২৩শে জুলাই, ২০১৯ ইং | ৮ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

মুস্তাফিজ জাদুতে হায়দরাবাদের জয়

Mustafizur Rahman of Sunrisers Hyderabad appeals for the wicket of Shaun Marsh of Kings XI Punjab during match 18 of the Vivo IPL 2016 (Indian Premier League ) between the Sunrisers Hyderabad and the Kings XI Punjab held at the Rajiv Gandhi Intl. Cricket Stadium, Hyderabad on the 23rd April 2016 Photo by Ron Gaunt / IPL/ SPORTZPICS

Photo by Ron Gaunt / IPL/ SPORTZPICS

ক্রীড়া প্রতিবেদক : আরেকবার ক্রিকেট বিশ্ব দেখলো মুস্তাফিজ ঝলক। ভারতের বিপক্ষে জীবনের প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচে খেলতে নেমেই পাঁচ উইকেট নিয়ে ক্রিকেট বিশ্বে আলোড়ন তুলেছিলেন। পরের ম্যাচে ছয় উইকেট নিয়ে সেই আলোড়নকে আরো উচ্চতায় নিয়ে যায়। দিন যত যাচ্ছে তার বোলিংয়ে জাদু যেন দর্শকদের আরো বিমোহিত করছে। জাতীয় দল ও বিশ্বকাপের পর আইপিএলেও একের পর এক বিস্ময়ের জন্ম দিয়েই চলছেন সাতক্ষীরার এই কাটার বয়। তার কিপটে বোলিংয়ের কল্যাণেই এবারের আইপিএল আসরে টানা তৃতীয় জয় পেয়েছে সানরাইজার হায়দ্রাবাদ। এজন্য পেয়েছেন ম্যাচসেরার পুরস্কারও।

জয়ের জন্য পাঞ্জাবের দেয়া ১৪৪ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ঝড় তোলে দুই ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও শিখর ধাওয়ান। ১০ ওভারের শেষ বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার। তার আগে মাত্র ৩১ বলে ৭টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে করেন ৫৯ রান। পরে শিখর ধাওয়ান ৪৫ রান করে আউট হন। শেষ পর্যন্ত ১৩ বল বাকি থাকতেই পাঁচ উইকেটের জয় পায় মুস্তাফিজের হায়দ্রাবাদ।

এর আগে টসে জিতে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবকে ব্যাট করতে পাঠায় হায়দ্রাবাদের অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার। দলীয় ১৪ রানে ওপেনার মুরালি বিজয় হারায় পাঞ্জাব। পরে দলকে ভালো অবস্থানে নেয়ার চেষ্টা চালান ভোরহা ও শন মার্শ। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে মুস্তাফিজকে আক্রমণে আনেন দলপতি ওয়ার্নার। বল পেয়েই ব্যাটসম্যানদের নাকানি-চুবানি খাওয়ান তিনি। তুলে নেন মেডেন ওভার। তার এই ওভারেই রানআউট হন ভোরহা। পরে দলীয় ৬৫ রানের মধ্যে ডেভিড মিলার ও ম্যাক্সওয়েলকে হারায় তারা।

দলীয় ১৪তম ওভারে আবারো বোলিংয়ের দায়িত্ব পান মুস্তাফিজুর রহমান। এ ওভারে এসেই মার্শকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন তিনি। এজন্য খরচ করেন মাত্র ১ রান। ১৬তম ওভারের দায়িত্ব পেয়ে দেন মাত্র ২ রান।

টি-২০ ক্রিকেট মানেই ধুমধারাক্কা চার-ছয়ের খেলা। এমন ফরম্যাটে মুস্তাফিজ যখন শেষ ওভার করার দায়িত্ব পেলেন তখন পাঞ্জাবের হাতে পাঁচটি উইকেট। শেষ ওভারে ব্যাটসম্যানদের কাছ থেকে চার-ছক্কার আশা থাকলেও মুস্তাফিজের বোলিংয়ের সামনে ব্যটসম্যানরা ছিলেন অনেকটা অসহায়। শেষ ওভারে মাত্র ৬ রান দিয়ে মুস্তাফিজ তুলে নেন আরও একটি উইকেট। মূলত তার কিপটে বোলিংয়ের কারণেই ১৪৩ রানে শেষ হয় পাঞ্জাবের ইনিংস।

পাঞ্জাবের পক্ষে শন মার্শ সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন। এছাড়া প্যাটেল করেন ৩৬ রান। হায়দ্রাবাদের হয়ে মুস্তাফিজুর রহমান মাত্র ৯ রানে দুটি উইকেট তুলে নেন। এছাড়া হেনরিকস নেন দুটি উইকেট। ম্যাচসেরার পুরস্কার পান মুস্তাফিজুর রহমান।
 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন    
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া