২৩শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৮ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

বিশ্বকাপের সুপার টেন এ বাংলাদেশ

Bangladesh's Taskin Ahmed, center, celebrates the wicket of Oman's Zeeshan Maqsood during the ICC World Twenty20 2016 cricket tournament at the Himachal Pradesh Cricket Association (HPCA) stadium in Dharamsala, India, Sunday, March 13, 2016. (AP Photo /Tsering Topgyal)ক্রীড়া প্রতিবেদক : বৃষ্টি আইনে ওমানকে ৫৪ রানে হারিয়ে টি-২০ বিশ্বকাপের সুপার টেন এ উঠলো বাংলাদেশ। এদিন তামিম আর সাকিবের দুর্দান্ত পারফরমেন্সে কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছায় মাশরাফিরা। সুপার টেনে লাল-সবুজরা খেলবে পাকিস্তান, ভারত, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে। বৃষ্টিবিঘিœত ম্যাচে ডাকওয়ার্থ লুইস মেথডে ওমানের সামনে সবশেষে টার্গেট দাঁড়ায় ১২ ওভারে ১২০ রান। তারা ৯ উইকেট হারিয়ে ৬৫ রানেই থেমে যায়। দলের দুই ব্যাটসম্যানই দুই অঙ্কের রানে পৌঁছাতে পেরেছেন। 
ধর্মশালায় পৌঁছে সতীর্থদের সঙ্গে নিয়ে কোচ হাতুরুসিংহের সঙ্গে তামিম বলেছিলেন, তার স্বপ্ন টি-২০ ক্রিকেটে একটি সেঞ্চুরি করার। বাছাই পর্বের দুই ম্যাচ পর তামিম তৃতীয় ম্যাচে স্বপ্নপূরণ করলেন আর কোচকে দেয়া কথাও রাখলেন। সাবাশ তামিম, তুমিও উল্লাসে মাতলে, সঙ্গে দেশকেও মাতালে। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরমেট টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ যে অপূর্ণতায়  ভুগছিলো, সেটা দূর করলেন বিষ্ফোরক ব্যাটসম্যান খ্যাত তামিম ইকবাল। সংক্ষিপ্ত সংস্করণের ক্রিকেটে দেশকে প্রথম শতক উপহার দিলেন উদ্বোধনী এই তারকা ব্যাটসম্যান।
প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে টি-২০তে এক হাজার রানের মাইলফলকের একদম প্রান্তে দাঁড়িয়েছিলেন এ বাঁহাতি। হাজারী ক্লাবে প্রবেশ করতে দরকার ছিল মাত্র ১১ রান। তামিম এর সঙ্গে আরও ৯২ রান যোগ করলেন। তিনি একই দিনে স্পর্শ করলেন দুটি মাইলফলক। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে টি-২০তে করলেন সেঞ্চুরি। সংক্ষিপ্ত ভার্সনে এই সেঞ্চুরিটাই এতদিন অধরা ছিল বাংলাদেশের। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা তামিমের ৬৩ বলে ১০৩ রানের ইনিংসে প্রথমে ব্যাট করে ওমানকে ১৮১ রানের লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ। আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে চমকে দেওয়া ওমান গতকাল বাংলাদেশের বিরুদ্ধে খেলতে নেমে বাঘের গর্জন শুনলো আর তামিম চমক দেখলো। ১০টি চার ও পাঁচ ছক্কায় তামিমের শতকের ইতিহাস গড়া এই সেঞ্চুরির পাশাপাশি ২৬ বলে সাব্বিরের ৪৪, সাকিবের ৯ বলে ১৭ ও সৌম্যর ১২ রানের ইনিংসে ২ উইকেটে ১৮০ তোলে বাংলাদেশ।
 সেঞ্চুরির আগেও আরেকটি মাইলফলক ছুয়েছেন তামিম। বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে স্পর্শ করেছেন ১ হাজার টি-টোয়েন্টি রান। এর আগেও দু দফায় পুরো ২০ ওভার ব্যাটিং করেছিলেন তামিম। কোনোবারই ছাড়াতে পারেননি আশির গণ্ডি। এবার নিজেকে ছাড়ালেন, ছাড়িয়ে গেলেন দেশের সবাইকেও।   ৫৮তম ম্যাচে এসে টি-টোয়েন্টিতে প্রথম শতক পেল বাংলাদেশ। এই সংস্করণে বাংলাদেশের আগের সর্বোচ্চ ছিল তামিমেরই অপরাজিত ৮৮; ২০১২ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে।
চলতি বিশ্বকাপে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ৫৮ বলে অপরাজিত ৮৩ রানের চমৎকার এক ইনিংস খেলেছিলেন তামিম। সেদিন ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছিলেন, শতকের ভাবনা তার ছিল না। দলকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেওয়াই ছিল তার লক্ষ্য। ৮ রানে হারের পর নেদারল্যান্ডসের অধিনায়ক পিটার বোরেন বলেছিলেন, সঙ্গীদের সহায়তা পেলে তামিমের সেদিনই শতক পেয়ে যাওয়ার কথা ছিল। ওমানের বিপক্ষে সঙ্গীদের কাছ থেকে সেই সহায়তা পেলেন দেশসেরা উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান। ওমানের ‘মালিঙ্গা’ মুনিস আনসারিকে ছক্কায় পা রাখেন নব্বইয়ে। শতকের আগে অবশ্য একটু থমকে গিয়েছিলেন। ৯৭ রানে ডট বল খেলেছিলেন ৩টি। এরপরই ওই অফ ড্রাইভে চারে অসাধারণ এই শতক।
শেষ পর্যন্ত ৬৩ বলে ১০৩ রানে অপরাজিত তামিম। শতকের পর তামিম জড়িয়ে ধরেন অন্য প্রান্তে থাকা সাকিব আল হাসানকে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের আগের সর্বোচ্চ ছিল সাকিবেরই। ২০১২ সালের আসরে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৫৪ বলে ৮৪ রানের সেই ইনিংস খেলেছিলেন বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার।
বাংলাদেশের ছুড়ে দেয়া ১৮১ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা একদমই ভালো হয়নি ওমানের। দলীয় ১ রানের মাথায় জিসান মাকসুদের (০) উইকেটটি হারিয়ে চাপে পড়ে মধ্যপ্রাচ্যের দলটি। তাসকিন আহমেদের বলে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাতে ক্যাচ তুলে দেন জিসান। এই চাপ সামলে উঠতে না উঠতেই ফের ধাক্কা খায় ওমান। দলের আরেক ওপেনার খাওয়ার আলিও পথ ধরেন প্যাভিলিয়নের। তাকে এই পথ বাতলে দেন বাংলাদেশি বোলার আল-আমিন হোসেন। খাওয়ার আলিকে টাইগার দলপতি মাশরাফির তালুবন্দী করান আল-আমিন। 
৭ ওভার যেতে না যেতেই ম্যাচটিতে বাগড়া দেয় বেরসিক বৃষ্টি। কিছুক্ষণ পর খেলা শুরু হলে বিশ্বকাপের মূলপর্বে যেতে বৃষ্টি আইনে ১৬ ওভারে ১৫২ রান দরকার হয় ওমানের। এক ওভার পর অর্থাৎ ওমানের ৮ ওভার পার হতেই দ্বিতীয় দফায় বৃষ্টি হানা দেয় ম্যাচে। 

বৃষ্টির পর আবারো মাঠে গড়ায় খেলা। নতুন টার্গেটে ব্যাট করতে নামে ওমান। তাদের নতুন টার্গেট দাঁড়ায় ১৬ ওভারে ১৫২ রান। ইনিংসের নবম ওভারে সাকিবের বলে মুশফিকের গ্লাভসবন্দি হয়ে ফেরেন আমির কলিম। একই ওভারে স্ট্যাম্পিং হন আমির আলি। দ্বিতীয়বার বৃষ্টির পর ওমানের টার্গেট দাঁড়ায় ১২ ওভারে ১২০ রান। দশম ওভারে মাশরাফি ফিরিয়ে দেন ২৫ রান করা জাতিন্দির সিংকে। আবারো বোলিংয়ে এসে সাকিব নিজের তৃতীয় উইকেটটি তুলে নেন। মেহরান খান সাব্বিরের হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন। একই ওভারে নতুন ব্যাটসম্যান হয়ে আসা সুলতান আহমেদকেও ফেরান সাকিব। শেষ ওভারে সাব্বির নেন লালচেতার উইকেটটি। টাইগারদের হয়ে চারটি উইকেট দখল করেন সাকিব আল হাসান। ৩ ওভারে ১৫ রান খরচায় তিনি চার উইকেট পান। একটি করে উইকেট নেন তাসকিন, সাব্বির, মাশরাফি ও আল আমিন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া