১৮ই আগস্ট, ২০১৭ ইং | ৩রা ভাদ্র, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

অপচনশীল পলিথিনের দৌরাত্ম্য থামাবে কে?

POLINডেস্ক রিপাের্ট : স্বাস্থ্য, পরিবেশ ও মানুষের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর পলিথিন ব্যাগের উৎপাদন, ব্যবহার, বিপণন ও বাজারজাতকরণে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও থামানো যাচ্ছে না এর লাগাম। দিন দিন বেড়েই চলছে পলিথিন ব্যাগের অবাধ ব্যবহার। এমন এলাকা পাওয়া দুষ্কর, যেখানে পলিথিন ব্যাগের ব্যবহার নেই।

ক্ষতিকারক এ পণ্যটি নিষেধাজ্ঞার ১৬ বছর পার হয়ে গেলেও বন্ধ করা সম্ভব হয়নি। এমনকি পলিথিন ব্যবহার নিয়ন্ত্রণেও আনা সম্ভব হয়নি। সর্বশেষ এ পণ্যটির কড়াল গ্রাস থেকে পরিবেশকে রক্ষা করতে উচ্চ আদালতের দারস্থ হয়েছেন দেশের একজন সাধারণ নাগরিক।
 
পলিথিন ব্যবহার বন্ধে প্রজ্ঞাপনটির কার্যকারিতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্ট গত ১২ ফেব্রুয়ারি রুল জারি করেন। একমাসের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হলেও দুই মাস পার হতে চলেছে কিন্তু কোনো জবাব পায়নি উচ্চ আদালত। এভাবে প্রজ্ঞাপনটির বিষয়ে সরকারের ধারাবাহিক অনীহা ও অবহেলার মাঝেই পলিথিনের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে বলে মনে করছে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)।

সরেজমিনে রাজধানীর শান্তিনগর, রামপুরা, কারওয়ানবাজারসহ বেশকিছু বাজার ঘুরে দেখা যায়, সবজি, মাছ, মাংসসহ সব দোকানেই নিষিদ্ধ পলিথিন মজুদ আছে। মুদির দোকান থেকে শুরু করে অভিজাত শপিংমল, ফুটপাতের হকার, কাঁচা বাজার, ভোগ্যপণ্য বাজার-সর্বত্র আইন অমান্য করে পলিথিনের ব্যবহার করা হচ্ছে। প্রকাশ্যে ব্যবহার চলে আসলেও এসব দেখার যেন কেউ নেই।

অথচ, ২০০২ সালের ১ জানুয়ারি ঢাকা ও ১ মার্চ সারাদেশে পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার নিষিদ্ধ করে সরকার। পরিবেশ সংরক্ষণ আইন (সংশোধিত) ২০০২ অনুযায়ী, এই আইন অমান্য করলে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং ১০ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়।

বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে গত ১২ ফেব্রুয়ারি সামছুজ্জামান নামের এক ব্যক্তির পক্ষে আইনজীবী এইচএম জিয়া উদ্দিন জনস্বার্থে হাইকোর্টে এক রিট আবেদন করেন। আদালতে আবেদনটির প্রাথমিক শুনানি শেষে পলিথিন ব্যাগ নিষিদ্ধকরণে ২০০২ সালের জারিকৃত প্রজ্ঞাপনের কার্যকারীতাকে চ্যালেঞ্জ করে রুল জারি করে আদালত।

একইসঙ্গে রুলের জবাব দিতে পরিবেশ মন্ত্রণালয় সচিব, পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক, স্বরাষ্ট্র সচিব, সংস্থাপন মন্ত্রণালয় সচিব, পুলিশের আইজিপি ও রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দেয়া হয়। রুলের জবাব দিতে বিবাদীদের চার সপ্তাহ সময় দেয়া হলেও কোনো জবাব পায়নি আদালত।

এ বিষয়ে  রিটকারী আইনজীবী জিয়া উদ্দিন ব্রেকিংনিউজকে জানান, ‘আদালত বিবাদীদের রুলের জবাব দিতে চার সপ্তাহ (১ মাস) সময় বেঁধে দিয়েছিলেন। কিন্তু আদালতের নির্ধারিত সময়ের পরে সে জবাব এখনও দেয়া হয়নি।

তবে খুব শিগগিরই এ সংক্রান্ত মামলাটি আদালতে শুনানির জন্য তোলা হবে বলেও জানান তিনি।  

ব্যাপকভাবে পলিথিন শপিং ব্যাগ ব্যবহারে উদ্বেগ প্রকাশ করে ২০১২ সালের ৩০ এপ্রিল পরিবেশ অধিদফতরের তৎকালীন মহাপরিচালক মনোয়ার ইসলাম গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেন।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, সারাদেশে পলিথিন শপিং ব্যাগের ব্যবহার বেড়ে গেছে। নিষিদ্ধ ঘোষিত সকল পলিথিন শপিং ব্যাগ উৎপাদন, আমদানি, বাজারজাতকরণ, মজুদ, বিক্রয়, বিক্রয়ের জন্য প্রদর্শন, বিতরণ, বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে পরিবহন ও ব্যবহার সরকার নিষিদ্ধ করেছে। আইন লঙ্ঘনকারীকে এক বছর কারাদণ্ড ও অনধিক ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত করার বিধান রয়েছে। এজন্য জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে জেলা এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নেতৃত্বে বিশেষ অভিযান পরিচালনার অনুরোধও করা হয়।

ব্যবসায়ীরা জানায়, পলিথিন এখন সহজলভ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিক্রেতারা এখন দোকানে দোকানে এসে পলিথিন বিক্রি করে। নানা সাইজের পলিথিন পাওয়া যায়। তাছাড়া ক্রেতারা চটের ব্যাগের চেয়ে পলিথিন ব্যাগ নিতে স্বাচ্ছন্দবোধ করেন। একটি চটের ব্যাগের মূল্য ২০-৩০ টাকা। ক্রেতারা চটের ব্যাগের বদলে বিনামূল্যে পলিথিন ব্যাগে পণ্য নিতে চায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ঢাকা থেকে প্রচুর পরিমাণে পলিথিন ব্যাগ দেশের বিভিন্ন শহরে ছড়িয়ে পড়ছে। পুরান ঢাকার বিভিন্ন স্থানে বেশ কিছু কারখানায় পলিথিন তৈরি হচ্ছে। বিদেশ থেকে প্লাস্টিকের দানা ও পাউডার এনে কারখানাগুলোতে বিভিন্ন আকারের পলিথিন ব্যাগ তৈরি করা হচ্ছে। উৎপাদন শেষে তা সারা দেশে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে।

তবে আইনে ১০০ মাইক্রোনের কম পুরুত্বের পলিথিন ব্যাগ উৎপাদন ও ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। বিভিন্ন ধরনের খাদ্য দ্রব্য, ওষুধ, সিমেন্ট, সারশিল্পসহ ১৪টি পণ্যে পলিথিন ব্যাগ ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এজন্য প্লাস্টিক দানা আমদানির অনুমোদন রয়েছে। সেই সুযোগে বৈধতার আড়ালে অবৈধ পলিথিন ব্যাগ তৈরি হচ্ছে বলেও জানা যায়।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) সাধারণ সম্পাদক ড. আবদুল মতিন বলেন, ‘সরকারকে অবশ্যই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে রুলের জবাব দেয়া উচিৎ ছিলো। পলিথিনের ব্যবহার বাদ দিতে ২০০২ সালে সরকার প্রথম প্রস্তুতি নিয়েছিলো। তখন বিজিএমসি’কে চটে ব্যাগ তৈরী করতে বলা হয়েছিলো। কিন্তু কিছু অজ্ঞাত কারণে সেই ব্যাগ উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেলো। চটের ব্যাগ ব্যবহারে বাধ্য করা হলে একদিকে পাটের সঠিক মূল্যায়ন করা সম্ভব হতো অন্যদিকে পরিবেশ রক্ষা পেত পলিথিনের বিনষ্ট থেকে। চটের ব্যাগ তুলনামূলক সস্তা। পলিথিনের ব্যাগ দোকানদাররা ফ্রি দিলেও তার টাকা পণ্য মূল্যের সঙ্গে কেঁটে রাখেন।’

আগামীর কৃষি, মাটি ও মানুষ রক্ষায় পলিথিনের ব্যবহার রোধ এখন সময়ের দাবি বলেও উল্লেখ করে পরিবেশবিদরা। ব্রেকিংনিউজ

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া