২৪শে জুন, ২০১৭ ইং | ১০ই আষাঢ়, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ

adv

মৃত্যুপথযাত্রী তানভির মাহমুদকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

aajআফরিন জামান লীনা : ২০০৬ সালে আমার বাবা এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যান।তার দুটো কিডনিই অকেজো হয়ে গিয়েছিল।আজ এই কথাটি একজন কে বললাম।কথাটা শুনেই আমার সেই ভাই যে উত্তর দিলেন তাতে আমার দু চোখ গড়িয়ে পানি পড়ছিল।উত্তর গুলি হুবহু তুলে ধরলাম।
****** #আমি : আমার বাবা এই রোগে চলে গেছেন
M : Vul kotha apu…
Allah took him for good.
Diseases are blessings from him.
To shorten some sins
Allah will keep him in Jannah.
Please keep praying
And also pray so that no one is ever suffered in these disease ….*********
কথাগুলি যখন আমি কপি করছি তখনো চোখ গড়িয়ে পানি পড়ছে ।কথা গুলি কে বলে ছিল জানেন ? বেশিক্ষন আপনাদের ভোগাতে চাইনা।কারন সেই মানসিকতা নেই এখন।কথা গুলি এই ইভেন্ট টা যার নামে সেই হাসপাতালের বেডে শোয়া মৃত্যুপথযাত্রী তানভির মাহমুদের।

আমি খুলনার মেয়ে।মাহমুদ ভাই যে খুলনারই ছেলে আমি জেনেছি এই কিছুক্ষন আগে।জানার আগেই গতকাল আমার এক মেজর বন্ধুর কাছে জানতে পারি মাহমুদ কত ভালো মনের একজন মানুষ।
তানভির মাহমুদ। ঝিনাইদাহ ক্যাডেট কলেজের ৩৩ তম ব্যাচের একজন অত্যন্ত মেধাবী ছেলে।২০০২ এ এইচ এস সি পাস করার পরে বিএমএ ২০০২-২০০৫ এ যোগদান করেন।দেশের অতন্দ্র প্রহরী হিসাবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে ২০১০ পর্যন্ত দেশের সেবায় নিয়োজিত ছিলেন এই মানুষ টা। ২০১০ এ ধরা পড়ে একটু একটু করেই তার ভেতরে দানা বেধেছে মরন ব্যাধি অসুখ।অকেজো করে দিয়েছে তার শরীরের এক জোড়া গুরুত্বপূর্ন অঙ্গকে।দুটি কিডনিই নষ্ট হয়ে গেছে মাহমুদের। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মেডিকেল বোর্ডে বাতিল হয়ে যায় মাহমুদের সদস্যপদ। মাহমুদ অবসরে যান।২০১০ থেকে ২০১৬। গত ছয়টি বছর এই মরন ব্যাধির সাথে দিনের পরে দিন যুদ্ধ করে যাচ্ছেন তানভির মাহমুদ। প্রতি সপ্তাহে একাধিক ডাইলোসিসে বেচেঁ আছে তার জীবন প্রদীপ।প্রতি মুহুর্তে তার হাতে বেধে দেয়া ঘড়ির কাটা টিক টক আওয়াজ তাকে জানান দিচ্ছে এই বুঝি আওয়াজ থেমে গেল আর সেই সাথে তোমার জীবনের প্রদীপ।উফ ::::: কি দুর্বিসহ যন্ত্রনা। একজন মানুষের কাছে এর থেকে বড় যন্ত্রণা আর কিছুতে আছে বলে আমার জানা নেই।দুর্দান্ত হ্যান্ডবল খেলা এই ছেলেটার স্বভাব সুলভ আচরনের জন্যে অনেকেই তার জন্য কাদঁছে।মাহমুদ এখন বেঁচে থাকার জন্য যুদ্ধ করছে থাইল্যান্ডের বারমুন্ডগ্রাদ হসপিটালে।ওখানকার ডাক্তার রা জানিয়েছেন মাহমুদকে বাঁচাতে হলে নভেম্বর মাসের ভেতরে কিডনি ট্রান্সপারেন্ট করতে হবে।অনেকেই প্রশ্ন করতে পারেন ওপারেশন টা কেন বাংলাদেশে হচ্ছে না।বাংলাদেশে নেফরোলজি চিকিৎসার অপশন ফার্স্ট ব্লাডে এসে থেমে গেছে।ফার্স্ট ব্লাড বলতে (বাবা,মা,ভাই,বোন)।আর কিডনি যিনি দান করবেন তাকে অবশ্যই ৫০ এর নিচে বয়স হওয়া লাগবে।মাহমুদ তার বাবা মায়ের একমাত্র সন্তান। তার বাবা মায়ের বয়স ৫০ এর উর্ধে।তাই একমাত্র সন্তানকে ধুকে ধুকে মৃত্যুর কোলে ঢুলে পড়তে দেখেও তাকে একটা কিডনি দিতে পারছেনা মাহমুদের বাবা মা।আর যেহেতু সেকেন্ড ব্লাডের রিলেশনের কিডনি ডোনেট করার পরে তা ট্রান্সপারেন্ট করার অপশন বাংলাদেশে অত ভালো হয়না তাই মাহমুদ কে থাইল্যান্ডের পরামর্শ দিয়েছেন বাংলাদেশের ডাক্তাররা।কিন্তু এই চিকিৎসার ব্যায়ভার বহন করা দীর্ঘসময় ধরে এই অসুখের সাথে যুদ্ধ করা মাহমুদের জন্য এখন এই শেষ মুহুর্তে আর একা সম্ভব নয়। ৭০ লক্ষ টাকা খরচ হবে মাহমুদের এই চিকিৎসায়।হাসপাতালের বেডে শুয়ে এখনো মহান সৃষ্টি কর্তার কাছে আর কিছুদিন এই পৃথিবীতে বেঁচে থাকার আবেদন করে যাচ্ছে আমাদের দেশ রক্ষার এই সাবেক অতন্দ্র প্রহরী। তার এই বেঁচে থাকার ইচ্ছার আরেকটা স্বপ্ন জল জল করে জ্বলছে তার দুচোখে।আর সেই সপ্নের মাসটা এই নভেম্বর। যেই নভেম্বরের তাগদা দিচ্ছে প্রতি মুহুর্তে তার ঘড়ির কাটার টিকটিকি আওয়াজ।আর সেই নভেম্বরই পৃথিবীর আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে মাহমুদের স্ত্রীর গর্ভে বেড়ে উঠা মাহমুদের প্রথম সন্তান। লেখাটা যখন লিখছি তখনো হাত কেপে উঠছে।গতকাল আমার মেজর বন্ধু যখন কথা গুলো বলছিল তখন সে বলেছিল লীনা আমার বুকটা জলে যাচ্ছেরে।

ajমাহমুদের এই বিপুল পরিমান অর্থের যোগান দিতে মাঠে নেমেছে মাহমুদের সহপাঠী ক্যাডেটরা।একজন অনাগত শিশুকে জন্ম নিয়ে, তার বাবার কোলে উঠে বাবা ডাক শোনার তৃপ্তিময় সুখের এই স্বাদ নিতে মাহমুদের পাসে আমরাও কি আসতে পারিনা।যে মানুষ টা একদিন আমার দেশ, আমার জাতিকে বাচাঁনোর জন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনির সদস্য হয়েছিলেন।হয়েছিলেন আমার দেশের অতন্দ্র প্রহরী। আজ তার সন্তানকে জন্ম নিয়ে তার বাবার কোলে আসার অধিকারের নিশ্চয়তা কি আমরা সবাই মিলে মাহমুদকে দিতে পারি না?
আমরা দেশে বিদেশে লক্ষ কোটি বাঙালী । আসুন সবাই মিলে মাহমুদের সন্তানকে এই পৃথিবীতে এসে তার বাবার আদর পাওয়ার অধিকার টুকু এনে দেই।মহান রাব্বুল আল আমিন প্রতিটা ভালো কাজে আমাদের সাথে থাকেন।একবার ভেবে দেখেন আমাকে বলা মাহমুদের কথাগুলি। *** Diseases are blessings from him. Please keep praying…. And also pray so that no one is ever suffered in these disease ….*****।
মাহমুদের সন্তানকে এই পৃথিবীতে এসে তার বাবার স্নেহ পাইয়ে দেবার অধিকার আর মাহমুদকে এই সুন্দর পৃথিবীতে বাঁচিয়ে রাখার জন্য সৃষ্টি কর্তার কাছে আরো কিছুদিন ধার করে আনার জন্য মাহমুদের সহপাঠী ঝিনাইদাহ ক্যাডেট কলেজের এক্স ক্যাডেটদের সাথে আমি ও আছি।আপনারাও আসবেন কি??
মহান করুনাময় সবসময় ভালো কাজের প্রশংসা করেন।এবং তাদেরকে অালিঙ্গন করে নেন যারা এই কাজে যুক্ত থাকেন।
মাহমুদ কে এই পৃথিবীতে আর কিছুদিন বেচেঁ থেকে তার সন্তানের মুখ দেখার সুযোগ করে দেবার এই মহতি
উদ্যোগে আমাদের সবার সাথে আপনাদের অংশগ্রহন করার ঠিকানা নিচে দেওয়া হলো।
১:
AC NAME: Mr.Hasan MD Tanvir Mahmud,
Account No- 2251473777001(saving),City Bank Ltd, Gulshan Avenue Branch, Dhaka
SWIFT NO: CIBLBDDH
২:
bKash account: 01848382050 (merchant account);please use reference 1792
3:
DBBL (Rocket) mobile money: Samia Jahan (ac no: 19310333350), Gulshan Branch
4:
দেশের বাইরে থেকে paypal কিংবা ডেবিট/ক্রেডিট কার্ড দিয়ে পাঠাতে পারবেন নিমোক্ত লিংক দিয়ে: http://www.ankurintl.org/test/tanvir_mahmud.html
দেশের বাইরে আপনারা যোগাযোগ করতে পারেন নিম্নোক্ত দের সাথে:_
USA: Fahad (JCC, 33) : +14094544725
UK: Reza (JCC, 33) : +447886481355
Canada and Dubai: Sina (JCC, 33) : +16472215032
Australia: Junayed (JCC, 31) : +61412687550
দেশের ভিতরে:-
Major Faisal (01717458373); Farhan (01833181961); Ahammad (01786505553)

বিশেষ দ্রষ্টব্য : ‘জয়পরাজয়’ কর্তৃপক্ষ  আবেদনকারীর  সাথে যোগাযোগ কিংবা কোনো রকম আর্থিক লেনদেনের দায়িত্ব নেবে না। দাতা নিজেই আবেদনকারী প্রদত্ত তথ্যের  সত্যতা  যাচাই করে আর্থিক লেনদেনসহ সব রকমের সাহায্যে এগিয়ে আসবেন। – সম্পাদক

Share Button

 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
আর্কাইভ
জুন ২০১৭
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মে    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া