১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

একুশে পদক পাচ্ছেন ১৫ বিশিষ্ট নাগরিক

ঢাকা: বিভিন্ন ক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ দেশের ১৫ জন বিশিষ্ট নাগরিককে একুশে পদক-২০১৪ দেয়া হচ্ছে।
মঙ্গলবার মনোনীত এই ১৫ নাগরিকের নাম প্রকাশ করেছে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়।
এর মধ্যে- ভাষা আন্দোলনে শামসুল হুদা ও ডা. বদরুল আলম (মরণোত্তর), সাংবাদিকতায় গোলাম সারওয়ার, শিক্ষায় ড. অনুপম সেন, শিল্পকলায় কেরামত মওলা, রামকানাই দাশ, এসএম সোলাইমান ও সমরজিৎ রায় চৌধুরী, ভাষা ও সাহিত্যে বিপ্রদাস বড়ুয়া, বেলাল চৌধুরী, রশিদ হায়দার, জামিল চৌধুরী ও আব্দুস শাকুর, সমাজসেবায় ডা. মজিবুর রহমান এবং গবেষণায় ড. এনামুল হক।

শামসুল হুদা:
সংগ্রামী কিংবদন্তি ভাষা সৈনিক শামসুল হুদা ১৯৩২ সালের ১ ডিসেম্বর ফেনী জেলার সোনাগাজী উপজেলার অন্তর্গত চর চান্দিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বাবার নাম মরহুম মো. ইদ্রিস মিয়া এবং মা মরহুমা রহিমা খাতুন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএ ডিগ্রী, পাকিস্তানের করাচী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএ এবং অষ্ট্রেলিয়ার ইউনির্ভাসিটি অব নিউ সাউথ ওয়েলস্ থেকে এমএস ডিগ্রী লাভ করেন। ছাত্রাবস্থায় দৈনিক ইত্তেফাকসহ বিভিন্ন পত্রিকায় সহ-সম্পাদক হিসেবে সাংবাদিকতায় নিয়োজিত ছিলেন। ছাত্র জীবনে গঠনমূলক রাজনীতি ও ভাষা আন্দোলনের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন এবং দীর্ঘদিন কারাবরণ করেন। ভাষা-আন্দোলনের কারণে তাকে তদানিন্তন পাকিস্তান সরকারের সেন্ট্রাল সুপেরিয়র সার্ভিস (সিএসপি) থেকে বঞ্চিত করা হয়। ১৯৪৮ থেকে ১৯৫২ সাল পর্যন্ত ছাত্রলীগ কর্মী ও ছাত্রনেতা হিসেবে ভাষা আন্দোলনের সকল কর্মসূচিতে সক্রিয় অংশগ্রহণ এবং রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন সমাবেশ, মিছিল, গণসংযোগে বিশেষ ভূমিকা পালন করেন।
ডা. বদরুল আলম:
ঢাকায় নির্মিত প্রথম শহীদ মিনারের নক্সাকারী ডা. বদরুল আলম ১৯২৯ সালে জামালপুর জেলার শেরপুরে জন্মগ্রহণ করেন। তার পৈতৃক নিবাস নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে। বাবা আলহাজ মৌ. নাসির উদ্দিন আহমদ, মা তহুরুন্নেছা। তিনি ১৯৫৬ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করেন। বদরুল আলম ছিলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের ১৯৪৬ সালের প্রথম ব্যাচের ছাত্র। রাজনীতি, ভাষা-আন্দোলন এবং নানা সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার কারণে শিক্ষাজীবন বিপর্যন্ত হয়েছে। ১৯৪৭ সাল থেকেই তিনি ভাষা-আন্দোলনে শরিক হন। তিনি ছিলেন ‘শিল্পী সংঘ’-এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। নাটক, অংকন, লেখালেখি, সাহিত্যচর্চা ছিল তার নেশা। ১৯৮০ সালের ১০ সেপ্টেম্বর তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

ড. অনুপম সেন:১৯৪০ সালের ৫ আগস্ট চট্টগ্রাম মহানগরীর আইস ফ্যাক্টরি রোডের পৈতৃক বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন অনুপম সেন। গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামের বোয়ালখালী থানাধীন ধলঘাট গ্রামে, একসময় এই গ্রাম ছিল পটিয়া থানার অন্তর্গত। বাবা বীরেন্দ্রলাল সেন, মা স্নেহলতা সেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজতত্ত্বে ১৯৬২ সালে বিএ (সম্মান) ও ১৯৬৩ সালে এমএ পাস করেন। পরবর্তীতে কানাডার ম্যাকমাস্টার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭৫ সালে সমাজতত্ত্বে এমএ ডিগ্রি অর্জন করে পিএইচ.ডি. প্রোগ্রামে ভর্তি হন। ১৯৭৯ সালে পিএইচ.ডি. ডিগ্রি লাভ করেন।বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য অধ্যাপক ড. অনুপম সেন বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে পুরস্কার, সম্মাননা এবং সংবর্ধনা পেয়েছেন। এগুলোর মধ্যে- একুশে মেলা পরিষদ চট্টগ্রামের একুশে পদক-২০০৭, আলোকিত বোয়ালখালীর বর্ষপূর্তি সংবর্ধনা ২০০৭, অবসর সাহিত্য পুরস্কার ২০০৭, লায়ন্স ক্লাব ও রোটারি ক্লাবের সম্মাননা ২০০৭, গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন সম্মাননা ২০০৬, পটিয়া সমিতি চট্টগ্রামের গুণীজন সংবর্ধনা ২০০৬, ইউনাইটেড নেশনস ডে অ্যাওয়ার্ড ২০০২, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী পূর্তি সংবর্ধনা ২০০৭, বৃহত্তর চট্টগ্রাম উন্নয়ন সংগ্রাম কমিটির চট্টগ্রাম সম্মিলন ২০০১, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের গুণীজন সংবর্ধনা ১৯৯৯, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সংবর্ধনা ১৯৯৫, চট্টগ্রাম পরিষদ কলকাতার বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী সম্মাননা, ধ্রুব পরিষদের শাস্ত্রীয় সঙ্গীত সম্মাননা এবং শাপলা সংঘের গুণীজন সংবর্ধনা উল্লেখযোগ্য।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
নভেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া