২৫শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং | ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

`তরুণ প্রজন্ম আমাদের ভালোভাবে গ্রহণ করেছে`

pakersডেস্ক রিপাের্ট : রিয়াজ আহমেদ বাবু। ২০১০ সাল থেকে মোহাম্মদপুরের জাকির হোসেন রোডে একটি আউটলেটের মাধ্যমে ব্যাগের ব্যবসা শুরু করেন। প্রতিষ্ঠানের নাম দেন ব্যাগপ্যাকার্স। ২০১৪ সালে এসে ব্যাগপ্যাকার্স ই-কমার্স ব্যবসায় নামে। আজকে দেশের স্বনামধন্য ব্যাগ ও ট্রলি প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান এটি। কথা হয় রিয়াজ আহমেদ বাবুর সঙ্গে। ব্যাগপ্যাকার্সের কাহিনি জানালেন এই সময়কে। আলাপ করেছেন মাহমুদ উল্লাহ।

ব্যাগ ব্যবসায় কিভাবে নামলেন?
২০১০ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি একটি আউটলেটের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করি মোহাম্মদপুরের জাকির হোসেন রোডে। প্রথম থেকেই ব্যবসা ভালো চলতে থাকে। ইয়াং জেনারেশন খুব ভালোভাবে গ্রহণ করে আমার উদ্যোগ। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। প্রথমে সব ধরনের ব্যাগই আমি ঢাকার বিভিন্ন এলাকার দোকানগুলো থেকে কিনে এনে বিক্রি করতাম, পরে চিন্তা করি নিজেই প্রোডাকশনে যাব। এরপর ব্যাকপ্যাক ও ট্রলি দিয়ে যাত্রা শুরু করি। নিজের ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টে চায়না থেকে প্রোডাকশন করিয়ে নিয়ে আসি। এভাবেই নতুনভাবে পথচলা শুরু।

কোন ভাবনা থেকে এই ব্যবসায় আসা?
ব্যাগ মানুষের জীবনের একটি জরুরি অনুষঙ্গ। কিন্তু বাংলাদেশের দু-একটি কোম্পানি বাদে কেউ তেমনভাবে এই জায়গাটায় ফোকাস করেনি। আমি প্রথমে লাইফস্টাইলের কোনো ব্যবসার কথা ভেবেছিলাম। কিন্তু সবাইকে দেখি বুটিকসের কাজ করছে। তাই ব্যাগ নিয়েই আমি যাত্রা শুরু করি। আর এখন তো অনেকেই আমাদের নামে নকল কাজও করছে।

কোন ধরনের ব্যাগ আপনারা বিক্রি করছেন?
একজন মানুষের লাইফস্টাইলের সঙ্গে যায় এমন সব ধরনের ব্যাগ, হ্যান্ডব্যাগ, ব্যাকপ্যাক ও ট্রলিই আমরা বিক্রি করে থাকি।

বড় আকারে কখন শুরু করেন?
২০১৫ সালে বাংলাদেশের সব ব্যাগ ব্যবসায়ীকে আমন্ত্রণ করে আমাদের প্রোডাকশনের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেই। তখনই প্রথম মানুষ আমাদের কথা জানতে পারে। এভাবে ব্যবসাটা আকারে বড় হয়। 

এখন ব্যবসার অবস্থা কী?
এখন তিনটা শোরুম রয়েছে আমার। এছাড়া অনলাইনেও বিক্রি শুরু করি। তবে অনলাইনে বিক্রিতে সমস্যা হলো ক্রেতাদের অর্ডারমাফিক মাল ডেলিভারির সময় বাড়িতে পাওয়া যায় না।

অল্পসময়ে পরিচিতি পেয়েছেন। এর কারণ কী?
আমরা প্রথম ব্যানার ব্র্যান্ডিং দিয়ে শুরু করি। আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন টিজার ব্যানার দিয়ে মানুষের কৌতূহল তৈরি করি। এরপর আবার ব্যানার দিয়ে আমাদের বিজ্ঞাপন প্রচার করি। এরকম একভাবে মানুষের আস্থা তৈরি করি। তবে প্রোডাক্টের ভালো মানই আমাদের এতদূর আসতে সাহায্য করেছে। এরপর আমরা ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে নামি। ডিজিটাল মার্কেটিংও আমাদের প্রচারের আলোয় এনে দেয়। বিভিন্ন টিভিতে ব্যাগপ্যাকার্সের টিভিসিও আমাদের জনপ্রিয়তা তৈরিতে সাহায্য করেছে।

সামনের দিনের পরিকল্পনা কী?
ফ্রাঞ্চাইজি শাখা খোলার ইচ্ছা আছে, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ডিলার নিয়োগ দিব বলে ভাবছি। এছাড়া লাইভ প্রচারণার কথাও ভাবছি। 

এই ব্যবসায় কতটা সম্ভাবনা দেখছেন?
আমরা দেশের সব ব্যাগ ব্যবসায়ী মিলে এর ৪০ শতাংশ চাহিদা পূরণ করতে পেরেছি। এখনো অনেক জায়গা ফাঁকা আছে। চাইলে যে কেউ এই ব্যবসায় নামতে পারে। তবে প্যাশন থাকতে হবে।

দেশে ব্যাগ উৎপাদন করা সম্ভব কি না।
আসলে এর সব এক্সেসরিজের জন্যই বাইরের দেশের ওপর নির্ভর করতে হয়। জিপার, চেইন, ফেব্রিকসসহ এর সব মেটেরিয়ালই মূলত বিদেশ থেকে আমদানি নির্ভর। সব কিনে নিয়ে এসে দেশে যদি  তৈরি করা হয় তাহলে খরচ বেশি পড়ে। এছাড়া ব্যাগ সেলাই অনেক ঝামেলাপূর্ণ একটি কাজ। এর জন্য দক্ষ কারিগরও দেশে  তৈরি হয়নি। এসব কারণে ব্যাগ তৈরির শিল্প দেশে খুব প্রসার করেনি।

নতুন যারা এই খাতে বিনিয়োগ করতে চায়, তাদের জন্য কী বলবেন?
অবশ্যই তাদেরকে স্বাগতম। তাদের প্রোডাক্টের মান ভালো হতে হবে। ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের ওপর জোর দিতে হবে। তবে ভালো করা সম্ভব।
 
এই ব্যবসায় কোনো প্রতিবন্ধকতা আছে?
শোরুমের কর্মচারীরা দ্রুত চাকরি পরিবর্তন করে। তাদের কোনো প্রপার ট্রেনিং নেই। মূলত কর্মী সংকটই শোরুম ব্যবসার মূল সমস্যা।
 
আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। 
আপনাকে এবং এই সময়কেও অনেক ধন্যবাদ।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
নভেম্বর ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া