বড় মেয়ে সোনিয়া ইয়াসমিন। বাড়ি সংলগ্ন বড়াইগ্রাম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করত সে।
অভাবের সংসার। তাই একমাত্র বিদ্যালয়ের শিক্ষক আর সহপাঠিদের সহায়তায় সোনিয়া পড়ালেখা চালিয়েছে। তবে দাদী, বাবা ও নতুন মা উৎসাহ দেন তার পড়ালেখায়। সেই উৎসাহে কোনোরকমে পড়ালেখা চালিয়ে সে। ভবিষ্যতে ডাক্তার হয়ে দরিদ্র, অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার ইচ্ছে আছে তার।
সোনিয়ার মতে চিকিৎকই একমাত্র পেশা যেখানে মানবসেবা ও আয় একসাথে দুটোই করা যায়। নানা প্রতিকূলতার মধ্যেও সোনিয়ার পড়াশুনার করার অদম্য ইচ্ছা। কিন্তু তার সেই ইচ্ছা পূরণের পথে একমাত্র বাধা অর্থ। কে জোগাবে তার উচ্চশিক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ?
সোনিয়ার বাবা সাজেদুর রহমান বলেন, গরিবের স্বপ্ন পূরণ হওয়া কঠিন। মেয়েটার মাথা ভালো। কিন্তু সে ইচ্ছে কেমন করে পূরণ হবে তা ভেবে চোখে অন্ধকার দেখি। যদি তার মেয়ের এ ইচ্ছা পূরণে সমাজের কোন হৃদয়বান স্বচ্ছল ব্যক্তি এগিয়ে আসেন সেই আশায় দিন গুনছেন তিনি।

বড়াইগ্রাম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক নাজনীন আক্তার বলেন, সোনিয়া ইয়াসমিন বরাবরই ভাল ছাত্রী। বাবার আর্থিক দৈন্যতাই তার মেধা বিকাশে বাধা হতে পারে। সরকারি সহায়তা বা কোন ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান সোনিয়ার পাশে দাঁড়ালে সে নিশ্চয়ই ডাক্তার হয়ে দেশ সেবার সুযোগ পাবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া